30 Mar 2015

We are One and the Same

Pranay is a founder member of YRC Swapno
Youth Facilitator (2015)
Read his earlier post

I am Pronoy. I am a boy, I am a Hindu by birth, a Bengali, and my food habits include eating rice, vegetables, fish and chicken. At first glance I am known in my world through these identities. I always tried to interact with people with similar identities.

Since I was in class VIII, I have been bothered by two things. One of them is a sad memory. On my way to school from home, I had made friends with a girl from my neighbourhood. This attracted a lot of criticism from her family and neighbours, because our society does not look kindly on interactions between an adolescent boy and girl. Everyone assumes that it always equals a love relationship. We too were marked within that stereotypical frame, and our interactions were stopped. After some time I came to know that we might have been allowed to continue to interact, had I been of the same caste as that girl. That day my caste identity caused me a lot of suffering. In my thoughts I blamed my ancestry. I used to question myself, why wasn’t I born into a higher-caste family? Where was I at fault? Ever since, I have felt great discomfort in expressing my caste-identity.

I have another identity also that sometimes causes problems for me. In our society, girls have to face all kinds of violence only because of their gender identity. I too suffer because I am a boy, and this identity is associated with feelings of unjustified pride and luxury. I also should have addictions like other friends, express anger at women, shouldn’t do household chores, and what not! And when I do not indulge in addictions, when I do not get angry, when I do household chores, I am labeled as ‘girlish’ as these are all supposedly the legitimate characteristics and work of girls. This is why my identity as a boy makes me uncomfortable. I feel people should not be judged only on the basis of their identities. A person may have one identity, but s/he may be very different from our stereotypical notions of how that identity is supposed look and and behave. Because of this, criticising them, judging and treating them as unequal is very painful.

last December, through the recommendation of Thoughtshop Foundation, I heard of the opportunity of participating in the Youth Unite programme, which was an initiative of Oxfam GB. I was feeling very happy at the thought of boarding a plane and going outside the country for the first time. But the more the day approached, I started experiencing many kinds of doubt. For example, I am unable to talk in any language other than Bengali, how would people there understand me? Would I get food according to my preferences? Would I be able to make friends with young people from other countries?

After so much anxiety, when I finally boarded the plane on 20th January, it was with a new perception of courage that I started flying in the sky. It was with a feeling of wonder that I thought how far men’s thoughts had taken civilisation forward. How did a craft carry so many of us and our luggage and land us in Bangkok within such a short time! I was looking at the city from the car as we travelled to our hotel. I had a vague idea about Bangkok from what I had seen of it in films. I saw many new things – The roads were very good, there were many cars but there were no sounds of unnecessary honking as in India. It is a rule in Thailand that retired people will run food shops and working people would buy eat from there. There is no such system in India, where women must cook at home and men will work at jobs. In Bangkok, both men and women work so this system ensures that no one has to take on the extra load of cooking at home while going for work. Such a perfect way of practicing equal relationships and rights! This is why their country has progressed so much. Looking out and thinking such thoughts, we reached and checked in at a luxurious hotel.

The next day, as I got acquainted with people from five countries, I really wondered at the tremendous diversity to be found in humanity. At first I was finding it very hard to adjust, but the whole purpose of the visit was to open myself up more and to increase my capacity for accepting others. Thinking this, I tried to adjust with friends from different countries, different kinds of foods, cultures, dress and customs. My own family has afforded me a narrow experience and perspective on life, because we are a small family and I have no sister.

So, in one session, when I was thinking of family members changing their religion, finding a condom in one’s sister’s schoolbag, or one’s elder brother marrying into a different caste, i was at first not being able to accept any of it. But then I thought – if a family member feels that she will have a better life following another religion, s/he can go for it. And it was not a bad thing either to find a condom in one’s sister’s schoolbag. She may very well want to know about condoms and sex, this was her right. Then I started feeling that race, religion, gender – these were not issues to raise a cry about – and being flexible about these things was in everyone’s interest.

The next day we went for Thai boxing. It is a fixed notion in our society that boys can do certain things, and girls cannot. But both boys and girls from our Youth Unite team took training in boxing and participated in it. Ever since, I have been feeling that everyone can do everything, if they get the same opportunity and help. After boxing, groups were created with representatives from all 5 countries in each group, and we were given 1000 baht (the currency of Thailand) per group to do grocery shopping and cook dinner. None of us knew where the market was, nor did we know the local language. It was also very difficult to get spices we were familiar with. Despite this, we were able to cook dinner in an hour, consisting of dishes from 5 different countries. From this experience I felt that language may be a medium of communication, but with the proper desire and sensitivity, we can understand people of all languages, and work with them.

Another strange journey awaited us. Back home in India, I have often given money to the blind, or helped them cross the road, but I never thought that I would have to be blind for some hours. Dialogue in the Dark was one such journey starting from a room darker than night, with slippery corridors, high and low places here and there, and statues in some other places, and one had to negotiate one’s way through such a place totally depending on all of the senses except sight. At times I was scared and was reflecting on how helpless the blind are. Walking with such thoughts and insights, we found a 'bus stop' and boarded a 'bus'. Inside we felt the cool wind and the touch of rain, and after getting down and entering a 'shopping mall', we touched and smelled a lot of things to identify what they were. We walked out again and heard the sweet strains of a song. We bought cold drinks and chips in the dark, and got the correct change in return. We kept asking ourselves when we would get out into the light again. And we had the question as to how our guides knew where everything was. Perhaps they had practised in the light? We asked our guide “How were you able to take us around so skilfully?” She answered, “Some of us have never seen light in our lives, while some have lost our sight in accidents.” Then we felt that it was useless to pity the blind. In reality, each of us were experts in our unique strengths. But when we see another lacking the particular capacity that we have, we think them to be weak and helpless. After undertaking this extraordinary journey, we felt that the lack of my strength may not necessarily be the weakness to another, because all of us had the capacity to win over our challenges, and there were many different ways for doing that.

After four consecutive days of not predominantly holding up my own identity, but taking myself through the diverse identities of others, I felt that identities can be of many types. Some identities we get through birth, some we adopt because we like them, while some identities are thrust upon us by society. Identities are important for living through life, but we always tend to accept those with similar identities and distance ourselves from people with different identities. On the surface this is not a problem, but it is a great obstacle in personal and social expansion. At the end of it all I felt that, let us have numerous identities, still we are one and the same. In the words of a poet – “Many languages, many opinions, many ways of dressing, but see the grand unity amidst the diversity”

The experience of Youth Unite - International Youth Leadership Exchange Programme, has been a significant journey of realization, which has expanded the horizons of my mind. I believe that from now on I will be able to accept and give importance to people of different identities more than ever. I am trying to express my views and experience directly to my family, friends and immediate society, and to people at large through social media.



মানুষ এক ও অভিন্ন


আমি প্রণয়। এছাড়াও আমি একজন ছেলে, জন্মসুত্রে আমি হিন্দু, আমি বাঙালি আর ভাত, সব্জী, মাছ ও মুরগীর মাংস আমার খাদ্যাভ্যাস। আপাতদৃষ্টিতে এই পরিচয়গুলোতেই আমার দুনিয়ায় আমি পরিচিত। চেষ্টা করতাম এই রকম identity-র মানুষদের সঙ্গেই মেলামেশা করতে।

যখন আমি ক্লাশ VIII-এ পড়ি, তখন থেকেই আমি মূলত দুটো ব্যাপারে অখুশি। একটি কষ্টের স্মৃতি - বাড়ি থেকে স্কুলে যাওয়ার সূত্রে আমার বন্ধুত্ব হয়েছিল আমাদের পাড়ার একটি মেয়ের সঙ্গে। এ নিয়ে আমার বান্ধবীর পরিবারসহ পাড়ার লোকেরা সমালোচনা শুরু করেছিল, কারণ আমাদের সমাজে বয়ঃসন্ধিকালীন ছেলে-মেয়ের মেলামেশা খুব একটা সুনজরে দেখা হয় না। এছাড়া সকলের ধারণা যে মেয়ে-ছেলের মেলামেশা মানেই প্রেমের সম্পর্ক। আমাদেরকেও তাই ঐ বদ্ধ গতানুগতিক ধারণায় চিহ্নিত করা হয় আর আমাদের মেলামেশা বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিছুদিন পরে জানলাম হয়তো আমাকে ঐ মেয়েটির সঙ্গে মিশতে দেওয়া হতো যদি আমি তার সমজাতের হতাম। সেদিন আমার caste-এর পরিচয়টি আমাকে গভীর কষ্ট ভোগ করিয়েছিল। সেদিন আমার চিন্তা-চেতনা বারবার নিজের বংশকে দোষারোপ করেছিল। আমি নিজেকে প্রশ্ন করতাম, কেন আমি কোনো higher caste পরিবারে জন্মালাম না, আমার দোষ কোথায় ছিল? সেদিন থেকে আমি আমার caste সংক্রান্ত পরিচয় দিতে অস্বস্তিবোধ করি।

এছাড়াও আমার আর একটি পরিচয় আছে যেটা কখনো কখনো আমাকে সমস্যায় ফেলে। আমাদের সমাজে মেয়েদের শুধুমাত্র তাদের লিঙ্গভিত্তিক পরিচয়ের সূত্রে অনেক হিংসা সহ্য করতে হয়। তাহলে আমার দুঃখ কোথায়? হ্যাঁ দুঃখ আছে কারণ আমি ছেলে, আর এর সঙ্গে জুড়ে আছে পুরুষত্বের অহঙ্কার আর বিলাসিতা। আমাকে বন্ধুদের মতো নেশা করতে হবে, মহিলাদের উপর রাগ দেখাতে হবে, বাড়ির কাজ করা যাবেনা, আরো কতকিছু! আর যখনই আমি নেশা করিনা, রাগ করিনা আর বাড়ির কাজে হাত লাগাই, তখনই আমাকে মেয়েলি স্বভাবের বলা হয় কারণ এগুলো নাকি মেয়েদেরই বৈশিষ্ট্য আর মেয়েদেরই কাজ। আর এর জন্যই আমি আমার ছেলে হওয়ার পরিচয়ে অস্বস্তিবোধ করি। আমার মনে হয় পরিচয় দিয়ে মানুষকে বিচার করা ঠিক নয়। একটা মানুষের পরিচয় এক রকম আর আমরা ঐ পরিচয় সম্বন্ধে যে চিরাচরিত ধারণাগুলো পুষে রেখেছি, মানুষটি তার থেকে অন্যরকম হতেই পারে, আর এর জন্য সমালোচনা, হিংসা, অসমানতা ও তাকে বিচার করা খুবই কষ্টদায়ক।

আমার গ্রুপের সাহায্যে এবং Thoughtshop Foundation-এর সুপারিশে যখন গত ডিসেম্বর মাসে ‘Oxfam GB’-র উদ্যোগে আয়োজিত Youth Unite programme এ অংশগ্রহণ করার সুযোগের কথা শুনলাম তখন খুব আনন্দ হচ্ছিল এই ভেবে যে প্রথমবার প্লেনে উঠব এবং দেশের বাইরে যাব। কিন্তু সেই আনন্দের দিন যত এগিয়ে আসতে থাকল, ততই মনে-মনে হরেক রকমের দ্বিধা অনুভব করতে শুরু করলাম। যেমন, আমি তো বাংলা ছাড়া কোনো ভাষা বলতে পারিনা – ওখানে ওরা আমাকে বুঝবে কিনা, মনের মতো খাবার পাবো কিনা, অন্যান্য দেশের বন্ধুদের সাথে আমার মিল হবে কি?

এত দুশ্চিন্তার পর যখন অবশেষে ২০শে ডিসেম্বর প্লেনে বসলাম, তখন যেন সাহসীকতার এক নতুন অনুভবে ভর করে আকাশে ভাসলাম। খুব আশ্চর্য লাগছিল এই ভেবে যে মানুষের ভাবনা সভ্যতাকে কত এগিয়ে নিয়ে গেছে, একটি যান কি করে এতগুলো মানুষ ও তাদের জিনিসপত্র নিয়ে এত কম সময়ে আমদেরকে ব্যাংককের মাটিতে পৌঁছে দিলো! গাড়িতে করে হোটেলে যাওয়ার পথে শহরটাকে দেখতে দেখতে যাচ্ছিলাম। ব্যাংকক সম্বন্ধে সিনেমার শুটিং দেখে অল্প ধারণা ছিল তবুও অনেক নতুন কিছু দেখতে পেলাম। রাস্তাঘাট খুব উন্নত, গাড়ি অনেক কিন্তু ইন্ডিয়ার মতো অকারণে হর্নের শব্দ নেই। থাইল্যান্ডের সরকারী নিয়ম অবসরপ্রাপ্তরা খাবারের দোকান করবে এবং চাকরীরত লোকেরা সেই খাবার খাবে। ভারতের মত বদ্ধ ধারণা এখানে নেই, যে মহিলারা বাড়িতে রান্না করবে আর পুরুষেরা করবে চাকরী। এখানে মহিলা-পুরুষ উভয়ই চাকরী করে তাই এই নিয়মের ফলে কাজে যাওয়ার আগে বাড়িতে কারোর উপরেই অতিরিক্ত রান্নার চাপ থাকে না। সত্যি কত নিখুঁত সমান সম্পর্ক ও অধিকার! তাইতো ওদের দেশ কত এগিয়ে। এই রকমের দৃশ্য ও চিন্তা-ভাবনার মধ্যে দিয়ে এক বিলাসবহুল হোটেলে গিয়ে উঠলাম।

পরদিনের program-এ ৫ টি দেশের মানুষের সঙ্গে আলাপের পর মনে হল সত্যি মানুষের মধ্যে কত বিভিন্নতা ও বৈচিত্র। প্রথমে নিজেকে মানাতে খুবই অসুবিধে হচ্ছিল, কিন্তু ওখানে যাওয়ার উদ্দেশ্যই ছিল নিজেকে বেশি করে খোলার এবং সকলকে গ্রহণ করার ক্ষমতা বাড়ানো। সেই ভাবনা থেকে চেষ্টা করলাম ভিন্ন দেশের বন্ধু, খাবার, সংস্কৃতি, পোশাক, প্রথার সঙ্গে নিজেকে খাপ খাওয়ানোর।

আমাদের নিজেদের পরিবারের গণ্ডী খুবই সংকীর্ণ কারণ আমাদের ছোটো পরিবার আর আমার কোনো বোন নেই। একটি সেশনে যখন পরিবারের সদস্যদের ধর্ম পাল্টানো, ছোটো বোনের স্কুলব্যাগে কন্ডোম পাওয়া বা দাদার বেজাতের মেয়েকে বিয়ে করার কথা ভাবছিলাম তখন একেবারেই মানতে পারছিলাম না। কিন্তু আবার মনে হল পরিবারের কেউ অন্য ধর্মে ভালো থাকতে চাইলে যেতেই পারে। আর বোনের ব্যাগে কন্ডোম পাওয়া মানেও খারাপ নয়। ও কন্ডোম বা সেক্স সম্পর্কে জানতে চাইতেই পারে, সেটা ওর অধিকার। তখন মনে হয়েছিল হ্যাঁ -- জাতি, ধর্ম, লিঙ্গ, এগুলো কোনো ব্যাপার না, আমরা সবকিছুতেই flexible হলে সবার জন্যেই ভালো।

পরের দিন আমরা থাই বক্সিং-এ গেছিলাম। আমাদের সমাজে চিরাচরিত ধারণা যে ছেলে মানে এই এই পারে, আর মেয়ে মানে পারেইনা। কিন্তু Youth Unite Team থেকে আমরা ছেলে-মেয়ে উভয়ই বক্সিং ট্রেনিং নিয়ে বক্সিং-এ অংশগ্রহণ করেছিলাম। এর পর মনে হতে শুরু করেছে যে আমরা সবাই সুযোগ ও সাহায্য পেলে সব কিছু সমান ভাবে করতে পারি। বক্সিং-এর শেষে পাঁচটি দেশ থেকে এক-এক জন করে নিয়ে এক-একটা দল করা হয়েছিল এবং আমাদের ১০০০ বাথ (থাইল্যান্ডের অর্থ) করে দিয়ে বলা হয়েছিল ঐ অর্থ দিয়ে বাজার করে আমাদের ডিনার বানাতে হবে। আমাদের না জানা ছিল ব্যাংকক শহরের বাজার কোথায়, না জানতাম থাই ভাষা। তাছাড়া আমাদের পরিচিত মশলা পাওয়াটাও খুবই কঠিন ছিল। তবুও আমরা ১ ঘন্টার মধ্যে ৫টি দেশের খাবার বানিয়েছিলাম। এই অভিজ্ঞতা থেকে মনে হল ভাষা যোগাযোগের মাধ্যম ঠিকই কিন্তু ইচ্ছে আর অনুভব থাকলে আমরা সমস্ত ভাষার মানুষকে বুঝতে পারি এবং তাদের নিয়ে কাজ করতে পারি।

এবার আর এক অদ্ভুত যাত্রা শুরু হল। নিজের দেশে অন্ধ মানুষকে পয়সা দিয়েছি, হাত ধরে রাস্তাও পার করিয়েছি সহানুভূতি থেকে কিন্তু কখনো ভাবিনি কয়েক ঘণ্টা নিজেকে অন্ধ হতে হবে, আর যারা অন্ধ তারা আমাকে রাস্তা দেখাবে। Dialogue in the Dark এমনি এক যাত্রা। এমন একটি বিশাল বাড়ি যেখানে রাতের থেকেও বেশি অন্ধকার, কোথাও পিচ্ছিল পথ, কোথাও উচু-নীচু, কোথাও স্ট্যাচু – আর এসবের মধ্যে দিয়ে চলতে হবে অনুভূতির উপর ভরসা করে। কখনো কখনো ভয় করছিল আর মনে হচ্ছিল যারা অন্ধ তারা কতটা অসহায়। এরকমই চিন্তা উদ্দীপনা নিয়ে চলতে-চলতে একটা বাস স্টপ পেলাম ও বাসে উঠে বসলাম। বাসের মধ্যে ঠান্ডা বাতাস ও বৃষ্টির স্পর্শ, বাস থেকে নেমে শপিং মল, সেখানে নানা রকম জিনিস স্পর্শ করে গন্ধ শুঁকে তার আমেজ নিলাম। বিচলিত হয়ে হেঁটে বাইরে গেলাম এবং একটা মিষ্টি গান শুনলাম। ওখানে কোল্ড ড্রিঙ্কক্স আর চিপস কিনলাম এবং বাথ দিতে ঠিকঠাক পয়সা ফেরতও করল। বার বার মনে হচ্ছিল কখন বাইরে যাব, কখন আলো পাবো। আর প্রশ্ন হল যারা আমাদের গাইড করছে, তারা তো দেখতে পান না, ওনারা কিভাবে বুঝছে কোনটা কোথায়? ভাবলাম হয়তো ওনারা লাইটের মধ্যে প্র্যাকটিস করেছেন। এরপরে আমরা অন্ধকারের মধ্যেই গাইডদের প্রশ্ন করলাম, “আপনারা আমাদের এত দক্ষতার সাথে কিভাবে ঘোরালেন?” ওনারা উত্তর দিলেন - “আমাদের মধ্যে কেউ কেউ জন্মে কখনো আলো দেখিনি, কেউ কেউ দুর্ঘটনায় চোখ হারিয়েছি।” তখন মনে হয়েছিল আমরা শুধু শুধু দৃষ্টিহীনদের করুণা করি, আসলে প্রত্যেকে প্রত্যেকের ক্ষমতায় পারদর্শী। কিন্তু যখন আমার ক্ষমতাটা অন্য কারোর মধ্যে থাকে না তখন তাকে আমরা দুর্বল বা অসহায় ভাবি। এই অসাধারণ যাত্রার পর মনে হল আমার ক্ষমতাটার অভাব অন্যের দুর্বলতা নাও হতে পারে কারণ আমাদের সকলের প্রতিবন্ধকতাকে জয় করার শক্তি আছে এবং তার আলাদা আলাদা রাস্তাও আছে। নিজের পরিচয়গুলোকেই প্রাধান্য না দিয়ে পর পর চারদিন নিজেকে বিভিন্ন পরিচয়ের মধ্য দিয়ে নিয়ে যাওয়ার পর মনে হল যে পরিচয় নানারকমের হতে পারে। কিছু পরিচয় আমরা বংশসূত্রে পাই, কিছু নিজের ভালোলাগা থেকে এবং কিছু পরিচয় সমাজ ব্যবস্থা আমাদের উপর চাপিয়ে দেয়। আমাদের বেঁচে থাকার জন্য পরিচয় অবশ্যই প্রয়োজন, কিন্তু আমাদের চিরাচরিত স্বভাব নিজের পরিচয়গোষ্ঠীর মানুষকে মেনে নেওয়া এবং ভিন্ন পরিচয়ের মানুষ থেকে দূরে থাকা। আপাতদৃষ্টিতে এতে কোনো অসুবিধে নেই কিন্তু এটাই ব্যক্তিগত ও সামাজিক বিকাশের ক্ষেত্রে অন্যতম বাধা। সর্বশেষে মনে হল যে আমাদের অজস্র পরিচয় থাক, তাও আমরা এক ও অভিন্ন। কবির ভাষায় – “নানা ভাষা নানা মত, নানা পরিধান, বিবিধের মাঝে দেখো মিলন মহান।”

Youth Unite-International Youth Leadership Exchange Program-এর অভিজ্ঞতা আমার জীবনের একটা গুরুত্বপুর্ণ অনুভূতির জায়গা, যা আমার মনের সীমানা বাড়িয়েছে। আমার বিশ্বাস এখন আমি প্রত্যেক পরিচয়ের মানুষকে অনেক বেশি করে গ্রহণ করতে পারব ও গুরুত্ব দিতে পারব। আমি চেষ্টা করছি আমার পরিবার, বন্ধু ও সমাজের কাছে সরাসরি এবং সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আমার চিন্তা-চেতনা ও অভিজ্ঞতাকে প্রকাশ করতে।

 

2 comments:

  1. Please comment my story

    ReplyDelete
  2. Thank you so much for writing this! I am also learning how to walk in other people's shoes, see the world from other people's perspective, in a class I am currently attending. It was encouraging to read about someone else having a similar experience on the other side of the world! (I am in Ireland) I think it might be the solution to the world's problems, I hope you will go on to encourage your friends and younger people to do the same.

    ReplyDelete

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here