26 Oct 2014

My Leadership Journey - Sangita

Sangita is a youth facilitator (2014)
Read her earlier post
I am Sangita. I am a youth facilitator at Thoughtshop Foundation. I have been associated with TF’s Youth Leadership journey for the last two years. This has been a big learning experience for me.
Childhood
Today I am remembering my childhood a lot. I liked to have a lot of fun. Though I wasn’t a very obedient child, I was obedient as far as studies were concerned. Actually I liked studying. I was quite good in studies. I used to be among the top ten in my class.

When I was 4 or 5 years old, I used to gather all my friends early every morning and go out to play in the sand. After I returned home, I used to get scolded by my parents, and sometimes get beaten up. One day when I had returned from play, my mother found my scalp prickling with sand particles. That day I was neither beaten, nor scolded. My punishment was that all my hair was shaved off. I was small and could not protest, though I felt angry. Why didn’t anyone even ask me once before shaving off my hair? Because they were grown-ups, were they permitted to do anything they pleased? However, this did not stop me from playing in the sand.
How I started moving about independently
When I was 8 years old, I first started to move about on my own. I really want to share this. There was an age difference of a year between me and my elder sister. When I was in class III, she was in class IV, and both of us had morning school. On the way, my school came first, and then my sister’s. My sister had to cross a busy road to reach school. My father dropped us. Later, after putting my younger sister to sleep, our mother came to fetch us back home.

One day my school had got over a little early. I was standing outside the building, waiting for Ma to come and pick me up. Suddenly I saw my father on his way to fetch my sister from her school. He told me, “You wait, let me pick up your sister and come back.” That day, when Baba took a lot of time in returning, I came back home on my own. It was perhaps from that day that I first started walking alone, and I continue to do it to this day. That day my parents also realized that I was slowly becoming independent.
Some independent initiatives
As I started to grow up, I would take initiatives with the children of my neighbourhood just like that – drawing competitions on some days and quiz competitions on some evenings, anchored by me. I used to personally arrange for some prizes. Perhaps my experiences in anchoring these sessions taught me how to present something to a group and how to look after the divergent needs of different people in a group.
Facing social discrimination as a girl
We were three sisters. My elder paternal aunt-in-law and aunt had sons. So they were always telling our mother, “We have sons, we don’t need to worry about anything!” This made my mother cry. Many others from our neighbourhood used to deliberately tell my mother, “A gold ring is good, even if it's twisted”. All the sons were gold, and all of us daughters were fake gold. When I qualified my Madhyamik, I had heard someone comment, “However much education girls get, they have to eventually wield a khunti [spatula].”

Society discriminated between boys and girls in this way, and ticked my mother off for not bearing a boy-child. All this started me thinking that girls also could achieve a lot of things if they tried. It also strengthened my determination to become independent in all respects, and made me focus all the more on my studies. And when I got a rank in class, it felt very good to see the smile on my parents’ faces.
Persevering
After my Madhyamik, we faced a crisis on the issue of a living space. My education was on the verge of being discontinued. There was no money to buy rice. Baba used to gather kochu saag [wild leafy vegetable] from somewhere and bring it home, and then Ma would cook it. But I hadn’t given up. The teacher who used to tutor me before continued to teach me from time to time, for which he did not charge money. With his help, I made notes using the test papers. With these notes, and those that had been given from school, I managed to qualify my Higher Secondary examination with a 2nd Division. The day the results came out, we had no money at home with which to go and see the outcome. Baba and I had to borrow money from a neighbour.

After this, I started giving tuitions. I contributed the Rs150 that I earned from these to pay for the cable [TV]. Being able to contribute in this way made me very happy.
My experience as a group member, and protesting against wrongdoing
And then one day I became a member of the Dumdum Drishtikon group. The group became a platform for me to express myself. The values of the group and my personal values were very much in sync. After joining the group, my old faith was affirmed newly – that in society, a girl has the same rights as a boy. The group taught me to know myself better.

I also started experiencing positive changes in myself. I started talking much more about the rights of individuals. I started protesting against wrong both within my family as well as in the outside world. If anyone bothered me, or any other woman, on the road, I used to stand up to them and protest. One day I saw a girl, about 14 or 15 years old, being harassed by some boys on the road. She was protesting, but they showed no signs of stopping. I pitched in immediately with the strength of my own protests and they finally refrained.

There was a house in our neighbourhood where the woman was tortured regularly by her in-laws. One day when I was passing by, I overheard her sharing her problems with some outsiders. I told her, “The next day they beat you, step out of home and start shouting loudly.” One day, that woman’s father and brother had come to visit at her in-laws’ place, when her husband, father-in-law and mother-in-law started beating all of them up. She came out and started shouting. A crowd of neighbours gathered. That day they told her mother-in-law that if there was a recurrence of such beatings, they would be driven out of the neighbourhood.

Nowadays the relationship between the woman and her mother-in-law seems to have improved. The mother-in-law accompanies her to the doctor and to the market and there appears to be no further quarrels. In this way, I have exhibited the courage to speak out against wrongdoing.
In the role of a Changemaker in my marital home
It has been a year that I got married. At first, married life had seemed like a lot of fun. We used to meet up before marriage. The days that I had office, in the mornings he waited at the bus-stop from where I would catch the bus to office. While returning home, we met up in Dharmatala. He used to wait for me for long periods.

But after marriage, he seemed to change. On the day of our marriage, there was an incident at my house surrounding my husband which made him feel very bad. For this reason, he doesn’t visit my home any more. I was in no way responsible for that unfortunate incident, but till now I have heard no end of it. At first when he raised this issue, I said nothing. I put myself in his place and thought that he was saying this from a place of hurt feelings.

But within 3 months of marriage, I gradually started becoming bad in the eyes of my mother-in-law. In her eyes, I did not know any housework, I used up too much water in my bath. She even objected to me speaking to my parents on the phone. She started picking fights with me on these issues. One day, when I had asked her to show me how to cut a small fish, she declared in front of a whole lot of people that I should not have got married in the first place.

When my parents came to drop me off at my in-laws’ house a few days after my marriage, she served them tea and mangoes, and said, “We do not eat at the in-laws’ house till our son or daughter has completed one year of married life.” This comment was very hurtful for me and my parents. I didn’t confide in my husband about these things. Nor did I say anything to my mother-in-law. I only used to cry. But day after day she continued to speak on these lines, “Your father has passed you off to my son without giving anything, he has gone scot-free.”

As day after day went by in the same manner, I started growing increasingly disheartened and hopeless. I didn’t eat properly, I couldn’t sleep. Nothing seemed to appeal to me. I just wanted to leave that house and go far away somewhere. But my old memories reminded me that I had not learnt to run away from difficult situations, I had learnt to face them and fight to overcome them.

So the next day my mother-in-law repeated herself, I protested. I said quite calmly, “It may be that my father has not given me anything. But he has given you his most valuable possession – that’s me. If he hadn’t done that, your son would not be married. Your son could get married only because my father gave me to him. In the same way, you yourself have given your three most valuable treasures to three other men.” After this, my mother-in-law has stopped raising that issue. I do not consider myself inferior in any respect. I believe I can do many things single-handedly.
My message
Try to be independent, and take initiatives.
My goal
I want to help those who need mental support.



আমার নেতৃত্বের যাত্রা


আমি সঙ্গীতা। আমি থটশপ ফাউন্ডেশনের একজন ইউথ ফেসিলিটেটার। গত দুবছর ধরে আমি ইউথ লিডারশীপ জার্নির সঙ্গে যুক্ত ছিলাম। এই জার্নি আমার কাছে বড় একটা শেখার জায়গা ছিল।

আমার ছোটবেলা
আজ ছোটবেলার কথা খুব মনে পড়ছে। আমি ছোটবেলা থেকেই মজা করতে খুব ভালবাসতাম। আমি বাবা–মার খুব বাধ্য সন্তান ছিলাম না ঠিকই, কিন্ত পড়াশোনার ব্যপারে বাধ্য ছিলাম। আসল কথা হল কি, আমার পড়াশোনা করতে ভালো লাগত, আমি পড়াশোনায় ভালই ছিলাম। ক্লাসে স্ট্যান্ড ও করতাম। যখন আমার বয়স ৪ কি ৫, তখন সকাল ৮টা-৯টা নাগাদ সব বন্ধুদের ডেকে বালিতে খেলতে চলে যেতাম, তারপর ঘরে ফিরে বাবা–মার বকুনি খেতে হত, আবার কখনও কখনও পিঠে দুমদামও পড়ত।
একদিন বালি থেকে খেলে বাড়ি ফিরতেই মা দেখলেন আমার মাথায় বালি কিচকিচ করছে। সেদিনকে আমার পিঠেও পড়ল না, বকুনিও খেতে হল না। সেই মূহুর্তে আমার কি মজা হয়েছিল যে আজকের মত আমি বেঁচে গেলাম! কিন্ত আমার শাস্তি হল -- মাথা ন্যাড়া করে দেওয়া। আমি তখন ছোট ছিলাম বলে এর প্রতিবাদ করতে পারিনি। আমার রাগ হচ্ছিল যে ন্যাড়া করার আগে আমাকে তো একবারও জিজ্ঞাসা করা হল না, ওঁরা বড় বলে যা খুশি তাই করতে পারেন? এটার জন্য আমার বালিতে খেলা কিন্তু বন্ধ হয়নি।
আমার স্বাধীনভাবে চলাফেরা শুরু
যখন আমার ৮ বছর তখন থেকেই আমি প্রথম একা চলাফেরা করতে শুরু করি। এই বিষয়ে আমার খুব লিখতে ইচ্ছে করছে। আমি আর আমার দিদি ১ বছরের ছোট-বড় ছিলাম। আমি যখন ক্লাস ৩তে পড়তাম, তখন দিদি ক্লাস ৪-এ, দুজনেরই মর্নিং স্কুল। রাস্তায় আমার স্কুল আগে পড়ত, তারপর দিদির স্কুল আসত। দিদির স্কুল যেতে গাড়ি রাস্তা পার হতে হত। বাবা আমাদের স্কুলে দিতে যেতেন। আবার ছোট বোনকে ঘুম পাড়িয়ে মা আনতে যেতেন।
একদিন আমার স্কুল একটু আগে ছুটি হয়ে গেছে, আমি বেরিয়ে অপেক্ষা করছি মায়ের জন্য, হঠাৎ দেখি বাবা দিদিকে আনতে যাচ্ছেন। আমাকে বললেন “তুই দাঁড়া, আমি দিদিকে নিয়ে আসছি”। সেদিন বাবা আসতে অনেক দেরি হওয়ায় আমি একা একাই বাড়ি চলে আসি। সেদিন থেকেই হয়ত আমি একা চলতে শিখেছি আর এখনো একা চলছি। আর আমার বাবা-মাও সেদিন বুঝতে পেরেছিলেন যে আমার মধ্যে একা চলার ক্ষমতা তৈরি হচ্ছে।

আমার নিজস্ব কিছু উদ্যোগ
বড় হয়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে পাড়ায় এমনিই কোন একদিন দুপুরবেলা আমি উদ্যোগ নিয়ে পাড়ার বাচ্চাদের drawing competition, কোনো-কোনোদিন সন্ধ্যেবেলা quiz contest করাতাম। আর quiz contest-এ আমি anchoring করতাম। সেখানে নিজে থেকে কিছু পুরস্কারের ব্যবস্থা করতাম। এই anchoring থেকেই হয়ত আমার মধ্যে কিভাবে একটা জিনিসকে সবার সামনে উপস্থাপন করতে হবে, কিভাবে সবার আলাদা-আলাদা প্রয়োজনের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে, এইসব তৈরি হচ্ছিল।

মেয়ে হিসেবে সামাজিক বৈষম্যের মুখোমুখি হওয়া
আমরা তিন বোন ছিলাম। আর আমার জেঠি আর পিসির ছেলে ছিল। তার জন্য সবসময় তারা আমার মাকে বলত, “আমাদের ছেলে আছে, আমাদের কিসের চিন্তা?” এটা শুনে আমার মা কাঁদত। আর পাড়ার অনেকেই আমার মাকে শুনিয়ে শুনিয়ে বলতেন “সোনার আংটি বাঁকাও ভাল”, ছেলেরা সোনা আর আমরা সব মেয়েরা নকল সোনা। আমি যখন মাধ্যমিক পাশ করি, তখন একজনকে বলতে শুনেছিলাম, “মেয়েরা যতই লেখাপড়া শিখুক, খুন্তি তো নাড়তেই হবে”।
সমাজ এইভাবে ছেলে-মেয়েদের মধ্যে তফাৎ করত, আর মায়ের ছেলে না হওয়ার জন্য মাকে কথা শোনাত। এইসব আমাকে ভাবাতে শুরু করে যে মেয়েরাও চাইলে অনেক কিছুই করতে পারে। সেই থেকে আমার মনে জেদ এসে গেছিল যে আমাকেও নিজের পায়ে দাঁড়াতে হবে। সেইজন্য আমি লেখাপড়ায় বেশি করে মন দিই। যখন আমি ক্লাসে স্ট্যান্ড করতাম, তখন বাবা–মার মুখে হাসি দেখে আমার খুব ভাল লাগত।

আমার অধ্যবসায়
আমি মাধ্যমিক পাশ করার পর আমাদের থাকার জায়গা নিয়ে খুব সমস্যার সৃষ্টি হয়। তখন পড়াশোনা প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়ার মত। ভাত খাওয়ার মত টাকা নেই। বাবা এক জায়গা থেকে কচু শাক কেটে আনতেন, তারপর মা সেটা রান্না করতেন। কিন্তু এসবের মধ্যেও আমি কিন্ত হার মানিনি। আমাকে যে টীচার পড়াতেন উনি মাঝে মাঝে আমাকে পড়াতে আসতেন, এর জন্য কোন পয়সা নিতেন না। ওনার সাহায্য নিয়ে test paper থেকে নোট বানিয়ে, আর স্কুলের নোট পড়ে আমি উচ্চমাধ্যমিক 2nd division-এ পাশ করি। যেদিন রেজাল্ট বের হয়, সেদিন আমাদের ঘরে একটাও পয়সা ছিল না রেজাল্ট জানতে যাওয়ার জন্য। পাশের বাড়ির একজনের কাছে টাকা ধার করে আমি আর বাবা রেজাল্ট আনতে গিয়েছিলাম।
এরপর আমি টিউশন পড়াতে শুরু করি। টিউশন পড়িয়ে ১৫০ টাকা পেতাম, সেটা দিয়ে আমি cable-এর টাকা দিতাম। এটা দিতে পেরে আমার খুব আনন্দ হত।

গ্রুপের সদস্য হওয়ার অভিজ্ঞতা ও প্রতিবাদী হওয়া
এরপর একদিন আমি দৃষ্টিকোণ দমদম গ্রুপের মেম্বার হলাম। গ্রুপটা যেন আমার কাছে একটা platform to express myself। গ্রুপের মূল্যবোধের সাথে আমার মূল্যবোধের খুব মিলে পেতাম। গ্রুপে এসে আমার সেই পুরনো বিশ্বাসই নতুন করে শিখলাম, যে সমাজে একজন ছেলের যা অধিকার আছে, একটা মেয়েরও সেই সমান অধিকার আছে। গ্রুপে এসে আমি নিজেকে আরও ভালোভাবে জানতে পারলাম। আমার মধ্যে অনেক কিছু পসিটিভ পরিবর্তনও হতে শুরু করল। আমি অধিকার নিয়ে আরও বেশি করে কথা বলতে শুরু করলাম। পরিবারে ও বাইরের জগতে অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে লাগলাম। কোথাও যদি আমাকে, বা অন্য কোন মহিলাকে রাস্তায় কেউ বিরক্ত করত, সেখানে আমি ফিরে দাঁড়িয়ে কথা বলতাম।
যেমন একদিন রাস্তায় একজন ১৪ কি ১৫ বছরের মেয়েকে কয়েকজন ছেলে মিলে খুব বিরক্ত করছিল। মেয়েটা প্রতিবাদ করছিল, তা সত্ত্বেও তারা থামছিল না। আমি সঙ্গে সঙ্গে সেইখানে প্রতিবাদ করে তাদের বিরত করি। এছাড়াও আমাদের পাড়ার একটা বাড়িতে একজন গৃহবধূর ওপর নিয়মিত অত্যাচার হত। একদিন ঐ মহিলাটি বাইরের দু-একজনের কাছে নিজের কথা শেয়ার করছিল, আর আমি সেখান দিয়ে যেতে যেতে ঐ কথাগুলো শুনতে পাই। আমি তাকে বলি, “এর পরদিন যখন আপনাকে মারবে, আপনি বাইরে বেরিয়ে জোরে চিৎকার করবেন।” এরপর একদিন ঐ মহিলাটির বাবা ও ভাই ওনার শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে আসেন, এবং সেদিন ঐ মহিলাটির স্বামী, শাশুড়ি ও শ্বশুর, তিন জন মিলে বউটিকে এবং তার বাবা ও ভাইকে মারধোর করতে শুরু করে। সেদিন বউটি আমার কথা শুনে বাইরে বেরিয়ে চিৎকার করে লোক জড়ো করে। তখন পাড়ার সবাই মিলে ঐ বাড়ির শাশুড়িকে বলে যে যদি এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে, তবে ওনাদের ঐ পাড়াতে আর থাকতে দেওয়া হবে না। এখন দেখা যায় যে ঐ বউটির ও তার শাশুড়ির সম্পর্ক একটা ভালো যায়গায় এসেছে। বউটিকে নিয়ে শাশুড়ি ডাক্তারখানায় যায়, একসাথে বাজারে যায়, কোন ঝগড়া নেই। এইভাবেই আমি কোনো অন্যায় দেখলে কথা বলার সাহস রাখি।

নিজের বিবাহিত জীবনে পরিবর্তনকারীর ভূমিকা
১ বছর হল আমার বিয়ে হয়েছে। এই বিবাহিত জীবন আমার কাছে প্রথম প্রথম খুব মজার মনে হত। বিয়ের আগে আমরা দেখা করতাম। যেদিনকে আমার অফিস থাকত, সেদিন সকালবেলা ১ নম্বর বাস স্ট্যান্ড-এ ও দাঁড়িয়ে থাকত, আমি ওখান থেকে বাস-এ উঠতাম। তারপর ফেরার সময় ধর্মতলায় দেখা করতাম। আমার জন্য অনেকক্ষণ ধরে অপেক্ষা করত।

কিন্তু বিয়ের পর ও যেন কিরকম পাল্টে গেল। বিয়ের দিন আমাদের বাড়িতে কিছু ঘটনা ঘটে আমার বরকে ঘিরে, যেটা ওর খুব খারাপ লাগে। তার জন্য ও আমাদের বাড়িতে আর যায় না। ওই ঘটনার জন্য যদিও আমি কোনভাবেই দায়ী ছিলাম না, তবুও আমাকে এটা নিয়ে এখনও কথা শুনতে হয়। প্রথম প্রথম যখন আমাকে কথা শোনাত তখন আমি কিছু বলতাম না। তখন নিজেকে ঐ জায়গায় রেখে ভাবতাম ওর কষ্ট হয়েছে, তাই বলছে।

কিন্তু বিয়ের ৩ মাসের মধ্যে আমার শাশুড়ির কাছে আমি ক্রমশ খারাপ হতে লাগলাম। আমি নাকি কোন কাজ পারি না, আমি বেশি জলে স্নান করি, ফোনে আমার বাড়ির লোকের সাথে কথা বললেও ওনার আপত্তি। এইসব বিষয় নিয়ে উনি আমার সাথে ঝগড়া শুরু করেন। একদিন আমি পুঁটিমাছ কিভাবে কাটে দেখিয়ে দিতে বলার জন্য আমাকে শাশুড়ি উঠোন ভর্তি সবার সামনে বলেন যে, “তোমার বিয়ে করাটা ঠিক হয়নি”। আমার বিয়ের কিছুদিন পর আমার বাবা-মা যখন আসেন আমার বাড়িতে আমাকে দিতে, তাদেরকে চা আর আম খেতে দিয়ে উনি বলেন, “আমরা ছেলে-মেয়ের বিয়ের ১ বছর না হলে তাদের বাড়িতে খাই না।” এতে আমার বাবা, মা আর আমি খুব দুঃখ পাই। আমি এইসব কথা বলতাম না আমার বরকে। শাশুড়ীকেও কিছু বলতাম না। শুধু কাঁদতাম। কিন্তু দিনের পর দিন আমাকে নানা কারণে উনি নানা কথা শোনাতেই থাকলেন, যেমন “তোমার বাবা বিনা পয়সায় তোমাকে পার করেছে, তোমার বাবা বেঁচে গেছে।”

দিনের পর দিন এইরকম চলতে থাকায় আমি খুব হতাশ হয়ে পড়েছিলাম। ঠিক করে খেতাম না, আমার ঘুম হত না। আমার কিচ্ছু ভালো লাগত না। মনে হত বাড়ি ছেড়ে অনেক দূরে চলে যাই। কিন্তু আমাকে আমার জীবনের পুরনো স্মৃতি মনে করিয়ে দিত যে আমি জীবনে কঠিন পরিস্থিতি থেকে পালিয়ে যেতে শিখিনি, সেটার মুখোমুখি হয়ে লড়াই করতে শিখেছি।
আর তাই একদিন আমার শাশুড়ি পুনরায় ঐ কথা বলায় আমি প্রতিবাদ করলাম। খুব শান্ত ভাবেই বললাম, “না হয় বাবা আমায় কিছুই দেয়নি, কিন্তু বাবা নিজের জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ দিয়েছে তোমাকে। সেটা হল আমি। তা নাহলে তোমার ছেলের বিয়ে হত না। আমার বাবা আমাকে দিয়েছে বলেই তোমার ছেলের বিয়ে হয়েছে। ঠিক তেমনই তুমিও তোমার জীবনের ৩টে মূল্যবান সম্পদ দিয়েছ অন্য তিনজন ছেলেকে।” সেই থেকে আমার শাশুড়ী আর ঐ কথাটা বলে না। আমি এখন নিজেকে কোন অংশেই কম মনে করিনা। আমি ভাবি আমি একাই অনেক কিছু করতে পারি।

আমার মেসেজ
নির্ভরশীল না হয়ে নিজে কিছু করার চেষ্টা কর ।

লক্ষ্য
আমি নিজে একজন supportive person তৈরি হব। এবং যাদের যাদের mental support দরকার, তাদেরকে সাহায্য করতে চাই।
 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here