25 Oct 2014

My Leadership Journey - Punam

Punam Sadhukhan
Youth Mentor, YRC Nabadisha (2011)
Read her earlier post

My name is Punam Sadhukhan, and I am a student of BA 3rd year. I stay in Gobindopur, in the Lake Gardens area of Kolkata. My mother works as a domestic help and my elder brother works as a driver. The financial situation of our family nowadays is a little better than before.
Childhood
About 20 years ago, when I was just about 5-6 years old, I used to always be missing my mother, who would be working all day even then, and I hardly saw her. Every evening I used to sit on the ledge of the tea-shop beside our house, waiting to see her when she returned from work. Some days I fell asleep there, waiting. Again, early in the morning, even before I woke up, Ma would have left. This happened nearly every day.

If any of the days I happened to wake up before Ma had left the house, I used to start crying, wanting to be taken along with her. Ma tried to distract me in many ways. But I kept on insisting! And so some days she took me along, some days she didn’t. When she didn’t, I continued to cry. And even when she did, it did not bring a fountain of joy to my life. It didn’t do me any good to tag along to the house where Ma worked. I was always a very restless child. So, though I could stay close to Ma on those days, her employers would tick her off badly because of my mischievous ways. And so Ma used to keep me tied up with a rope. I did not like this at all, it was very painful.

And the days when I stayed at home, I used to hear my brother shout. He would shout while feeding me, bathing me and putting me to sleep. It was from a very young age that he was forced to shoulder my responsibility as well as that of running the whole household. It is only now that I understand somewhat why my brother used to behave like that with me. He being 9 years my elder, when I was 5 or 6 years old, he would have been around 15. His friends used to come calling for him at playtime. Juggling his different chores, he would never be able to join them in time, and thus took out his whole anger by beating me up. Later he would behave affectionately again, though. I was beaten, of course I suffered. But now I think that along with me, perhaps he too did.

I started growing up amidst all this. After I passed my class IV exams, Ma enrolled me in High School. I still remember, on the first day of my new school, Ma was trying to take me there and I was refusing to go. It was very far from home. One had to navigate a busy road with big cars moving in order to get there. That was the day when my mother first taught me how to cross a road and acquainted me somewhat with the green, red and yellow traffic lights.

We reached the school building but I refused to go in. I simply put my foot down! I was crying and asking Ma to stay till classes got over. Ma agreed. I entered my classroom, and saw Ma waving to me. The moment one class got over, I looked out of the window. She wasn’t there! I started feeling very alone. It was very painful. I cried out aloud. My friends asked, “What happened?” I didn’t tell anyone anything. What if they made fun of me? After a while, my crying stopped on its own.

After school got over, I saw my mother standing at the gate. I rushed over and hugged her. I was feeling a bit betrayed by her. That day Ma bought me a lot of things to eat, and explained to me that it would not be possible for her to accompany me to school daily. She told me that I was grown-up now, and would have to come and go on my own. I told her it wouldn’t be possible for me to do it alone. Then she talked to some elder girls from my school, and arranged that I would walk to and from school in their company. And so I started going to school and returning with them. Whenever there was a big road that needed to be crossed, they would grip my hand and drag me across it anyhow.

In this way I learnt how to cross roads. Gradually I made many friends and became capable of going to school on my own. I used to pass every year but wasn’t so good in studies. I didn’t like the process of studying at all. I used to love playing, right from childhood. So my teachers used to say, “You could start studying with the same passion you put into play.”
Youth Group Nabadisha
When I was in class VIII, some things started happening in my life that I grew an affinity for. One of my cousin sisters, Umadi, started talking about and playing games on different issues with me and some of my friends from the neighbourhood, sitting in our local club. We could all speak our mind in this space and we learnt a lot too in these sessions. Gradually this small group of ours developed into a big one. It was named Nabadisha. Umadi started bringing training modules from her office and using these, she would educate us on different subjects like the equality of girls and boys, the equality of religions, about everyone having certain strengths as well as weaknesses, why child marriage shouldn’t happen etc. As I participated in these trainings, I started finding answers to many of the questions that had been arising in my mind for some time.

Gradually the time for my Madhyamik exams drew near. It was the first time that I would go to a strange new school to write my exams. My allotted centre was quite far away. The first day of the exams, the parents of all my friends accompanied them. Only my mother couldn’t. Initially I felt bad about this. Then I told myself that I was the most capable and self-reliant among my friends, that was why I had come alone to the exam hall to write my exams. My friends in school, to whom I talked about different issues like the equality of boys and girl or about discrimination, had by then already started calling me ‘Hitler’. They used to say, “You know a lot.” And every time they would ask me, “What new things did you learn?”

When I started working in my neighbourhood on issues like violence, or the equality of the genders, I started feeling that I myself had been facing discrimination at home. For instance, during meals, Ma would always serve the rice to my brother first. If my brother wasn’t there, she would serve rice on my plate, then again take out a portion from it and return it to the cooking-pot. Before this time, I had never realized that in these ways, I too was a victim of violence. Once I started talking about these things, I started regularly sharing at home whatever was happening in the group. My brother would still understand a bit of what I was trying to say, but my mother found it hard to accept. I started talking to her daily, trying to find out why it was so hard for her to accept these things. Gradually I came to understand that it was because she too had faced the same things all her life. Once she realized this, Ma too started understanding me better – what I wanted and what I was trying to express.

For instance, at one point of time I used to feel that Ma loved my brother much more than me. I understood that this was true but couldn’t find a reason why. One day I had shared this particular sadness with the group as well. Everyone had listened to me, many people said many things as well, but I did not get the answer I was looking for. Then one day I got to hear many things from Ma herself and got my answers that way. Since I have no father to speak of, there was a time in her life when Ma had been very lonely. She had been quite young too, at that point. Only my brother had kept her company then. I came along 8 years afterwards. I feel sad to think that when she was as young as me, my mother had already had her first baby, my brother. She has been deprived of so much!
Working as Active Youth Group
Another two-three years went by like this. I had just started going to college. One day I noticed that in our locality, so many underage girls and boys were getting married and we as a group were being unable to do anything to stop this! It became a big cause of worry for us. One day Umadi had a discussion on this issue in her office. After that, we started questioning anew why it was that adolescents were running away from home and getting married? An important realization that came up here was that, at home, they did not get any space to share their thoughts and feelings. Both parents often go out to work. The rest of the time their home-life is filled with unrest and a strict regime of scoldings and beatings. Amidst all this, if anyone tries to find a space of acceptance and intimacy through a love relationship, then a full stop is imposed on everything - her studies, her going out of home, everything. So, seeing no way out, they run away from home and get married in the hope that marriage would solve all these problems – including the burden of looking after younger siblings.

I found reflections of my own life in all these situations. With this realization, we started sitting with the adolescent boys and girls of our neighbourhood, talking to them and hearing them out. We tried to create a space for them where they could express themselves fully, without being afraid of being judged. We also started having the facility of counseling support here. Through all this, what I, or my group collectively wanted, came to pass. One day all of us met in the Lake area and, standing underneath a tree, we took this vow, “We will not get into underage marriages, and will actively try to prevent those who are on the verge of marrying prematurely. We will stand on our own feet and not be dependent on anybody.”
My Dream for my Group and Community
Our dream now is to continue this process with many more young boys and girls and with time, remove the curse of child-marriage totally from our neighbourhood. On a personal level, in the coming two years, I wish to learn to be able to converse in English, and type fluently. I also want to participate more actively in group activities, and make our group into a proper organization. We also need to find a better place for our meetings. Our main goal is to create a platform for adolescents, because they are the ones who will free our society from its superstitions and take it forward on the path of progress.



আমার নেতৃত্বের যাত্রা


আমার সম্বন্ধে
আমার নাম পুনাম সাধুখাঁ, আমি B.A. 3rd year-এর ছাত্রী। আমি কলকাতা শহরের লেক গার্ডেন্সের গোবিন্দপুর এলাকায় থাকি। আমার ছোট পরিবারে মা, দাদা ও আমি থাকি। মা পরিচারিকার কাজ করে ও দাদা ড্রাইভার। আমাদের পারিবারিক অবস্থা এখন আগের থেকে একটু ভালো যাচ্ছে।

আমার ছোটবেলা

আজ থেকে ২০ বছর আগেকার কথা। আমি যখন ৫-৬ বছরের ছিলাম, তখন সবসময় মায়ের জন্য খুব মন কেমন করত, কারণ মা তখনও সারাদিন কাজে থাকত, আর তাই মাকে একটুকু দেখতে পেতাম না। মাকে দেখব বলে সন্ধ্যার পর থেকে আমাদের বাড়ির পাশের চায়ের দোকানের রোয়াকে বসে থাকতাম। বসে থাকতে থাকতে এক-একদিন ঘুমিয়ে পড়তাম। আবার সকাল হতে না হতে আমার ঘুম ভাঙ্গার আগেই মা কাজে চলে যেত। প্রায়ই দিনই এমনি হত।
যদি কোন দিন মা কাজে বেরনোর আগে আমার ঘুম ভেঙ্গে যেত, তাহলে মার সাথে যাওয়ার জন্য কান্না জুড়ে দিতাম। মা অনেক ভোলানোর চেষ্টা করত। কিন্ত আমি তো যাবোই! মা আমাকে এক-এক দিন নিয়ে যেত আবার কখনো নিয়ে যেত না। যেদিন নিয়ে যেত না, সেদিন আমি খুব কাঁদতাম। আর যেদিন যেতামও সেদিনও খুশির ফোয়ারা থাকত না। ওখানে গিয়ে তেমন কিছু লাভ হত না। ছোট থেকেই আমি খুব চঞ্চল। কাজের বাড়িতে সারাদিন মাকে তো কাছে পেতাম, কিন্ত দুষ্টুমি করতাম বলে মাকে ওরা খুব উল্টোপাল্টা বলত। তাই মা আমাকে দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখত। সেটা আমার একদমই ভালো লাগত না, খুব কষ্ট হত।
আর আমি যেদিন যেদিন বাড়িতে থাকতাম, সেই দিনগুলো দাদার চিৎকার শুনতে হত। দাদা আমাকে খাওয়াতে গেলে মারত, স্নান করাতে গেলে আর ঘুম পাড়াতে গেলেও মারত। অনেক অল্প বয়েস থেকে দাদার ঘাড়ে আমার ও সংসারের পুরো দায়িত্ব পড়েছিল। এখন খানিকটা বুঝতে পারি কেন দাদা ওরকম করত আমার সাথে। দাদা আমার থেকে ৯ বছরের বড়, তাই যখন আমার ৫-৬ বছর বয়েস, তখন দাদার বয়স হয়ত ১৫ হবে। যখন ওর সব বন্ধুরা ওকে খেলার জন্য ডাকতে আসত, ও নানা কাজ করতে করতে ঠিক সময়মত যেতে পারত না আর সব রাগ আমাকে মেরে পুষিয়ে নিত। আবার পরে এসে আদরও করত। আমি তো মার খেতাম, আমার তো কষ্ট হতই। কিন্ত এখন ভাবি আমার সাথে সাথে ওরও হয়ত খুব কষ্ট হত।
এই সবের মধ্যে দিয়ে আমি বড় হতে থাকলাম। ক্লাস IV পাশ করার পর মা আমাকে হাইস্কুলে ভর্তি করল। এখনও মনে পড়ে, হাইস্কুলের প্রথম দিন মা আমাকে নিয়ে যাচ্ছে, আর আমি কিছুতেই যাবো না। বাড়ি থেকে স্কুলটা খুব দূর। ব্যস্ত রাস্তা, তাতে বড় বড় গাড়ি চলছে। মা সেদিন আমায় প্রথম রাস্তা পাড় করা শিখিয়েছিল আর সবুজ, লাল আর হলুদ আলোগুলোর সাথে একটু একটু পরিচয় করিয়েছিল।
এই করতে করতে স্কুলের সামনেটায় কোনোমতে পৌঁছলাম, কিন্তু আমি তো কিছুতেই স্কুলের ভিতরে ঢুকবো না! খুব কাঁদছিলাম আর মাকে বলছিলাম ছুটি পর্যন্ত থাকতে। মা বলল থাকবে। ক্লাস-এর ভেতরে ঢুকলাম, মা আমাকে হাত দেখিয়ে টাটা করল। যেই একটা ক্লাস শেষ হল আমি জানলা দিয়ে বাইরে তাকালাম, তাকিয়ে দেখি মা নেই। তখন নিজেকে খুব একা মনে হচ্ছিল, আর খুব কষ্ট হচ্ছিল। খুব জোরে কেঁদে উঠলাম। বন্ধুরা এসে জিজ্ঞাসা করছিল, “কি হয়েছে?” কাউকে কিছু বলিনি। যদি ওরা হাসাহাসি করে! কিছুক্ষণ পর নিজে থেকেই আমার কান্না থামল।
স্কুল ছুটি হওয়া পর দেখি মা দাঁড়িয়ে আছে স্কুলের গেটে। দৌড়ে গিয়ে মাকে গিয়ে জড়িয়ে ধরলাম। সেদিন মায়ের উপর একটু অভিমানও হয়েছিল। সেদিন মা আমাকে অনেক কিছু খাইয়েছিল, আর বোঝাতে শুরু করেছিল যে মায়ের পক্ষে রোজ-রোজ আসাটা সম্ভব না। মা আমাকে বলেছিল যে আমি নাকি বড় হয়ে গেছি, তাই আমাকে একা-একাই আসা-যাওয়া করতে হবে। শুনে আমি মাকে বললাম যে আমি একা-একা স্কুলে আসতে পারব না। মা তখন ওই স্কুলের কিছু দিদির সাথে কথা বলে ঠিক করে যে ওদের সাথেই আমি স্কুল যাতায়াত করব। সেই শুরু হল ওদের সাথে স্কুল যাওয়া। গাড়ির রাস্তা এলে ওরা হাত ধরে হিড়-হিড় করে টানতে-টানতে আমায় এপার থেকে ওপার করে দিত।
এইভাবে রাস্তা পার হওয়াটা শিখে গেলাম। আস্তে-আস্তে বন্ধু-বান্ধবও অনেক হল ও একা-একাই যাওয়া-আসা শুরু করলাম। প্রত্যেক বছরই পাশ করতাম কিন্ত পড়াশোনায় অতটা ভালো ছিলাম না। পড়াশোনা করতে আমার ভালোই লাগত না। খেলাধুলা করতে ছোটবেলা থেকেই ভালবাসতাম। তাই টিচাররা বলত, “যেমন খেলাধুলাটা কর, তেমনি তো পড়াশুনোটাও করতে পারো।”

নবদিশা

এই করতে করতে যখন আমি ক্লাস VIII-এ উঠি, তখন আমার জীবনে কিছু ভালো লাগার জায়গা তৈরি হতে শুরু করে। আমাদের পাড়ার ক্লাবঘরে আমার এক দিদি, উমাদি, আমাকে ও আমার কিছু পাড়ার বন্ধু-বান্ধবকে নিয়ে অনেক বিষয়ের উপর কথা বলতে এবং অনেক গেম খেলাতে শুরু করে। আমরা সবাই ওখানে মন খুলে অনেক কথা বলতে পারতাম বা অনেক কিছু শিখতে পারতাম। আস্তে আস্তে আমাদের ওই ছোট দলটা একটা বড় গ্রুপ হয়ে উঠল। গ্রুপটার নাম হল নবদিশা। উমাদি তার অফিস থেকে কিছু বিষয়ের উপর ট্রেনিং-এর সামগ্রী নিয়ে আসত এবং আমাদের ট্রেনিং দিত। নানা বিষয় যেমন, ছেলে-মেয়ের সমানতা, সব ধর্মের সমানতা, সবার মধ্যেই ভালো ও খারাপ গুণ থাকা নিয়ে, ছোট বয়সে বিয়ে যাতে না হয় সেই বিষয়ে, ইত্যাদি। এই ট্রেনিং গুলো নিতাম, আর সাথে-সাথে আমার মধ্যে যে প্রশ্নগুলো চলত, তার অনেকগুলোর উত্তরও খুঁজে পেতাম।
নতুন কিছু উপলব্ধি আর আমার নতুন আইডেন্টিটি তৈরি হওয়া
এইসবের মধ্যে আমার মাধ্যমিক পরীক্ষার দিন চলে এল। প্রথম বার অন্য একটা স্কুলে গিয়ে পরীক্ষা দেব। সেন্টার–ও অনেক দূরে পড়েছিল। পরীক্ষার প্রথম দিন সব বন্ধুর বাবা ও মায়েরা গেছিল। শুধু আমার মা যেতে পারেনি। আমার একটু খারাপ লেগেছিল কিন্ত ভেবে নিয়েছিলাম যে, আমি বেশি সক্ষম ও আত্মনির্ভর, তাই আমি একা একা এসেছি পরীক্ষা দিতে। এমনিতেও যখন আমি স্কুলের বন্ধুদের ছেলে-মেয়েদের সমানতা নিয়ে বা বৈষম্য নিয়ে বলতাম, ওরা আমাকে ‘হিটলার’ বলে ডাকত। ওরা আমাকে বলত, “তুই অনেক কিছু জানিস।” আর প্রত্যেক বার আমায় জিজ্ঞাসা করত, “আর কি কি শিখলি?”
যখন আমি আমার পাড়ায় হিংসা বা ছেলের-মেয়ের সমানতা নিয়ে কাজ করতে শুরু করলাম, তখন আমার মনে হত যে আমার বাড়িতেও তো আমার সাথে বৈষম্য হয়। যেমন, দাদা ও আমি খেতে বসলে মা সবসময় দাদাকে আগে ভাত বেড়ে দেবে। বা দাদা হয়ত নেই, আমি আছি, আমাকে থালায় ভাত দিয়ে আবার থালা থেকে একটু ভাত তুলে হাড়িতে রেখে দেবে। এগুলো যে আমার সাথে হিংসা হচ্ছে তা আগে ভাবিনি। এই নিয়ে যখন কথা বলতে শুরু করলাম, তখন যা গ্রুপে হত সেটাই বাড়িতে এসে শেয়ার করতে শুরু করলাম। দাদা তাও একটু–একটু বুঝতে শুরু করল, কিন্ত মা মানতে পারত না। মায়ের সাথে রোজ কথা বলতাম আর জানার চেষ্টা করতাম কেন এই কথাগুলো মায়ের পক্ষে মানা এত কঠিন হচ্ছে। আস্তে আস্তে জানতে পারলাম যে মায়ের সাথেও সারা জীবন এই একই জিনিস হয়ে এসেছে তাই। এটা উপলব্ধি হওয়ার পর মাও আমাকে বুঝতে শুরু করল -- আমি কি চাই আর কি প্রকাশ করতে চাইছি।
এরকমই একসময় আমার মনে হত যে মা দাদাকে আমার চেয়ে অনেক বেশি ভালোবাসে। আমি এটা বুঝতে পারতাম কিন্ত আমায় কম ভালোবাসার কারণ খুঁজে পেতাম না। গ্রুপেও একদিন নিজের এই কষ্টের জায়গাগুলো শেয়ার করেছিলাম। সবাই শুনেছিল, অনেকে অনেক কথাই বলেছিল, কিন্ত কি জানি কেন ঠিক-ঠাক কোন উত্তর সেদিন পাই নি।
তারপর একদিন মায়ের মুখ থেকেই অনেক কথা শুনলাম আর নিজের উত্তর খুঁজে পেলাম। যেহেতু আমার বাবা নেই, মা এক সময় খুব একা হয়ে গিয়েছিল। মায়ের বয়সও তখন অনেকটা কম ছিল। তখন শুধু দাদা ছিল মায়ের সাথে। তার ৮ বছর পর আমি আসি। এখন ভাবলে আমার একটু কষ্ট হয় যে আমার বয়সে মায়ের দাদা হয়ে গেছিল। মা নিজের জীবনে কত কিছু থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

দল হিসেবে সক্রিয়ভাবে কাজ করা

এইভাবেই আরও দু–তিন বছর কেটে গেল। আমি তখন সবে কলেজে উঠেছি। তখন আমার নজরে পড়ল যে আমাদের পাড়ায় ছোট-ছোট ছেলে-মেয়েদের বিয়ে হয়ে যাচ্ছে আর আমরা গ্রুপ হিসেবে এটা ঠিক করার জন্য কিছু করতেই পারছি না! এটা তখন আমাদের কাছে খুব দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে উঠেছিল। একদিন উমা্দি ওর অফিসে গিয়ে এটা নিয়ে কথা বলে। এর পর থেকে আমরা নতুন করে প্রশ্ন করতে শুরু করি যে অল্পবয়সীরা পালিয়ে গিয়ে বিয়ে কেন করছে? এর উত্তর যা যা আমরা খুঁজে পেয়েছিলাম, তার মধ্যে অন্যতম এটা ছিল যে তারা নিজেদের বাড়িতে নিজেদের মনের কথা শেয়ার করার কোনো জায়গাই পায় না। বাবা ও মা দুজনেই হয়ত কাজে যায়। বাকি সময়ে বাড়িতে অশান্তি আর মার-ধোর লেগেই থাকে। এসবের মধ্যে কেউ যদি প্রেম করে নিজের একটা একান্ত জায়গা খোঁজার চেষ্টা করে, তাহলে তার সব বন্ধ করে দেওয়া হয় -- পড়াশোনা করা, বাইরে বেরনো, সব। তাই আর উপায় না দেখে তারা পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করে এই আশায় যে বিয়ে করলে তাদের এই সমস্যাগুলোর সমাধান তারা পেয়ে যাবে। আর একটা কারণ বাড়িতে ওদের থেকে ছোট ছোট ভাই বোনদের সামলানো।
এইসব কারণের মধ্যে আমি নিজেকে খুঁজে পাচ্ছিলাম। এই উপলব্ধিতে পৌঁছনোর পর আমরা আমাদের পাড়ার বয়ঃসন্ধিক্ষণের ছেলে-মেয়েদের নিয়ে বসে কিছু কথা বলা এবং তাদের কথা শোনা শুরু করলাম। ওদের জন্য একটা এমন জায়গা তৈরি করার চেষ্টা করলাম যেখানে ওরা মন খুলে কথা বলতে পারে, ওদের কেউ বিচার করবে সেই ভয় না পেয়ে। এই জায়গাটায় আমরা কাউন্সেলিং সাপোর্ট-এরও ব্যবস্থা রাখলাম। এইসবের মধ্যে দিয়ে যেটা আমি বা আমার গ্রুপ চাইছিল সেটাই একদিন হল। আমরা সবাই একদিন লেক চত্তরে মিট করলাম, এবং একটা গাছের নীচে দাড়িয়ে সবাই শপথ নিল যে, “বাল্যবিবাহ করবো না এবং যারা করছে তাদের অল্পবয়সে বিয়ে করার থেকে সক্রিয়ভাবে সরিয়ে আনার চেষ্টা করবো। আমরা নিজের পায়ে দাঁড়াবো, কারোর উপর নির্ভরশীল থাকবো না।”

আমার দলকে নিয়ে আর আমার কমিউনিটিকে নিয়ে আমার স্বপ্ন

আমাদের এখন স্বপ্ন আরও অনেক বয়ঃসন্ধির ছেলে-মেয়েদের সাথে এই পদ্ধতিটি চালিয়ে যাওয়া, আর সময়ের সাথে-সাথে আমাদের এলাকাকে অল্পবয়সে বিয়ে করে নেওয়ার অভিশাপ থেকে মুক্ত করা। ব্যক্তিগত স্তরে আগামী দুবছরের জন্য আমার লক্ষ্য হল ভালোভাবে ইংরেজি বলতে শেখা ও স্বচ্ছন্দভাবে টাইপ করতে শেখা। এছাড়াও আমি চাই আমার গ্রুপে আরও সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করতে, আর গ্রুপটাকে একটা সংস্থার রূপ দিতে। এছাড়াও আমাদের আরো ভালো একটা জায়গা ঠিক করতে হবে একসাথে বসার জন্য। বয়ঃসন্ধিকালে যারা আছে তাদের জন্য একটা জায়গা তৈরি করাটাই আমাদের মুল লক্ষ্য, কারণ ভবিষ্যতে ওরাই আমাদের সমাজকে কুসংস্কারমুক্ত করবে ও উন্নতির পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here