26 Oct 2014

My Leadership Journey - Pranay

Pronoy is a member of YRC "GSRI"
Youth Facilitator (2014)
Read his earlier post

I’m Pronoy. I live in a remote village area of Namkhana where the companions of most people, by day, is agriculture, and by night, light from kerosene lamps. My mother is an ICDS worker, my father makes furniture, my brother sometimes stays away from home for work, and sometimes grows vegetables in the field. My sister-in-law has qualified the P.T.F. for becoming a policewoman in the state government, and is currently preparing for her written exams.

I am the younger son in this family, and I am a second-year student under Kolkata University.
My childhood
When I was 5 years old, my father and his brother used to stay in a joint family system. I don’t know why, but all our relationships were strained at that point of time, and unrest in the family was a part of daily life. Baba used to hit out at Ma physically for the smallest of things. I remember going away to my maternal uncles’ house several times with Ma, crying and holding on to her sari. I used to hurt for Ma, yet I didn’t know what to say to Baba also. My world then was my only my neighbourhoood. And because my existence was bound by such narrow walls, I used to think that my father hurting my mother was perhaps natural.

In this way, my education started right from my mother’s kitchen. In primary school, in the breaks between study, I used to take apart the household electronics items to see what was inside. When my father came to catch me at it, I would run away. If I was scolded too much, I would stop eating. Then my parents would again resume being openly affectionate and cajole me to eat. Too much mollycoddling had made a mischievous monkey out of me. But in classes III and IV, I still managed to come first in class on a regular basis.

When I was about to be admitted to high school, I had my first disagreement with my family members. I wanted to study while staying in a hostel, while they wanted me to attend a day school as usual. At that time, It was as if something was helping me to summon courage from within. It was saying – take a break from all this – these narrow walls, this superstitious community, this daily torture on your mother. To get the environment you yearn for, to understand what is wrong and what is right – you have to go to the outside world. So I stopped eating and threw household things into disarray, ultimately forcing my parents to put me in a hostel.
Hostel life
Hostel life expanded the perimeters of my existence to some extent. I was in class VI when my grandfather passed away and my father and uncle broke out of the joint system and started living apart. I stayed in my hostel, sneaking off with friends to catch a movie, stealing and gorging on watermelons, and one day we got caught too, when we duplicated the key of the shop next to our hostel and tried to steal food from there. People close to me made their best efforts to discipline me after this. The truth was that, my young mind then was always searching for things to make it happy, and someone to listen to it, someone elder and still like a friend to inspire dreams of becoming a worthy human being. The hunger of the mind started increasing, but where was I to nourish it? What was there in my life at that point, except the monotony of studies? There was no place where I could talk out my thoughts and feelings, no one to listen to me. When I saw the world outside, its ways of conversing, its mode of dressing, I used to think – where are we living? What do we want? Why do we want it? How to get it? My teachers in Kolkata understood nothing outside of the prescribed syllabus. So there was no personal liking or bonding as far as my studies were concerned.

When I was 15 years old and in class IX, I was admitted to a new school farther away. In this new school, I reinvented myself as a student. Though I was in a new environment, I ranked 5th among 300 students while getting promoted from class IX to class X, thereby convincing my parents as well everybody else that I could be as bright in studies as I was skilled at being mischievous.
New directions: my group and its effect on my life
It was from class XI that a whole new happy phase of my life started. Through my computer training classes, I located a place about 16km away from home where I found someone to listen to me, someone to make me dream of going forward and someone who helped me decide the reason for my existence and think on it. This space was none other than my group, the touchstone of my values and ideals. This Youth Group has brought a sea change in me, like going from level 10 to a level 20. because it was through my group that I started looking for good things in the very neighbourhood that I had hated so much, and to share these with other group members.

Before I became part of the group, no one had wanted to know me or understand me. They had only labeled me as a bad boy. Influenced by the discussions that happened in the group, I started seeking within myself. What I liked, what my dreams were. My friends from the group have inspired me a lot to progress in life. I came to realise that, just like I had many strengths, I had many weaknesses too, and I could actually transform my weaknesses into areas of strength. This kind of thought started me thinking on a different level altogether, a level of thinking that neither my school teachers nor my family could inspire in me. Till that time, I had felt that my family and my teachers pressured me to study for their own sakes, but after joining the group, I started feeling that I would have to learn and know things for myself.

A line from Exploring My World changed the course of my life. It says, “We are the sum total of what we think. You are that which you think. If you think you are weak, you will be weak; if you think you are strong, so will you be” [Quote attributed to Vivekananda]. After hearing this, I consciously started to think good thoughts. At one time I pondered on the true meanings of good and bad. Thinking yielded these answers, that what appeared good to me may not appear good to others, because the perceptions of good and bad depended on individual beliefs. In this way, my values started changing.

Sometimes I used to judge others, thinking “This person is like this.” One day I had gone to my old school to take permission for a group event. One of the teachers asked me, “Aren’t you the boy who had stolen biscuits from that shop?” Sir’s words hurt me momentarily, but later I thought that I was also the boy who had come first in the school drama, the boy who was the secretary of the Saraswati Puja committee. The boy who, the teachers used to say, had the ability to organize his thoughts and speak very well. The teacher could as well have remembered any of these other aspects. And it was then that I realized that a person should not be judged solely on the basis of his negative qualities, his other traits also needed to be taken into account.

Earlier, whether influenced by the home atmosphere or the atmosphere of our neighbourhood, I used to get angry at trifles and would start shouting. I used to think that girls were weak and boys were much stronger. I too, like some others, had a lot of wrong assumptions about the word ‘girl’. But in the meantime I got introduced to Thoughtshop Foundation, whose inspiration touched my life and drove away the nest of wrong beliefs that had taken root in me, through diverse workshops, trainings and camps and through providing me the opportunity to work with people in my own locality.
A new chapter of responsibility
After this, I was given the responsibility of facilitating groups. With this, a new chapter of my learning started. I became very eager to impart all that I had learnt from the group, things that had changed me so much, with the youth of Namkhana. I started going to schools and, giving them my own example, tell them about the group. To incorporate them in this effort of ours, I sometimes had to speak to the school teachers, sometimes to the parents of the students, and sometimes to the stakeholders. This was tough to start, but the end met with much more success. It increased the frontiers of my courage a lot. Those who felt that the school curriculum was too much of a load, and that nothing would be achieved if they stayed on in their area, have experienced an expansion of their thought-process after coming to the group. Girls, who were told they were a burden, can now ignore negative comments and travel far to learn.
The role of a changemaker within the family
Through this leadership journey, not only have I known myself, I have also got to know a lot about my family as well. From childhood I had seen Baba discipline Ma. This used to make both me and my elder brother unhappy. Eventually my father’s ideas about my mother working in the ICDS, and those about what qualities constitute a real man, underwent changes through discussions. Nowadays, though the problems between my parents remain, they are resolved through discussions, not through violence.

My elder brother has been married for about three years now. Sometimes he would beat my sister-in-law. One day this became a big deal, and a discussion was held to resolve it, with eminent people from the neighbourhood. At that discussion, after taking everybody’s permission, I told my brother, “All these years when Baba beat Ma, you and I didn’t like it. Today if you do the same, this will only go on. It will achieve nothing except spoil relationships and invite unhappiness.”

My sister-in-law had another complaint, that my father had the habit of shouting for the most trivial of things. At that moment, I told her as well, “We need to have patience with the ways of the elders. It is the duty of the young generation to adjust and live with different kinds of people.” People present at the meeting had praised me saying, “We have nothing more to add to the words of this young boy. We know of no better solution.”

The thing that makes me proudest in the course of my leadership journey is the fact that my brother has not tried to discipline his wife in the last two years, and her patience and my father’s temper both have improved a lot. Today my opinion is given a lot more value in my family.
My own identity
Despite many obstacles, I have been able to do the Self Exploration, Gender Equality, and Male Responsibility trainings with three groups. A lot of participants have been able to bring about positive changes in their lives and take initiative through these trainings. The main challenge in my area was on the subject of girls going out of home. Small workshops and different events with the parents of the young ones and the local people have reduced their stereotypical notions a lot. Nowadays a lot of girls are coming out of home and getting the chance to know themselves. The people of the neighbourhood have started to share issues and problems with me.

I have joined politics. I am given the chance to speak at many political gatherings. Through all this, I have been able to build up an identity for myself in my locality, an identity which I believe will help me to fulfill my larger goals.
My dream
I will set up a big organization that will work towards increasing the self-awareness of local youth, through which young people will become more self-reliant and which will aid local residents also. I want to build at least 100 young leaders. These people would have the same rights, the same freedom to pursue their path.
My message
An ideal life is that where we change our obstacles into the route to success. Everyone has the innate ability to lead. If one progresses steadily towards the goal with enthusiasm, then everyone will be capable of leading this society into a healthy, violence-free environment. We are the sum of our thoughts. In life, your family and environment may not be too your liking. Instead of brooding over it, we should try to decorate our environment with the treasures of the mind.


আমার নেতৃত্বের যাত্রা



আমার বিষয়ে
আমি প্রনয়।আমার বাড়ি সুন্দরবনের একটা বিচ্ছিন্য দ্বীপ নামখানার প্রতন্ত গ্রাম্য এলাকাতে যেখানে বেশিরভাগ মানুষের নিত্যসঙ্গী কৃষিকাজ ও রাতে কেরোসিনের বাতি। বাড়িতে মা সরকারি কর্মী,বাবা ফার্নিচার মিস্ত্রী, দাদা কখনো পরবাসী আবার কখনো সব্জি চাষি। আর বৌদি মহিলা পুলিশের চাকরির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে আর আমি কলেজে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। এমন এক সুখীপরিবারের ছোট ছেলে আমি।আজ আমি তোমাদের আমার চোখ দিয়ে আমার ফেলে আসা দিন গুলি দেখাবো।

আমার ছোটবেলা
তখন আমার পাঁচ বছর প্রায়। বাবা-কাকা তখন একসাথে থাকতো। খুব বড় পরিবার ছিল তখন আমাদের। কিন্তু বেশ মনে পড়ে সবার মধ্যে সম্পর্কগুলো কেমন একটা ছিল। আমার মাকে ক্লাশ এইট পর্যন্ত পড়িয়ে দাদু বিয়ে দিয়েছিল আমার বাবার মতো ভালো ছেলে পেয়ে। আমার যখন পাঁচ মায়ের তখন প্রায় ২০ বছর হবে। বাড়িতে প্রায় কাজের ভুলত্রুটি নিয়ে ঠাকুমা মায়ের মধ্যে সমস্যা লেগেই থাকতো আর বাবা মাকে নিসংস ভাবে শাসন করে মায়ের মতামতকে থামিয়ে দিতো। আর মা আমায় জড়িয়ে ধরে কাঁধতো আর না খেয়ে নিজেকে কষ্ট দিতো। বেশ কয়েক বার মায়ের আঁচল ধরে মামা বাড়ি ও গেছি। আর পরে দাদু মাকে বলতো মেয়ে হয়ে জন্মেচ্ছিস শ্বশুর বাড়ির কষ্টকে ভালোবাসা মনে করে মানিয়েনে।এ ভাবে বুঝিয়ে বাড়ি দিয়ে জেতো। আমার বাবাকে সয্য হতোনা আবার ভাবতাম এটা হয়তো বাবার অধিকার আর মাকে হয়তো বাবার স্বার্থে মামা বাড়ির লোকেরা এখানে দিয়ে গেছে। এই অসয্য,হয়তো,কিন্তু নানা রকমের অনুভূতি জিজ্ঞাস্য নিয়ে মায়ের রান্না ঘরেই আমার পুঁথিগত শিক্ষার শুরু হয় এবং তা চলতে চলতে প্রাইমারী স্কুলে গেলাম। সেই সময়ে মা ছাড়া দুনিয়ার সবাই ছিলো অচেনা তাই আমার সমস্তো আবদার অভিযোগ মাকে জানাতাম। পড়াশুনার অবসরে ইলেক্ট্রনিক্স জিনিষ ভেঙ্গে দেখতাম ভেতরে কি আছে আর বাবা মারতে এলে দৌড়ে পালাতাম। আর বেশি বকাবুকি হলে বড়রা আদর করবে তাই খেতাম না,পরে বাবা মা আদর করে খাওতো।।প্রাইমারি স্কুলে প্রতিটা ক্লাশে ফাস্ট হতাম। পালা এলো হাইস্কুলে ভর্তি হওয়ার কিন্তু তখনি সর্বপ্রথম বাড়ির লোকের সঙ্গে আমার মতবিরোধ ঘটলো। আমি চাইছিলাম হোস্টেলে থাকবো আর সবাই চাইছিলো আমি বাড়ি থেকে স্কুল করি। আমি আশা না ছেড়ে অনশন করলাম,খতি করলাম বাড়ির জিনিশপত্র,বাধ্য করিয়েছিলাম আমাকে হোস্টেলে রাখতে।

হোস্টেল জীবন
থাকলাম হোস্টেলে পরের ধাপে আমার পৃথিবীর পরিধিটা একটু বড় হলো। অনেক বন্ধু পেলাম,পেলাম স্যারেদের ভালোবাসা। জীবনে প্রথমবার মাকে ছাড়া ঘুমাতে গেলাম হোস্টেলের বিছানয় কিন্তু মাকে খুব মিস করেছিলাম আর ভাবছিলাম আমি মার কাছে নেই বাবা যদি রাগের মাথায় মাকে মেরে ফেলে।আমি কার কাছে থাকবো? কে শুনবে আমার আবদার আর কে বাসবে ভালো মার মতো আমায়? ঐ মুহূর্তে আমার আবেগ গুলো খুব কাঁদিয়েছিল। কিছু দিন বাদে ঠাকুরদা মারা গেলো,দু-টুকরো হলো আমাদের পরিবার। বাবা বড় লোক হওয়ার লোভে ব্যাবসা করতে গিয়ে লোকসান করলো উনার জীবনের সকল অর্জিত অর্থ। তার পর আমার মা-ই বাবাকে সান্তনা দিয়ে সংসারের সকল দায়িত্ব নিজে নিয়ে সব্জি চাষ করে নিজের হাতে বাজারে বিক্রি করে আমাদের দু-ভাইএর পড়াশুনা ও আমাদের পরিবার কে দাঁড় করালো। কিন্তু সমাজের লজ্জা,পুরুশ্তান্ত্রিকতার হিংসাক্তক ধারনা বউকে মেরে পুরুসত্ত বজায় রাখা আমার বাবার মনে বসে ছিল-সে কারনে হয়তো তখনও মাকে নিলজ্জের মতো মারতো। আমার মনে সর্বদা দুশ্চিন্তা বাসা বেঁধে ছিলো। পড়া শুনা ভালো লাগতো না আর ভাবতাম কি হবে শিক্ষিত হয়ে সেই তো বাগানে কাজ না হয় বাহিরে কাজে জেতে হবে,জীবনের কোনো লক্ষই ছিলোনা তাই বন্ধুদের সঙ্গে লুকিয়ে সিনেমা দেখা,চুরি করে বাগানের আম খাওয়া এগুলি করতাম মনের ভেতরে থাকা কষ্টকে আড়াল করার জন্য। আর খুঁজতাম মায়ের প্রতি এই অন্যায় এর প্রতিবাদের ভাষা,আমাকে যে যানতে চাইবে যেখানে থাকবে অনেক ভালো লাগা আর বন্ধুর মতো বড় কাউকে যে আমাকে উৎসাহ দেবে। টিভিতে বাহিরের সমাজ,কথা বার্তার ধরন আর পোশাক আশাক দেখে মনে হতো আমরা থাকি কোথায়? যার এগুলির কোনো কিছুর সঙ্গে মিল নেই। ভালো হব ভেবে পড়তে বস্তাম কিন্তু মনে আসতো বাড়ির অসয্য কষ্টের পরিবেশ আর পড়তে পারতাম না। কলকাতার স্যারেরা উনাদের পাঠ্যসূচী ছাড়া কিছুই বুঝতনা ফলে উনাদের সঙ্গে মনের দুরত্ব ছিল খুব তাই পড়াশুনা থেকে ভাললাগার সমস্ত স্পর্শ বিলিন হয়ে গেছিলো। এদিকে মায়ের অধিক পরিশ্রম আর বাবার অধিক শাসনের কারনে মায়ের শরির মাঝে মাঝে খুব খারাপ হতো।

মাকে নিয়ে আমার একটা কষ্টের স্মৃতি যা আজও আমার মনকে নাড়া দেয়। আমি তখন ক্লাশ এইটে পড়ি। একদিন হোস্টেল থেকে বাড়ি গেছি আর সন্ধ্যার সময় মা রান্না করছে আমার সাথে কথা বলতে বলতে। আর আমার মনে হচ্ছিলো মার শরির টা ভালো না। একটু পরে দেখলাম মার চোখ থেকে জল পড়ছে মা সেটা আমার থেকে লুকানোর চেষ্টা করছিলো কিন্তু পারেনি। তাড়াতারি করে সব্জিতে জল দিয়ে বিছানায় সুয়ে পড়েছিলো। জানিনা আমার মনটা কেন কোনো কিছু হারানোর যন্ত্রনায় ব্যাকুল হচ্ছিলো আমি মার পিছু নিয়ে মায়ের কাছে এসে বসলে মা বলল তুমি খেয়ে নেবে জাও। আমি মায়ের কথা মতো খাবার বেড়ে খেতে বসলে তখন কোনো এক অদৃশ্য শক্তি আমাকে খাবার মুখে আনতে দেয়নি বরং দিয়েছিলো চোখ ভর্তি জল। আমি হাত ধুয়ে চোখের জল আড়াল করে মায়ের কাছে ছুটে গেলাম কিন্তু মা তখন প্রায় শান্ত। আমায় জিজ্ঞেস করলো খেয়েছো? আমি হ্যাঁ বল্লাম। আমাকে বলল আমি তোমাকে আর দেখতে পারছিনা, দুষ্টুমি করবেনা ওরা তোমাকে মারবে। খেয়ে নেবে মন দিয়ে পড়বে। আমি আর শুনতে পারছিলামনা মায়ের ঐ নিষ্ঠুর স্বার্থপর কথা গুলো, দৌড়ে গেলাম থাকুররের সিঙ্ঘাশনের কাছে তার পর সেই পাথরের মূর্তিকে জড়িয়ে ধরে মাকে ভিক্ষা চাইছিলাম নাহলে আমাকে ও মায়ের সাথে জেতে দিতে বলেছিলাম সেই মুহূর্তে দাদা আমার এই আবেগের খেলা দেখে যানতে চাইছিলো কি হয়েছে কিন্তু আমি শুধু কাধছিলাম তারপর পুরো বাপ্যারটা সবাই যানতে পেরে শীঘ্রই ডাক্তার ডেকেছিল। আর আমাকে আমার দাদা জড়িয়ে ধরে রেখেছিলো। তার পর মা দুদিন পরে জ্ঞ্যান ফিরে পেয়েছিলো আর আমি পেয়েছিলাম আমার মাকে। আর আজ পর্যন্ত সেই ঘটনা মনে আসলে আমার চোখে জল আসে।

আর হোস্টেলে গেলাম না বাড়ি থেকে জুনিয়ার হাইস্কুলের শিক্ষা শেষ করলাম। ক্লাশ নাইনে আর একটা নতুন স্কুলে ভর্তি করায় আমাকে। সেখানে নতুন বই,নতুন বন্দুবান্ধব আর নতুন স্যারেদের দেখে উৎসাহিত হয়ে পড়াশুনায় মন বসল। আমারা তখন ৪জন বান্ধবি আর ২জন বন্ধু একসঙ্গে দল বেঁধে স্কুলে যেতাম। সকলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্বের সম্পর্ক তৈরি হয়েছিলো। শুধু আমার বাড়িতে ছাড়া সবাই সবার বাড়িতে জেতাম।কিছুদিন বাদে আমার বাড়িতে বাধা দেয় অদের মধ্যে একজন বান্ধবির সঙ্গে মেলা-মেশা করতে।আমি কারন যানতে চাই,আমাকে বলে পাড়ার লোকে নাকি বাজে ধারনা করছে আমাকে ও ঐ বান্ধবিকে নিয়ে।আর তখনি আমার কৌতূহল হয় আমারতো ৪জন মেয়ে বন্ধু তাহলে ৩জন কে বাদ দিয়ে ঐ একজনকে নিয়ে এত মাথাব্যাথা কেনো পাড়ার লোকের। তাছারা ওর আর আমার Only বন্ধুত্বের সম্পর্ক Others কিছু তো নয়।রহস্যটা পরে যানতে পারলাম ওর মা নাকি খারাপ চরিত্রের আর অনেক জনের সঙ্গে শারিরিক সম্পর্ক করে টাকা কামায়। আমার তখন শুধু এটা মনে হয়েছিলো তাতে আমার বান্ধবির দোষটা বা কি। কিন্তু ওর মা ভালো না খারাপ আমি ঐ মুহূর্তে বিচার করতে পারিনি তেমনি মেলা-মেশা বন্ধ করতে ও কিন্তু ছাড়িনি। প্রায় দু-বছর ঐ বন্ধুত্বকে নিয়ে আমার বাড়ির সঙ্গে অনেক ঝামেলা হয়েছে।একবার সপ্তাহখানেক মায়ের সঙ্গে অভিমান করে কথা বলা বন্ধ করেও দিয়েছিলাম কিন্তু আমরা জানতাম আমরা ভালো বন্ধু কিন্তু পাড়ার লোকেরা আড়ালে নানা মন্তব্য করতো।হয়তো একদিকে সেটা ছিলো বয়সন্ধি ছেলে-মেয়েদের মেলামেশা নিয়ে অসস্থি অন্যদিকে ছিল সুযোগের অভাবে বা পরিস্থিতিতে পড়ে যারা নিজের শরিরকে ব্যাবহার করে Income এর একটা পথ বেছেনিয়েছিলো তাদের অপর একটা সামাজিক তকমা বসিয়ে দেওয়া আর তার ফলে তাদের সন্তানদেরকে মানুষের কাছে একটা গ্রহণযোগ্যহীন একটা পাপের ফল হিসাবে ধরে নেওয়া হয়। পরে সেটা আমার এক প্রিয় স্কুল Teacher কে পুরো ব্যাপারটা বলি এবং উনি আমার বাড়িতে এসে আমার মায়ের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলে এবং সব সমস্যার সমাধান হয়। তারপর ঐ বান্ধবির সঙ্গে শুধু আমার নয় আমার পরিবারের সকলের সম্পর্ক তৈরি হয়েছিলো তা আজো অটুট। ওর একসপ্তাহ আগে বিয়ে হলো আর আমার মা সুন্দর উপহার দিয়েছিলো ওকে দেওয়ার জন্য ওর বিয়েতে আমি খুব মজা করলাম।

নতুন দিশা পাওয়া: আমার গ্রুপ ও তার প্রভাব
একাদশ শ্রেণী থেকে শুরু হলো আমার জীবনের ভালোলাগার নতুন অধ্যায়। কম্পিউটার Training নেওয়ার জন্য আমার বাড়ি থেকে প্রায় ১৬ কিলোমিটার দূরে গিয়ে এমন একটা জায়গা পেলাম যে আমাকে শুনত,যে আমাকে বলতো,আমাকে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখাতো আর আমার বেঁচে থাকার উদ্দেশ্য স্থির করতে আমাকে ভাবাতো। সেই জায়গাটা আর কেউ নয় আমার গ্রুপ। যে পাড়াকে আমি সব চেয়ে বেশি ঘৃণা করতাম সেখানের ভালো জিনিস খুঁজতে শুরু করলাম গ্রুপের বন্ধুদের কাছে তুলে ধরতে। গ্রুপের আলোচনায় প্রভাবিত হয়ে আমি আমাকে খুজেছি।কি আমার ভাললাগা,কি আমার স্বপ্ন। জিবনে এগিয়ে যেতে অনেক উৎসাহ দিয়েছে গ্রুপের বন্ধুরা। এখান থেকেই শুরু হোলো আমার হারিয়ে যাওয়া বাল্য আর কৈশোরের সমস্ত চাহিদা আর বাবার-মায়ের প্রতি অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর প্রতিবাদের ভাষা।যানতে পারলাম আমার মায়ের সঙ্গে বাবা এতদিন যা করেছে সেটা অন্যায়। মায়ের ও স্বাধীনভাবে বাচার,মতামত রাখার,বিলাসিতা করার,সবকিছুতে মার অধিকার আছে শুধু মার নয় সমাজের প্রতিতি মেয়ের।

দায়িত্বের নতুন অধ্যায়
তারপর গ্রুপ থেকে এগুলো জেনে প্রথম নিজের বাড়িতে কাজ শুরু করলাম বাবার সঙ্গে হাসিমুখে আলোচনা করলাম। বললাম, “বাবা, মারও তো আমাদের মতো বাঁচার অধিকার আছে। কথায় কথায় মাকে শাসন করাটা খুবই অন্যায়। তা ছাড়া যদি কোনো সমস্যা হয়ে থাকে, সেটা তো আলোচনার মাধ্যমেও সমাধান হয়”। আমি আমার পাড়ায় অনেক ভাবে নারীপুরুষের সমানতা নিয়ে কথা বলি অনুষ্ঠান, কর্মশালা,চিত্র-পদর্শনির মাধমে আর সব জায়গায় মা-বাবা দুজনকে নিয়ে জেতাম। ফলে মা নিজের অধিকার ফিরে পেতো আর বাবা হয়তো নিজের ব্যাবহারের জন্য অনুতপ্ত হত। মা নতুন ভাবে বাঁচতে শুরু করে এবং মুক্ত বিদ্যালয় থেকে উচ্চমাধমিক পাশ করে।

পরিবারে পরিবর্তনকারীর ভূমিকা
এই পরিস্থিতি পরিবর্তন হতে হতে বছর পেরিয়ে গেছে। প্রথমে আমি মা কে একটা সরকারী চাকরি করার জন্য সাপোর্ট করি। মার লেখা পড়া ছিল, কিন্তু বরাবরই শুধু ঘরের কাজেই ব্যস্ত। সে চাকরি সহজে হয়নি, অনেক বাধা বিপত্তি ছিল; বাবাও মাঝে মাঝে বলত "ছেড়ে দাও, কি দরকার?" কিন্তু হাল ছাড়িনি। অবশেষে চাকরি করে মা সংসারে অর্থনৈতিক সাহায্য যোগাতে শুরু করল। সেই থেকেই পরিবারে অনেক কিছু যেন বদলে গেছে এখন আমাদের বাড়িতে কাজ ও লিঙ্গের কোনও ভেদাভেদ নেই। বর্তমানে বাবা মাকে হেনস্তা তো করেইনা, বরং যে সমস্ত পুরুষরা এই রকম করে, তাদেরকে বাবা বোঝায়। এভাবে, কথা বলে ও আলোচনার মাধ্যমে আমার পরিবারকে নিয়ে আমি আমার পাড়ার ৪৫টা পরিবারে পারিবারিক হিংসার বিনাশ করেছি। কারণ আমি মনে করি পারিবারিক হিংসা কোন ব্যক্তিগত বিষয় নয়। এভাবে নিজের এভাবে নিজের কাজ এবং ভালো লাগার মাধ্যমে আমি আত্মসম্মান ও আত্মবিশ্বাস পেয়েছি আর জীবনের লক্ষ ঠিক করেছি। আজকের আমার এলাকায় যুবনেতা ও একটা ভালো ছেলে হিসাবে আমার একটা পরিচিতি তৈরি করেছি এবং এলাকার রাজনীতির বড় বড় নেতারা আমাকে গুরুত্ব দিয়ে আমার মতামত চায়।

আমার স্বপ্ন
আমার স্বপ্ন-আমি একটা বড় সস্থা প্রতিষ্ঠা করবো যার নাম যার কাজ আমার এলাকার সবার মনে গেঁথে থাকবে ও এলাকার ইয়াং ছেলে-মেয়েদের একজায়গায় করে সমাজে একটা বড় পরিবর্তন আনবো এবং মানুষের অধিকারের পাশে দাঁড়াবো। আগামি বছরে কমপক্ষে ৫০ জন Youth Leader তৈরি করবো এবং তাদের মাধম্যে ছেলে-মেয়েদের মধ্যে সমান অধিকার,পথ চলার সমান স্বাছন্দ ও সম্পর্ক তৈরি করবো।

আমার মেসেজ
আমি মনে করি- সুখদুঃখ বাধা-বিপত্তি থাকা জীবনের বৈশিষ্ট।আর সেটা কারোর কম,কারোর বেশি থাকে।ঠিক তেমনি তাদের মধ্যে সেটা Overcome করার শক্তিও থাকে,শুধু সেই শক্তিকে আমাদের চেষ্টা দিয়ে জ্বালালে সেটা সারা জীবনভোর জ্বলতেই থাকবে।প্রত্যেকের মধ্যে নেতৃত্ব দেওয়ার গুন থাকে। যদি তারা উপযুক্ত উৎসাহ ও লক্ষ্য স্থির করতে পারে তাহলে সকলেই নেতৃত্ব দিয়ে নিজেকে ও চারপাশকে সার্বিক ভাবে,সুস্থ ভাবে চালিয়ে নিয়ে জাতে পারবে। আমারা হলাম আমাদের ভাবানা চিন্তার ফল। নিজের জিবনে;-পরিবার,এলাকার পরিবেশ মনের মতো নাও হতে পারে,সেটা নিয়ে পিছিয়ে না থেকে সেটাকে আমাদের মনের মূল্যবোধ দিয়ে সাজিয়ে তোলাই আমাদের স্বপ্ন হওয়া উচিৎ।
 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here