31 Aug 2014

My Leadership Journey - Shampa

Shampa is a member of YRC Ujaan
Read her earlier post

From childhood, I have lived in the city of Kolkata with my parents, a younger brother and a sister. We belong to a poor family. We siblings don’t have much of a difference in age. When we were small, our parents used to leave my siblings in my care when they went out to work. I used to look after them, take them to school.

In childhood, I couldn’t make much time for play, and this made me very angry. When I was in class 1 I used to go to a small neighbourhood club. I really like going there, because I had many friends there. I played games with them and had fun. There used to be a teacher and an older man there, whom we called ‘uncle’. After the teacher left, the uncle would play with us. He would buy us food. After a while he would let everyone leave, except for me. He used to say that he would give me lot of playthings, and this made me very happy. Then he used to shut all the doors and windows of the club, take me in his lap, give me goodies and toys, and fondle me. At that time I understood nothing; nor did I tell anyone anything. This happened almost daily with me for over two years.

When I was in class III, one day, after giving me the usual baits, he made me sit there on his lap for a long time. That day the fondling felt different. I started feeling very uncomfortable and irritated. But I said nothing. After that day, I stopped going to the club. And whenever I saw that man somewhere out on the streets, I used to feel very angry and very bad about myself. My friends came to call me so many times, but I didn’t go. My mother never asked why I didn’t want to go back to the club, and I also never said anything. I was scared – if people got to know, what if they said something bad?

Gradually I forgot all this. I used to go to school with my friends, studied and had fun. I completed primary school and got enrolled in class V. Everything was new in high school – a new school, new roads, new teachers and many new friends. I liked it all, but was a bit apprehensive as well. With time, four of us became very close friends. We used to walk to school together; we used to buy different foods from the road and eat it together. In this way we spent a lot of fun time in this school.

But these times were also fraught with pressures from all sides. I had to do the whole of the housework after returning from school, cook, go for my tuitions, help out friends who were into relationships. The last chore I more or less enjoyed. I used to feel that greater the number of boys who approached me for a relationship, the more prestige I would enjoy. But this never used to happen. I used to feel very bad. One of my very best friends was in a relationship, and I wasn’t. I used to dress up, but still no one approached me. This made me very angry, but I couldn’t tell any of this even to my friends. Striking a compromise with my feelings, I used to help my friends who were enjoying being in relationships. One day my best friend got a proposal from a boy and they decided on a date. My friend said, “You too come along with me.” I didn’t like the idea much, but still I tagged along, out of curiosity to see what they would do and how one behaves while in a relationship.

And so I used to go out with them frequently. They used to chat and joke about, and I used to be with them. I also wanted to be in a relationship very much. One day a friend of mine introduced me to a boy, saying that he was interested in me. I was enjoying this a lot but didn’t say anything at that moment. Later I acceded. After that, we also used to go out on dates. We used to chat together, sit side-by-side. One day we even held hands. I liked it a lot and within myself, I felt very happy. I used to confide everything to my friends.

Things went on like this, then one day I came home with very bad results from school. My mother somehow came to know about all this, and told me “You have grown up now. Don’t roam around like this anymore.” She stopped my going out and even meeting my female friend. The friend’s mother also stopped her from meeting me. I didn’t like it without her because she was my closest friend, which whom I could spend any amount of time and share anything. After a lot of tears and quarrels, we were allowed to go school together and share things close to our hearts.

Gradually time passed, and it was time for me to appear for my Madhyamik [Board] exams. I felt that instead of being in relationships, I needed to study and qualify at this exam at all costs. But I couldn’t live without chatting with my friends. After Madhyamik, my friend’s father started looking for a match for her. I tried to convince him against this many times, saying that she had just started Madhyamik, and that she wasn’t 18 years old yet. I requested him to let her study for at least two more years. But he scolded and silenced me by saying, “Girls in our family do not go for higher education.” After that I also stopped saying anything, because I was somewhat scared of him. And so she was married off when I was appearing for my class XI final examinations. As she herself was not too keen on studies, she hadn’t tried to pressurize her parents to let her study.

At that time I used to dream of qualifying my HS examinations and go to college. I continued with all my responsibilities – housework, friends, school. A new responsibility was added on at this time – that of teaching younger students after I returned from school.

It was at such a time that an elder girl from my neighbourhood introduced me to an NGO called Thoughtshop Foundation. In this connection, a group was created in my locality with the neighbourhood boys and girls. The group was named Ujaan.

After coming to this group, gradually I got the opportunity of learning about many new things. This is the first window in my life through which I am getting to know myself for the person I really am, and build myself in the process. It was here that I first learnt that I too had some strengths, through which I could build an identity for myself. It was here that I first learnt of violence against women and equality of relationships. Earlier I thought that men were the heads of families, their decisions were the final word. But after coming to TF, ideas like this started clashing with my own ideas.

I started protesting. Within my own family, I started feeling that I, my mother and my sister were being deprived of many things. Like having to do the whole of the housework after returning from school. Like not getting the chance to play or chat with friends. I used to feel very angry and shout out a question to my mother, “Why can’t we go out to play? Why doesn’t our brother do his personal chores at least?” A big question I had then was this – does the responsibility of all work lie only with women? What are men supposed to be doing then? I had to hear from my family and neighbours that, men are supposed to earn and women are supposed to do household chores. This was the way of things. And this made me think that in that case, did women have no space to take any decision concerning their own lives?

Whenever any good food was brought home from outside, Ma used to serve my brother first, and then whatever was left would be divided among us two sisters. I used to think – why does my brother always get the first helping? Why did we always get less? I used to ask my parents these questions. My father said that it was because my brother would look after them in old age. “Will you look after us then, or feed us?” he asked. Hearing this made me feel very bad. I thought, why not? If you believe in us and trust us, we also can.

We didn’t have the permission to stay out at night, or return late, or spend time with friends. These issues led to a lot of quarrels. Never could I do anything according to my own wishes, never did I have the right to take my own decisions. These issues cause many arguments, even quarrels with my father. He never seems able to accept that I too have the right to take the important decisions of my life.

In class XII, a boy came into my life. I spoke with him on the phone for a whole year. As soon as I qualified my HS and got into college, my father announced that he would get me married the following year. By that time, we were deep into a relationship. I tried a number of times to make my parents understand this, but they never allowed me the space to say anything on the matter. They would change the subject, saying that they were looking for a good groom for me, an only child of his parents with a lot of money and property. I could not say anything more.

A time came when, whenever my parents raised the topic of my marriage, I would get angry. I would shout say that I didn’t want to get married now. I became a bad daughter in my parents’ eyes. I would think, would I never be able to fulfill any of my dreams? And was a good boy necessarily defined by the parameter that he had never been in a romantic relationship before, that he had lots of property, and that he was the only son of his parents? Were these the only important things? But then, couldn’t somebody who understood me and did not interfere with my freedom be good for me? But I could never tell my parents these things. I am certain that they knew, from my behaviour and attitude, that there was someone in my life, and that was perhaps the reason why I wasn’t keen on marriage.

In this way, my relationship with my parents started getting worse. They would lash out at me at every step, and ignore me. At one point of time, my father even stopped talking to me. Even my younger siblings started looking down on me and talking less with me. I used to feel very bad. I suffered. Many nights I lay awake on an empty stomach. I could confide in nobody. I could only cover my head and cry. With time, my bitterness with my family only increased. My mother sometimes spoke to me, but it was rare. She used to worry about me, but never shared this with me. I always heard from others that she was concerned about me. And that made it worse.

One day, unable to continue with this situation any more, I myself came forward and told them my decision. “Don’t look for matches for me. I want to complete my education and take up a job. I don’t want to marry now.” This sparked off an even more negative reaction from my father. He said, “If you start taking your decisions yourself, then you no longer need to stay here at home. Get married. I cannot take your burden any more.”

He said this two years back, and these words affect me even now. Even now I sometimes get confused about what I really need to do. But nowadays I share a lot of things with my mother. She tries to understand me, and this makes me feel that someday I might be able to make my father understand as well. At one point of time, my father loved me the most among his three children. Maybe he still loves me, only he is not able to express it. Now my relationship with my parents is somewhat better. I am progressing every day with my independent thoughts and feelings. Now I want to create a space where even small children can share what they like or don’t like; a space where they can tell me anything that happens to them, and not have to keep silent and endure bad things because of their own fears.

My message for young people is this – that if you believe in your decisions, then stay firm, communicate them with others and speak out against what is wrong or unjust.



আমার নেতৃত্বের যাত্রা


আমি শম্পা। আমি ছোট থেকেই কলকাতা শহরে মা-বাবা, এক ভাই ও এক বোনের সাথে থাকি। আমি একটা দরিদ্র পরিবারের মেয়ে। আমাদের তিন ভাই-বোনের বয়সের খুব একটা তফাৎ নেই। আমি যখন খুব ছোট, ৬-৭ বছর বয়স, তখন থেকেই মা–বাবা ভাই-বোনকে আমার কাছে রেখে কাজে যেত। আমি তাদেরকে দেখাশোনা করতাম, তাদের নিয়ে স্কুলেও যেতাম। খেলাধুলা করার খুব একটা সময় করতে পারতাম না তাই খুব রাগ হত। যখন আমি ক্লাস 1-এ পড়ি তখন আমি স্কুল ছাড়াও পাড়ার একটা ছোট ক্লাবে যেতাম। সেখানে যেতে খুব ভালো লাগত, কারণ সেখানে অনেক বন্ধু-বান্ধব থাকত। তাদের সাথে মজা করতাম এবং বিভিন্ন ধরণের খেলা করতাম। সেই ক্লাবে আমাদের একজন টিচার আর একটা কাকু ছিল । টিচারটা ক্লাস করে চলে যাওয়ার পর কাকুটা আমাদের খেলাতো, খাবার কিনে দিত, এবং কিছুক্ষণ পর সবাইকে ছেড়ে দিত, কিন্ত আমাকে ছাড়ত না। আমায় অনেক খেলনা দেবে বলত, আমারও খুব আনন্দ হত। তারপর ক্লাবের সমস্ত দরজা-জানলা বন্ধ করে দিয়ে আমাকে কোলে বসিয়ে হাতে খাবার ও খেলনা দিত এবং সারা গায়ে হাত দিয়ে আদর করত। আমি তখন কিছু বুঝতে পারতাম না এবং কাউকে কিছু বলতাম না। এই ব্যাপারটা আমার সাথে রোজ হত প্রায় ২ বছর ধরে।
যখন আমি ক্লাস ৩-তে, তখন একদিন অনেক সময় ধরে ক্লাবে বসিয়ে রেখেছে এবং অনেক খেলনা ও খাবার দিয়েছে। আমি সেগুলো নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। আর সব দিনের মত সেদিনও ঐ কাকু ক্লাবের সমস্ত দরজা-জানলা বন্ধ করে আমাকে কোলে বসিয়ে আদর করতে শুরু করল। কিন্ত সেদিনের আদরটা যেন অন্যরকম ছিল। নিজের খুব অস্বস্তি লাগছিল এবং বিরক্ত লাগছিল। কিন্তু আমি কাকুটাকে কিছু বলিনি। সেদিন আমি সেখান থেকে ফিরে আসার পর আর ঐ ক্লাবে যাওয়া বন্ধ করে দিলাম। রাস্তা-ঘাটে যেখানেই কাকুটাকে দেখতাম আমার খুব রাগ হত এবং নিজেকে কেমন একটা খারাপ লাগত। বন্ধুরা অনেকবার করে ডাকতে আসত কিন্ত আমি যেতাম না। মাও কখনো জিজ্ঞাসা করত না আমি কেন যেতে চাইছি না, আর আমিও বলতাম না। ভয় লাগত যে বললে যদি কেউ কিছু বলে!
তারপর আস্তে-আস্তে ভুলে গেলাম এই সব ঘটনা। বন্ধুদের সাথে স্কুলে যেতাম, লেখাপড়া আর মজা করতাম। কিছু দিনের মধ্যে প্রাইমারি শেষ হয়ে ক্লাস ৫-এ উঠলাম। নতুন স্কুল, নতুন রাস্তা, নতুন টিচার এবং নতুন অনেক বন্ধু-বান্ধব। খুব ভালো লাগত, তবে একটু ভয়ও করত। স্কুলের চারটে মেয়ে মিলে আমরা খুব ভালো বন্ধু হয়ে গেলাম। আমরা এই চারজন একসাথে স্কুলে যেতাম এবং রাস্তার থেকে কিনে অনেক খাবার খেতাম। এইভাবেই অনেকটা সময় এই স্কুলে কাটিয়েছি এবং মজা করেছি।
তবে এই সময়গুলোতেও যেন অনেক দিক থেকে অনেক রকম দায়িত্ব চেপে ধরেছিল। যেমন স্কুল থেকে এসে ঘরের সমস্ত কাজ, রান্না করা, পড়তে যাওয়া, প্রেমে পড়া বন্ধুদের সঙ্গ দেওয়া। প্রেমে বন্ধুদের সঙ্গ দিতে বেশ ভালোই লাগত। মনে হত যে যত বেশি ছেলেরা অফার করবে তত উপরের লিস্টে আমার নাম থাকবে। কিন্ত সেটা কখনই হত না। আমার খুব খারাপ লাগত। কারন আমারই একটা খুব ভালো বন্ধু প্রেম করত আর আমি পারতাম না। কত সেজেও থাকতাম তাও কেউ অফার করত না, খুব রাগ হত, কিন্ত বন্ধুদেরও কিছু বলতে পারতাম না। নিজের মনকে মানিয়ে বন্ধুদের সাহায্য করতাম। একদিন আমার সবথেকে কাছের বান্ধবীকে একটা ছেলে অফার করে আর তারা দেখা করতে যাওয়ার দিন ঠিক করে। আমার বন্ধু আমায় বলে, “তুইও আমার সাথে যাবি।” যেতে আমার খুব একটা ভালো লাগত না তবে যেতাম, ওরা কি করে এবং কিভাবে প্রেম করে দেখার জন্য।
এইভাবে প্রায়ই ওদের সাথে যেতাম। ওরা দুজন গল্প করত, ইয়ার্কি মারত এবং আমিও ওদের সাথে থাকতাম। আমারও খুব ইচ্ছে করত প্রেম করতে। একদিন আমার একটা বন্ধু একটা ছেলের সাথে আলাপ করায় এবং বলে যে ঐ ছেলেটা আমায় পছন্দ করে। আমার তো খুব মজা হচ্ছিল কিন্ত সেই মুহূর্তে কিছু বলিনি। পরে হ্যাঁ বলেছিলাম। তারপর থেকে আমরাও প্রেম করতে যেতাম – দুজনে গল্প করতাম, পাশে বসতাম, এমনকি হাতও ধরেছিলাম একদিন। সেইদিন খুব ভালো লেগেছিল এবং মনে মনে খুব আনন্দ হয়েছিল। আমি সব কথা আমার বন্ধুদের কাছে বলতাম।
এইভাবে চলতে চলতে স্কুলে রেজাল্ট খুব খারাপ হল, এবং মা-ও কিভাবে এই সব বিষয়ে জানতে পেরে আমায় বলল, “তুই এখন বড় হয়ে গেছিস। এইভাবে ঘুরবি না।” বলে বাইরে যাওয়া এবং আমার ঐ বান্ধবীর সাথে মেলা-মেশাও বন্ধ করে দিল। আমার ঐ বন্ধুর মাও ওর সাথে মিশতে দিত না। কিন্ত ওকে ছাড়া আমার ভালোও লাগত না কারণ ও আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু ছিল, যার সাথে অনেক সময় কাটাতে পারতাম এবং সবকিছু শেয়ার করতে পারতাম। অনেক কান্না-কাটি ও ঝগড়ার পর অনেকদিন পর আমরা আবার একসাথে স্কুলে যাওয়ার সুযোগ পাই এবং মনের অনেক কথা শেয়ার করি।
আস্তে-আস্তে সময় কেটে গেল, মাধ্যমিক দেওয়ার সময় এসে গেল। তখন মনে হল যে এখন প্রেম না করে মাধ্যমিক পাশ করতেই হবে। তবে গল্প না করে পারতাম না। মাধ্যমিক দেওয়ার পর আমার বন্ধুর বাবা তাকে বিয়ে দেওয়ার জন্য ছেলে খুঁজতে শুরু করল। আমি অনেক বার বুঝিয়েছিলাম যে ও তো সবে মাধ্যমিক দিয়েছে, এখনো ওর ১৮ বছর বয়সও হয়নি। ওর বাবাকে অনুরোধ করেছিলাম ওকে অন্তত আরও ২ বছর পড়াশোনা করার সুযোগ দিতে। কিন্তু উনি আমাকে ধমক মেরে চুপ করিয়ে দিয়েছিলেন এই বলে যে, “আমাদের পরিবারে মেয়েরা বেশি দূর পর্যন্ত পড়ে না।” তারপর আমিও আর কিছু বলা বন্ধ করে দিলাম কারণ ওর বাবাকে আমি একটু ভয়ও পেতাম। আমি যখন ক্লাস XI-এর ফাইনাল দিচ্ছি, তখন ওর বিয়ে হয়ে গেল। ওরও তেমন ইচ্ছে ছিল না পড়াশোনা করার তাই ও ওর মা-বাবাকে পড়াশনার করানোর জন্য বেশি জোরও করেনি।
ঐ সময় খুব ইচ্ছে হত যে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করব, কলেজ যাব। এই সব ভেবে ঘরের কাজ, বন্ধু–বান্ধব, স্কুল -- সব কিছু চালিয়ে যেতাম। আর তার সাথে আবার নতুন একটা দায়িত্ব, স্কুল থেকে এসে স্টুডেন্ট পড়ানো।
এইরকম সময়েই আমাদের পাড়ার একটা দিদির মাধ্যমে একটা থটশপ ফাউন্ডেশন নামক একটা NGO-র সাথে পরিচয় হয় এবং এই সূত্রে আমাদের পাড়াতে পাড়ার ছেলে-মেয়েদের নিয়ে একটা youth group তৈরি হয়। গ্রুপের নাম উজান। এই গ্রুপে এসে আস্তে-আস্তে আমি অনেক বিষয় সম্পর্কে জানার সুযোগ পেয়েছি। এটা আমার জীবনের প্রথম দরজা যার মাধ্যমে আমি নিজেকে জানতে ও চিনতে এবং নিজেকে তৈরি করার অনেক সুযোগ পাচ্ছি। এখানে এসে আমি প্রথম জানতে পারি যে আমার কিছু ক্ষমতা এবং কিছু পরিচয় আছে যার মাধ্যমে আমি নিজের একটা আইডেন্টিটি তৈরি করতে পারি। এখানে এসেই আমি নারী হিংসা ও সম্পর্কের সমানতা নিয়ে প্রথম শুনেছি। আগে জানতাম যে পুরুষরাই পরিবারের মাথা -- তারা যা সিধান্ত নেবে সেটাই শেষ কথা। কিন্তু থটশপে আসার পর থেকে এই ধরনের চিন্তা-ভাবনার সাথে আমার চিন্তা-ভাবনার conflict হতে শুরু হয়। আমি প্রতিবাদ করতে শুরু করি। তখন আমার মনে হত যে আমার পরিবারের মধ্যেই আমি, আমার মা ও বোন অনেকরকম ভাবে অনেক জিনিস থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। যেমন স্কুল থেকে এসে ঘরের সমস্ত কাজ করা। খেলার সুযোগ বা বন্ধুদের সাথে বসে গল্প করার সুযোগ না পাওয়া। খুব রাগ হত এবং চিৎকার করে মাকে বলতাম, “কেন আমরা খেলতে যেতে পারবো না? কেনই বা ভাই তার নিজের কাজটুকু অন্তত করে না?” আমার কাছে তখন একটা বড় প্রশ্ন ছিল যে তাহলে কি সব কাজ মেয়েদের? তাহলে ছেলেরা কি করবে? তখন পরিবার, পাড়া-প্রতিবেশী সবার কাছ থেকে শুনতে হত যে ছেলেরা ইনকাম করবে এবং মেয়েরা ঘরের কাজ করবে। এটাই রীতি। তখন ভাবতাম, তাহলে তো মেয়েদের নিজেদের জীবন সম্বন্ধে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ারও অবকাশ নেই!
এছাড়াও বাড়িতে ভাল-মন্দ কিছু খাবার আসলে মা আগে ভাইকে, তারপর যা বাকি থাকত, সেটা দুই বোনকে ভাগ করে দিত। আমার মনে হত, কেন সবসময় ভাই আগে পাবে? আমরা কেন কম পাব? আমি বাবা-মা দুজনকেই জিজ্ঞাসা করতাম। বাবা বলত যে ভাই তো বৃদ্ধ বয়সে বাবাকে দেখবে। “তোরা কি আমাকে দেখবি না আমাদের খেতে দিবি?” এইসব শুনে খারাপ লাগত। মনে হত, আমরা কেন পারবো না? যদি আমাদের ওপর বিশ্বাস আর ভরসা কর তো আমরাও পারবো।
এছাড়াও রাতে বাইরে থাকা, বন্ধুদের সাথে সময় কাটানো বা অনেক রাত করে বাড়িতে ফেরার অনুমতি ছিল না। এই নিয়ে অনেক ঝগড়া হত। কখনই আমি আমার মত করে কিছু করতে পারতাম না, আমার নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নেওয়ার কোনো অধিকার ছিল না। এখনও পর্যন্ত এই সমস্ত বিষয় নিয়ে বাবার সাথে অনেক কথা কাটাকাটি, রীতিমত ঝগড়াও হয়। বাবা যেন কিছুতেই মানতে পারেনা যে আমার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার আমার আছে।
আমি যখন ক্লাস XII-এ পড়ি, তখন আমার জীবনে একটা ছেলে আসে। তার সাথে আমি টানা এক বছর ধরে ফোনে কথা বলতাম। আমি H.S. পাশ করে কলেজে ভর্ত্তি হওয়ার সাথে-সাথে বাবা বলে যে পরের বছর আমাকে বিয়ে দিয়ে দেবে। ততদিনে আমরা একটা প্রেমের সম্পর্কের মধ্যে জড়িয়ে পড়েছি। বাবা-মাকে অনেক বার বলার চেষ্টা করেছিলাম, কিন্ত কোনো না কোনো ভাবে ওরা আমায় এ কথা বলার জায়গা দিত না। কথা ঘুরিয়ে অন্য কথা বলত, বা বলত যে ওরা আমার জন্য অন্য ভালো ছেলে দেখেছে, সে বাবা-মায়ের একটিমাত্র ছেলে, তাদের অনেক কিছু বিষয়-সম্পত্তি আছে। তখন আমি আর কিছু বলতে পারতাম না। তাই একটা সময় এল যখন বাবা-মা আমার বিয়ের সম্পর্কে কিছু বলতে গেলেই আমি রেগে যেতাম। চিৎকার করে বলতাম যে আমি এখন বিয়ে করতে চাই না। এইভাবেই মা-বাবার কাছে একটা ভালো মেয়ে থেকে খারাপ মেয়ে হয়ে যেতে শুরু করলাম। মনে হত যে আমি কি আমার ইচ্ছা অনুযায়ী আমার কোনো স্বপ্ন পরিপূর্ণ করতে পারি না? আর খুব ভালো ছেলে মানেই কি এমন একজন যে আগে কখনও কোন সম্পর্কে ছিল না, যার অনেক কিছু আছে, যে বাবা-মায়ের একটামাত্র ছেলে? এগুলোই কি important? আর তাহলে সে আমাকে বোঝে, আমার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করে না, সেইরকম কেউ একজন কি আমার জন্য ভালো হতে পারে না? কিন্ত এইসব কথা কখনো মা-বাবাকে বলতে পারতাম না, যদিও ওরা আমার আচার-আচরণ থেকে বুঝতে পারত যে আমার জীবনে কেউ একজন আছে, সেই জন্যই হয়ত আমি বিয়ে করতে চাইছিনা।
এইভাবে মা-বাবার সাথে সম্পর্কটা খুব খারাপ হতে শুরু করল। উঠতে-বসতে আমাকে অনেক কথা শোনাত, আমাকে এড়িয়ে যেত। একটা সময় বাবা আমার সাথে কথা বলাও বন্ধ করে দিয়েছিল, এমনকি ভাই-বোনও খুব ছোট নজরে আমায় দেখতে শুরু করল আর আমার সাথে খুব কম কথা বলত। তখন খুব খারাপ লাগত এবং কষ্ট হত। অনেক রাত না খেয়ে জেগে থাকতাম। কাউকে মন খুলে কিছু বলতে পারতাম না। শুধু মুখ ঢাকা দিয়ে কাঁদতাম। এইভাবে যতদিন যেতে থাকল, পরিবারের সঙ্গে আমার তিক্ততা ততই বাড়তে থাকল। মাঝে-মাঝে মা আমার সাথে কথা বলত, তবে খুব কম। মা আমাকে নিয়ে চিন্তা করত, কিন্ত কখনো সেটা আমার সাথে শেয়ার করত না। মা যে আমাকে নিয়ে ভাবছে সেটা সবসময় বাইরের মানুষের কাছে শুনতে পেতাম। সেটা আরো বেশি খারাপ লাগত।
একদিন এই পরিস্থিতি আর সহ্য না করতে পেরে আমিই ওদের আমার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলাম। বললাম, “আমার জন্য তোমরা কোনো ছেলে দেখো না। আমি পড়াশোনা শেষ করে কাজ করতে চাই। এখন বিয়ে করতে চাইনা।” এই কথাতে যেন আরও বাজে ভাবে প্রতিক্রিয়া এল বাবার কাছ থেকে। বাবা বলল যে, “তুই যখন তোর নিজের বিষয়ে নিজেই সিদ্ধান্ত নিবি, তাহলে তোকে আর ঘরে থাকতে হবে না। বিয়ে করে নে। তোর বোঝা আমি আর নিতে পারবো না।” বাবার এই আদেশটা দুবছর আগে থেকে এখনও পর্যন্ত আমার ওপর চাপ তৈরি করে। তাই কখনও কখনও আমি খুব confused হয়ে যাই, যে আমার কি করা উচিৎ।
কিন্ত এখন মায়ের সাথে মোটামুটি অনেক কিছু শেয়ার করি। মাও বোঝার চেষ্টা করে এবং আমার মনে হয় যে হয়ত কোনোদিন এইভাবে আমি আমার বাবাকেও বোঝাতে পারবো। একটা সময়ে আমার বাবা আমাদের তিন ভাই-বোনের মধ্যে থেকে আমাকে সবচেয়ে বেশী ভালবাসত। বাবা হয়ত এখনও আমায় ভালবাসে, প্রকাশ করতে পারে না। এখন মা-বাবার সাথে সম্পর্ক মোটামুটি ভালই। এখন আমি আমার স্বাধীন চিন্তা-ভাবনা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। এখন এমন একটা space তৈরি করতে চাই যেখানে ছোট বাচ্চারাও তাদের ভাল-মন্দ শেয়ার করতে পারে; তাদের সাথে যদি কিছু ঘটে, সেগুলোও যাতে তাদের ভয়ে মুখ বুঝে সহ্য করতে না হয়, যাতে তারা আমাকে বলতে পারে।
Youth-দের জন্য আমার message এটাই, যে যদি তুমি তোমার সিদ্ধান্তে বিশ্বাসী হও, তাহলে সেই সিদ্ধান্তে দৃঢ় থাক, অন্যদেরকে তোমার সিদ্ধান্ত জানাও এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ কর।

 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here