12 Jul 2014

My Leadership Journey - Uma

Uma is founder member of YRC Nabadisha
Youth Trainer
Read her earlier post

My name is Uma. I live with my parents and two sisters in a bustling area in the city of Kolkata. The people here grapple with a lot of problems, yet try to live together with a smile on their faces.

Though my younger sister and I came into this world instead of the desired male children, still despite many financial problems, our parents never neglected us. We grew up amidst of a lot of love and freedom. Perhaps it was because we were three daughters and there was no boy in the family that we failed to realize in our childhoods how society discriminates between boys and girls. And perhaps this was the reason why I was a little different from childhood, meaning, a little different from a typical girl.

As a child, I hardly had any friends who were girls. I would climb trees like the boys, ride bicycles, collect money from our neighbours during the pujas and enjoy the boisterous celebrations with the others. Thinking back, I feel that I also gravitated more towards boys rather than girls in search of the free life that boys enjoy, unhindered by obstacles.

When we were small, our father had to be frequently away from home because of work, and so mother had to face the challenge of bringing up three daughters more or less singlehandedly. So we learnt to be self-reliant and take care of ourselves. There were many instances where we felt deprived. I remember taking a three rupee Parle-G biscuit packet as school tiffin; out of 12 biscuits, 6 would be for me, and 6 for my elder sister.

But no amount of unfulfilled desires or deprivation would keep me down for long. For some time I suffered, true, but then I would accept. I would think, I do get clothes and tiffin for school, don’t I? So why be sad?

When I was in class VII, my father lost his job. That day he held me close and kept on crying. I did not understand the reason for his grief that day, but very soon I came to realize that mother was trying very hard to run the family on very strained finances. That was a day of very big learning in my life. That day I wished I would grow up fast and become able to contribute to my family. That day I promised to myself that I wouldn’t bother our mother too much for food. I further thought that the days of roaming around and having fun should stop. I needed to study hard and with attention.

As I grew older still, and was admitted to class VIII, complaints started coming in from our neighbours regarding my behaviour. For instance "See, a grown girl climbing trees with the boys. Shame!" our neighbours used to say, "stop riding the cycle. And the way you still play and hang around with the boys is not right. You are growing up" I would listen to them, but could never understand what I was doing wrong.

My father used to tell everybody, I have two girls and one boy. Saying that he had a son in me made my father proud. But my mother was always worrying about how to afford the marriages of three daughters. Father used to say right from then that whatever problems, we would have to study and stand on our own feet. That his daughters should never find themselves in a position where they would have to depend on others. Because of this difference between my father’s priorities and those of my mother’s, we three sisters got a little more time to dream about our lives, that is, we were not pressurized to get married too early.

When I reached class IX, I got acquainted with Ankur, a local organization which started supporting my education. I worked very hard in classes IX and X. I used to leave home for school at 10 in the morning, then after school got over at 4, I would go to Ankur. It was 8 in the night by the time I returned home. After studying hard for two years, I passed Madhyamik with very good grades. After this, my life opened up to many more opportunities. I started teaching the young boys and girls in my area, and with the money I earned, I bore the expenses for my own education. I didn’t have to wait any more for new clothes to arrive at puja time.

Gradually in this way, my life started changing. I was also making plans to get established in life, but was finding myself incapable of dispelling my mother’s apprehensions. She continued to articulate the same fears as always – how to get my three daughters married? And who will look after us in our old age? I didn’t know the answers to those questions.

In the meantime, I became connected with Thoughtshop Foundation where for the first time ever, I got the opportunity to introspect. For the first time ever I asked myself, who am I? My mind gave me multiple answers to this question, one of which was – whether I was a boy or girl, I was a human being above all, and like all other human beings, I too had the right to live my life freely. As I visited TF for three subsequent days, I got answers to many of my childhood questions. Why having three daughters made my mother sad, why others had objections to my climbing trees or cycling, and many more. I started feeling lighter. I started learning to question things myself. I got a completely new direction in life. I started believing in myself. So what if I was born as a girl in a male-dominated society? I would create the life I dreamt of. I will experience life as deeply as I was capable. I wouldn’t retreat just because I was a girl.

The exciting changes happening within me inspired me to talk about these things with my friends, my siblings and with the other boys and girls of my neighbourhood. To tell them that boys and girls were born equal, and society ought to stop discriminating and give them equal opportunities. The more I talked and delved into these things, the clearer it became to me how girls in society were facing violence on different levels in their daily lives. For instance, though the girl in a neighbouring house was extremely keen to complete her education, her family members forced her into marriage at a very young age. After enduring different kinds of torture at her in-laws’ place, including being scorched by cigarette-butts, she had to eventually return to her parents’ home again, this time with a child. Another girl in the area also got married very early. When due to unknown reasons, her husband committed suicide after two years, people started blaming her and stopped talking to her.

Such incidents made me indignant, and we, the boys and girls of my neighbourhood, started to sit together. We would share what we felt, and support each other. In this way our group was formed. We named it Nabadisha, meaning a new direction. Gradually more and more young people joined the group. In the process of talking on such issues with the people of the locality through the medium of the group, I was gradually building up a new identity for myself. People started recognizing me by name as a person with integrity. Now my father’s way of introducing me as his "son" started irritating me. I told him, “I don’t want to be your son. I am your daughter, and girls are in no way less capable than boys.”

Working through Nabadisha made me more self-confident. I started getting invited to all the programmes conducted by the neighbourhood club. And seeing this new self-confident me, my mother too started feeling less apprehensive. The day I heard my mother saying that daughters were preferable to sons, I felt that perhaps she may be a little proud of me, as well. Perhaps she too started realizing that if they wished to, daughters too could take as much care of their parents as sons did. That day I felt very happy. I felt that I had been able to prove myself.

Subsequently, along with completing my MA in Social Work and establishing myself as a Social Worker, I decided to get married. One day my fiancé asked me why I worked. “If I gave you the same amount of money that you earn, would you give up working?” I answered that I worked for my identity. To put all the knowledge that I had earned in my life to good use. Then I asked him, “Would you consider giving up your job if I brought you what you earn?” He was unable to answer my question. I got married with this commitment to myself that I would try to understand others, but I would also express my needs and desires clearly. That was for me the best and only way to keep my relationships strong and healthy.

I have many dreams for my group and for improving my neighbourhood. Through the agency of my group, I want to put an end to problems like early marriages of girls, dropping out of school etc. that plague our area. I want to build my group in such a way that it can help young people find their aim in life. And it is again through my group that I want to build an identity and commands everyone’s love and respect.

I believe that whatever dream I dream for my life has to come true. It must. So dream, and take positive steps to attain it.


আমার নেতৃত্বের যাত্রা

আমার নাম উমা। আমার বাড়ি আমার মা, বাবা, দিদি, বোন আর আমাকে নিয়ে, কলকাতা শহরের একটা জমজমাট অঞ্চলে। সেখানে প্রচুর মানুষ অনেক অনেক সমস্যা নিয়ে একসাথে আনন্দে দিন কাটানোর চেষ্টা করে।
যদিও ছেলের প্রত্যাশায় আমার ও আমার ছোট বোনের জন্ম, তবুও জন্মানোর পর কিন্ত পরিবারে অনেক আর্থিক দুরবস্থা থাকা সত্ত্বেও আমাদের বাবা-বা মা আমাদের কোনোরকম অবহেলা করেনি। প্রচুর ভালোবাসা ও স্বাধীনতার মধ্যেই আমরা বড় হয়েছি। হয়ত কোনো ভাই ছিল না বলেই পরিবারের গণ্ডীর মধ্যে কোনোদিন উপলব্ধি করতে পারিনি যে সমাজ ছেলে আর মেয়েদের মধ্যে কিভাবে পার্থক্য করে। এই কারণে আমি হয়ত ছোট থেকেই একটু অন্যরকম ছিলাম - মানে সমাজের নজরে আর পাঁচটা মেয়ের থেকে একটু আলাদা।
ছোটবেলায় আমার কোন মেয়ে বন্ধু ছিলই না। আমি আর পাঁচজন ছেলের মত গাছে উঠতাম, সাইকেল চালাতাম, পূজোর সময় পাড়ায় চাঁদা তুলে সবাই মিলে হইহই করে পূজো করতাম। আজ ভাবতে গিয়ে মনে হচ্ছে যে হয়ত ছেলেরা যেভাবে জীবনটাকে বাধাহীন, স্বাধীনভাবে উপলব্ধি করে, আমিও সেই স্বাধীনতা আর সুযোগের খোঁজে ছেলেদের সাথেই বেশি বন্ধুত্ব করতাম।
ছোটবেলায় বাবাকে কাজের সূত্রে অনেক সময়েই বাইরে-বাইরে থাকতে হত। মায়ের কষ্ট হত একা হাতে তিন বোনকে বড় করতে। তাই অনেক ক্ষেত্রেই নিজেদের যত্ন নিজেরাই নিতাম, আত্মনির্ভরশীল হতে শিখেছিলাম। অনেক না-পাওয়ার ঘটনা ছোটবেলায় ঘটেছে। যেমন পয়লা বৈশাখের দিনে সকাল থেকে সবাই নতুন জামা পড়ে ঘুরত, আর আমাদের তিন বোনের জামাকাপড় আসতো সেই বিকেল বেলায়। তখন খুব কষ্ট হত, কাঁদতাম, কিন্ত বিকেলবেলায় নতুন জামা আসার পর আর কোন দুঃখ থাকত না। চটপট জামা পড়ে ঘুরতে বেড়িয়ে পড়তাম। আর আজও মনে পরে স্কুলের টিফিনে ৩ টাকা দামের পার্লে জি নিয়ে যাওয়ার কথা। ১২টা বিস্কুটের মধ্যে ৬টা দিদির আর ৬টা আমার।
একটা বিষয় ছিল, যে ছোটবেলা থেকেই কোন কিছু না পাওয়া আমাকে পিছিয়ে দিতে পারেনি কখনো। অল্প কিছুদিন কষ্ট হত, তারপর আনন্দের সঙ্গে সেই পরিস্থিতিকে মানিয়ে নিতাম। মনে হত, জামা তো পেয়েছি, টিফিন তো আছে!
এই রকম নানান ঘটনার মধ্যে দিয়ে আমি বড় হতে শুরু করলাম। আমি যখন সপ্তম শ্রেণীতে পড়ি, তখন কোন কারণে বাবার চাকরি চলে যায়। সেই দিন বাবা আমায় জড়িয়ে ধরে খুব কেঁদেছিল। সেদিন কান্নার কারণ বুঝতে না পারলেও দু-চারদিন পর বুঝতে পারলাম যে মা খুব কষ্ট করে সংসার চালানোর চেষ্টা করছে। সেই দিনটা ছিল আমার জীবনে বড় একটা শেখার দিন। সেদিন ইচ্ছে হয়েছিল তাড়াতাড়ি বড় হয়ে উঠে পরিবারের জন্য অনেক কিছু করার। তাই নিজের কাছে প্রতিজ্ঞা করেছিলাম যে মাকে খাবারের জন্য খুব বেশি বিরক্ত করব না। আরও ভেবেছিলাম যে এইভাবে ঘুরে বেড়িয়ে মজায় দিন কাটানো যাবে না। মন দিয়ে পড়াশোনা করতে হবে ।
আরো বড় হওয়ার সাথে-সাথে, মানে ক্লাস VIII-এ যখন উঠলাম, তখন থেকেই আমার স্বভাব, আচরণ ইত্যাদি নিয়ে পাড়ার মানুষজনের থেকে অনেক অভিযোগ আসতে শুরু করল। যেমন, দেখ, কেমন ধিঙ্গি মেয়ে, ছেলেদের সাথে গাছে চড়ে! আশে-পাশের কাকু–কাকিমারা বলত, সাইকেল চালানোটা বন্ধ কর। আর এইভাবে ছেলেদের সাথে খেলা করা, ঘুরে বেরানোটা ঠিক নয়, তুমি বড় হচ্ছো। ওদের কথাগুলো শুনতাম, কিন্তু আমি কি ভুল করছি সেটা বুঝতে পারতাম না।
আমার বাবা ছোটবেলা থেকেই সবাইকে বলত, আমার দুটো মেয়ে, একটা ছেলে -- মানে আমি বাবার ছেলে, এই বলে বাবা গর্ববোধ করতো, আর আমারও খুব আনন্দ হত যে আমি আমার বাবার ছেলে। মার কিন্ত খুব চিন্তা হত যে তিনটে মেয়ের কিভাবে বিয়ে দেবে। বাবা ছোট থেকেই বলত, যতই অসুবিধা হোক, পড়াশোনা করতেই হবে আর জীবনে প্রতিষ্ঠিত হতেই হবে। কারো ওপর নির্ভরশীল হয়ে যেন আমার কোনো মেয়েকে বাঁচতে না হয়। বাবা আর মায়ের এই মতবিরোধের জন্য আমরা আমাদের জীবনকে নিয়ে স্বপ্ন দেখার একটু বেশি সময় পেয়েছিলাম, মানে অল্পবয়স থেকেই বিয়ে নিয়ে খুব একটা চাপ আসত না আমাদের ওপর।
আমি যখন নবম শ্রেণীতে উঠি, আমার পরিচয় হয় একটি সংস্থার সাথে যেখান থেকে আমি পড়াশোনার জন্য সাহায্য পেতে শুরু করি। নবম এবং দশম শ্রেণীতে আমি খুব কষ্ট করেছিলাম। সকাল ১০-টায় বাড়ি থেকে বেরোতাম স্কুলের জন্য, তারপর ৪-টেয় স্কুল ছুটি হওয়ার পর সেই সংস্থায় যেতাম এবং বাড়ি ফিরতে ফিরতে ৮-টা বাজত। খুব মন দিয়ে দুবছর পড়াশোনা করার পর মাধ্যমিকে খুব ভাল নাম্বার নিয়ে আমি পাশ করি, এবং তারপর থেকে অনেক সুযোগ আসতে শুরু করে আমার জীবনে। আমি আমার পাড়ার ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের পড়াতে শুরু করি ও তার থেকে যা টাকা উপার্জন করতাম, সেই টাকা দিয়ে আমি আমার পড়াশোনা ও বয়ঃসন্ধিখানের চাহিদাগুলো পূর্ণ করতাম। পয়লা বৈশাখে বা পূজোয় জামা পাওয়ার জন্য আর অপেক্ষা করতে হত না।
আস্তে-আস্তে এইভাবে আমার জীবনটা পরিবর্তন হচ্ছিল। জীবনে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্নও দেখছিলাম, কিন্ত মার দুশ্চিন্তা আর দূর করতে পারছিলাম না। মার সেই একই কথা - আমার তিনটে মেয়ের বিয়ে হবে কিভাবে, আর বয়স হলে আমাদেরকে কে দেখবে। মাকে কোন উত্তর দিতে পারতাম না। কোন উত্তর আমার জানা ছিল না।
ইতিমধ্যে জীবনের যাত্রাপথে আমার আলাপ হয় আর একটি সংস্থার সাথে যেখানে আমি প্রথমবার নিজেকে নিয়ে ভাবার সুযোগ পাই। নিজেকে প্রথমবার প্রশ্ন করি, আমি কে? এই প্রশ্নের অজস্র উত্তর খুঁজে পাই, তার মধ্যে একটা হল, আমি মেয়ে হই বা ছেলেই হই, সবার আগে আমি মানুষ, আর মানুষ হিসেবে অন্য মানুষের মত আমারও অধিকার আছে মুক্ত বা স্বাধীনভাবে বাঁচার।
পর পর তিনদিন আমি এই সংস্থায় আসি আর এই তিনটে দিন আমাকে আমার ছোটবেলার অনেক প্রশ্নের উত্তর যোগায়। তিনটি সন্তানই মেয়ে হওয়ার ফলে আমার মা’র দুঃখের কারণ, আমার সাইকেল চালানো বা গাছে ওঠা নিয়ে অন্যদের অভিযোগের কারণ, ও এইরকম আরও অনেক প্রশ্নের উত্তর আমি পাই। নিজেকে হাল্কা লাগতে শুরু করে। যেন যে কোন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারি, সেইরকম দৃঢ়ভাবে নিজেকে আমি তৈরি করতে শুরু করি। অনেক কিছু প্রশ্ন করতেও শিখি। জীবনে এগিয়ে যাওয়ার নতুন দিক খুঁজে পাই। নিজেকে অনেক বিশ্বাস করতে শুরু করি – একটা পুরুষতান্ত্রিক সমাজে আমি মেয়ে হয়ে জন্মেছি তো কি হয়েছে, আমার জীবনকে আমি নিজের মত করে সাজাবো। যতটা সম্ভব জীবনটাকে উপলব্ধি করব। মেয়ে বলে পিছিয়ে যাবো না।
আমার নিজের এই মানসিক পরিবর্তন আমায় উৎসাহিত করে আমার বন্ধু-বান্ধব, ভাই-বোন ও পাড়ার অন্যান্য ছেলে-মেয়ের সাথে এ বিষয়ে কথা বলতে, যে ছেলে এবং মেয়ে সমান, এবং সমাজের উচিত সবাইকে সমান সুযোগ দেওয়া, পার্থক্য না করে। এই বিষয় নিয়ে আমি যত কথা বলি, তত মেয়েদের প্রতি প্রতিনিয়ত যে ধরণের হিংসা হয় তা আমার কাছে স্পষ্ট হতে থাকে।
যেমন আমার পাশের বাড়ির মেয়েটিকে খুব অল্পবয়সে তার অনিচ্ছাসত্ত্বেও তার পরিবারের লোকেরা বিয়ে দিয়ে দেয়। তার পড়াশোনা করার প্রবল ইচ্ছা ছিল, তাও তাকে বিয়ে করতে হয়। বিয়ের পর থেকেই শ্বশুরবাড়িতে নানা অত্যাচার তাকে সহ্য করতে হয়, যেমন সিগারেটের ছেঁকা ইত্যাদি। এসব কারণে একটি সন্তান নিয়ে তাকে ফিরে আসতে হয় বাপের বাড়িতে। পাড়ার আরও একটি মেয়েরও খুব অল্পবয়সে বিয়ে হয়। কোনো কারণে বিয়ের দুবছরের মধ্যে তার স্বামী আত্মহত্যা করে, এবং সঙ্গে-সঙ্গে পাড়ার সবাই মেয়েটির বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে শুরু করে। কেউ তার সঙ্গে কথা বলে না।
এই ধরণের ঘটনাগুলো আমাকে নাড়া দিতে শুরু করে, এবং তাই আমরা পাড়ার ছেলে-মেয়েরা সবাই মিলে একসাথে হয়ে নিজেদের মনের কথা বলতে শুরু করি একে-ওপরকে মনোবল দেওয়ার জন্য। এইভাবেই আমরা আমাদের পাড়ায় একটি দল গঠন করি - নাম দিই “নবদিশা”। একে-একে এই দলে অনেক যুবরা যুক্ত হতে থাকে। এই দলের মাধ্যমেই পাড়ার মানুষদের সঙ্গে কথা বলতে বলতে পাড়ায় নিজের একটা দৃঢ়নিষ্ঠ পরিচিতি তৈরি করে ফেলি। পাড়ার সবাই আমাকে চিনতে শুরু করে আমার নামে। এই সময় বাবা আমায় নিজের ছেলে বলে সবার কাছে পরিচয় করালে আমার খুব বিরক্ত লাগতে থাকে। আমি বাবাকে বলি, “আমি তোমার ছেলে হতে চাই না। আমি তোমার মেয়ে, আর মেয়েরাও পারে সমানভাবে ছেলেদের মত কাজ করতে।”
আমাদের এই নবদিশা দলের জন্য আমার আত্মবিশ্বাস ক্রমশ বাড়তে থাকে। পাড়ার ক্লাবের যে কোন অনুষ্ঠানে আমার ডাক পড়তে শুরু করে। আর আমার এই পরিচিতি আর আত্মবিশ্বাস দেখে আমার মা একটু দুশ্চিন্তামুক্ত হতে শুরু করে। যেদিন মাকে প্রথমবার বলতে শুনি যে ছেলেদের থেকে মেয়েরাই ভালো, সেদিন প্রথম মনে হয় আমাকে নিয়ে মা হয়ত একটু গর্ববোধও করতে শুরু করেছে। হয়ত উপলব্ধি করতে শুরু করেছে যে মেয়েরাও চাইলে ছেলেদের মতই বাবা–মাকে দেখাশোনা করতে পারে। সেদিন আমি খুব খুশি হই। মনে হয় নিজেকে প্রমাণ করতে পেরেছি।
পরবর্তী কালে Social Work-এর ওপর M.A. করা এবং নিজেকে Social Worker হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করার সঙ্গে সঙ্গে আমি বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিই। যাকে বিয়ে করব ভাবি, সে যখন একদিন আমায় প্রশ্ন করে, “তুই কাজ করিস কেন? তুই যা টাকা পাস সেই টাকা যদি আমি তোকে এনে দিই, তুই তাহলে কাজ করা ছেড়ে দিবি?”, আমি উত্তর দিই যে আমি কাজ করি আমার পরিচিতির জন্য। আর আমি ফেলে আসা জীবনে যে শিক্ষা অর্জন করেছি সেটা ভালোভাবে ব্যবহার করার জন্য। তারপর ওই একই প্রশ্ন আমি ওকে করি। ও সেদিন কোনো উত্তর দিতে পারে নি। এরপর এই বিশ্বাস নিয়েই আমি বিয়ে করি, যে অন্যদের যেমন আমি বোঝার চেষ্টা করব, তেমনই নিজেকেও স্পষ্টভাবে প্রকাশ করব। আমার মতে আমার সম্পর্কগুলোকে দৃঢ় আর সুস্থ রাখার এটাই সবচাইতে ভালো আর একমাত্র উপায়।
আমার পাড়া ও দল নিয়ে আমার অনেক স্বপ্ন আছে। আমাদের দলের মাধ্যমে আমি পাড়ার সমস্যাগুলো বন্ধ করতে চাই, যেমন অল্পবয়সে মেয়েদের বিয়ে হওয়া, স্কুলছুট হওয়া ইত্যাদি। আমি চাই আমার দলকে এমনভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে, যাতে এই দলের মাধ্যমে পাড়ার অল্পবয়সী ছেলে-মেয়েরা নিজেদের জীবনের লক্ষ্য খুঁজে বার করতে পারে। আর আমিও এই দলের মাধ্যমেই পাড়ার সবার কাছে নিজের পরিচিতি বানাতে চাই ও সকলের ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা অর্জন করতে চাই।
আমি বিশ্বাস করি যে আমি আমার জীবনের জন্য যা স্বপ্ন দেখব তা পূর্ণ হবেই। তাই স্বপ্ন দেখ আর পজিটিভ পদক্ষেপ নাও।
 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here