12 Jul 2014

My Leadership Journey - Piyali

Piyali is a member of YRC Drishtikon,
Peer Counsellor
Read her earlier post
I am Piyali Paul and I live in a small neighbourhood near Dumdum Airport. There are four members in my family – my mother, my two younger brothers and me. Our family is very poor. Ma cooks in people’s houses; I do tuitions, teach dance to kids and work as a Youth Facilitator. My brothers sometimes work as labour. All of us earn our own livelihood, we support our own education.

If I’m asked the story of my life, I want to say first that I don’t like to think back to my childhood at all. There are a few things which I like to think back upon – like climbing trees, going out to play in the evenings and stealing guavas on the way back from school – these were fun things. But my childhood was much more than these, more painful. I have seen my father only twice in my life. I used to asked my mother, “Ma, where is my father?” Ma used to say, “He lives apart from us – I don’t know where.” Once my father had returned, but he went away again, leaving a lot of debts for Ma to pay back.

When I was 5 years old, my mother took the elder among my two younger brothers to my grandmother's house, and left him there for a while, because at that time, there was simply no food at home. My youngest brother was born when I was in class II. After his birth, my schooling was stopped. I started bringing him up while Ma started work as a domestic help. Three of us survived on what mother earned.

Two years passed in this way, and when my infant brother grew to be two years old, Ma was able to admit me into school again. At this time however, alongside my studies, I had the whole responsibility of running the household on my shoulders - from cooking, to looking after my infant brother, feeding him and putting him to sleep. When I was in class V, my mother brought my other brother back from my grandmother's home. My responsibilities increased all the more. Ma used to earn Rs.800/- and with this money, I had to run the household for the whole month. Once we had eaten for the day, I had to think about what to feed the family the next day. My mother’s job was to work and bring home the money, my job was to cook for everybody, see whether they were eating properly, and to bring up my brothers. My childhood was lost somewhere amidst all these chores. So when others talk of missing their childhood, I say that I don’t miss it at all.

Time passed and I became 12 years old; that is, I stepped into adolescence. I continued to fulfil all the responsibilities as before. I never got a moment for play. I used to get up at four in the morning, cook and do other household chores. By 7, I was at the Mitra coaching centre for my tuition classes. After returning from there, I had to get my brother and myself ready and drop him off at school. Then, after feeding my youngest brother, I used to seat him in the verandah with his toys and leave for school myself. There was no one to wave goodbye to me when I left, and I was always the last one to reach school. It was difficult to walk the long way alone. I could never carry any tiffin with me. Ma used to give me Re.1 every day. Thankfully, since I was very good at studies, seeing my mark-sheet, a local charity called LWS started to support me with Rs.300 a month.

At the time when I had got promoted from class VII to class VIII, two older girls from my area approached me and asked me to attend a leadership training camp. The camp was for 4 days, and would be held at Odisha. It was challenging for me to manage even that, because if I went away for 4 days, who would look after my brothers? Who would take care of household chores? After a lot of tears, my mother agreed to take leave from work for those 4 days so that I might go. And I went – ‘to explore my world’.

If there was a time in my life when things took a turn in a completely different direction, it would be this time. It was at this camp that I first came to know of the strengths and capabilities inside me, and here I started to know myself for the first time. A tremendous self-confidence started blossoming in me. After the camp, I got associated with this organization, made many friends. I got the opportunity for a youth fellowship - a year long leadership training process. This started with me understanding myself, to understanding my neighbourhood, to understanding society.

Gradually I came to know a lot of things, for instance, the definition of Gender Based Violence. I had never recognised the behaviours that I had been facing all these years within the four walls of my own home as violence. After I recognised it for what it was, I started talking about equality within my family, to every person in my neighbourhood, in my school and coaching classes. Simultaneously I started working on myself and also built my own group, calling it Drishtikon[Bengali: "Perspective"].

At this time, every single moment of my life was fraught with difficulties at home with my mother and brothers. The reason for this was, I was no longer putting in as much time into housework as they were accustomed to see me do before. I tried to make them understand, why only me? The family was constituted by all of us, then why didn’t everybody participate in household chores? This was the issue with which I struggled every moment of every day. Slowly, gradually my family also started to understand what I was trying to say.

In our society, every girl has to face such problems, one way or the other. So I made efforts to bring as many girls as possible to my group. We sat as a group, identifying the problems that needed to be remedied in our locality, and then started working on small projects, trying to find solutions. in the course of our work, we had to overcome many challenges, so that we could walk towards our goal.

I also took a training in Peer Counselling skills. With the new perspective afforded by these skills, I was able to solve many problems in my life. I learned how to listen, empathise and help people see the options before them. Nowadays many people approach me with their problems. I try to take time to talk with them and help them. I use my skills especially to provide emotional support to adolescents providing them with a space to share their difficulties. I do workshops to build their self worth and I use various games to help them talk freely about issues like relationships, child marriage, child abuse, discrimination and violence.

In this way, by fulfilling various important responsibilities in my group, in my neighbourhood committee and at home, I am honing my skills as a youth leader. In recent times, I have also joined a position at SBI Bank. Amidst all this, I have also found a companion for life, who helps and supports me at every step.

All these experiences are making me more and more self-reliant every day. Today, all my life decisions are of my own choosing. Nowadays I feel that whatever the obstacle, I will walk forward. In the coming year, I dream of making my group stronger and better organized. For this, we have applied for projects to different places. Since all the members of the group come from poor families, we dream of creating work opportunities for at least some of them through our group. As far as my personal goals are concerned, I want to successfully complete my graduation by next year.

I want to tell everyone that whatever be the obstacle, you have to move forward in life. If you start walking, then only alternative ways and possibilities will open up and take you to your goal.


আমার নেতৃত্বের যাত্রা

আমি পিয়ালী পাল। থাকি দমদম এয়ারপোর্টের কাছে একটা ছোট পাড়াতে। আমার পরিবারে চারজন সদস্য – আমি, আমার মা, আর আমার দুই ভাই। আমাদের পরিবার খুব গরীব। মা রান্নার কাজ করে, আর আমি টিউশন করি, বাচ্চাদের নাচ শেখাই। ভাইরাও কখন-সখন দিনমজুরী করে। আমরা নিজেরা প্রত্যেকে নিজেদের খরচ চালাই, পড়াশোনা করি। আমার জীবনের কথা বলতে গেলে আমার ছোটবেলার কথা একদম ভাবতে ইচ্ছা করে না। তার মধ্যেও কিছু ভালোলাগা আছে যেগুলো ভাবতে বেশ ভালো লাগে, যেমন গাছে ওঠা, বিকেলবেলা খেলতে যাওয়া, স্কুল থেকে আসার পথে পেয়ারা চুরি করা - এগুলো বেশ মজার ছিল। কিন্ত এগুলোর থেকে অনেক কষ্টের ছিল আমার ছোটবেলা । আমাদের জ্ঞান হওয়ার পর আমি আমার বাবাকে দুবার দেখেছিলাম। মাকে প্রশ্ন করতাম, “মা আমার বাবা কই?” মা বলত, "বাবা আমাদের ছেড়ে কোথায় আছে জানি না।” বাবা একবার এসেছিল – অনেক ধার-দেনা করে চলে যায়, আর মাকে সেই সব টাকা শোধ করতে হয়। আমার যখন পাঁচ বছর বয়স, তখন আমার বড় ভাইকে মা মামার বাড়িতে দিয়ে আসে দিদার কাছে, কারণ সেই সময় আমাদের সংসারে খাবার ছিল না। যখন আমি প্রাইমারি স্কুলে ক্লাস II-তে পড়ি, তখন আমার ছোট ভাই হয়। আমার ছোট ভাই হওয়ার পর আমার পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যায়। আমি আমার ভাইকে মানুষ করতে থাকি আর মা রান্নার কাজে লেগে যায়। মা যা রোজগার করত সেটাতে আমাদের তিনজনের পেট চলত। এইভাবেই দুবছর কেটে যায়। আমার ভাইয়ের দুই বছর বয়স হয়। আমার মা আমাকে আবার স্কুলে ভর্তি করে আর আমি আবার পড়াশোনা করতে শুরু করি।

এই সময় পড়াশোনার সাথে সাথে সংসারের পুরো দায়িত্ব আমার ছিল, রান্না করা থেকে শুরু করে ভাইকে লালনপালন করা, খাওয়ানো ঘুম পাড়ানো, সব আমিই করতাম। আমি যখন ক্লাস V-এ উঠলাম, মানে হাইস্কুলে আমার প্রথম বছর, সেই সময় মা মামাবাড়ি থেকে বড় ভাইকে নিয়ে এল। তখন আমার মাথায় আরও অনেক দায়িত্ব এসে পড়ল। ঐ সময় মা মাসে ৮০০ টাকা রোজগার করত আর আমাকে ঐ ৮০০ টাকা দিয়ে সারা মাস চালাতে হত। আজ রান্না-খাওয়া হয়ে গেলে কাল কি রান্না হবে সেটা আমাকে ভাবতে হত। মার কাজ ছিল বাইরে থেকে টাকা রোজগার করে আনা আর আমার কাজ ছিল পরিবারের প্রত্যেকের জন্য রান্না করা, তাদের খাওয়া-দাওয়া দেখা, ভাইদেরকে মানুষ করা। এইভাবেই আমার ছোটবেলা কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছিল। তাই সবাই যখন বলে যে তারা তাদের ছোটবেলাটা খুব মিস করে, তখন আমি বলি যে আমি একদম ওটা মিস করি না।

দেখতে দেখতে আমি ১২ বছর বয়সে পড়লাম, অর্থাৎ বয়ঃসন্ধিতে পা দিলাম – কিন্তু তখনো আমাকে আমার পরিবারে ঐ আগের ভূমিকাটাই পালন করতে হত। আমি একটুও খেলার সময় পেতাম না। ভোর চারটের সময় উঠতাম, রান্না করতাম, সংসারের সব কাজ করতাম; সকাল সাতটার মধ্যে মিত্র কোচিনে পড়তে যেতাম; পড়ে এসে নিজে তৈরি হয়ে ভাইকে তৈরি করে তাকে স্কুলে দিয়ে আসতাম, আর ছোট ভাইকে তৈরি করে খাইয়ে দিয়ে বারান্দায় খেলনা দিয়ে বসিয়ে রেখে যেতাম। স্কুলে যাওয়ার সময় আমার জন্য কেউ দাঁড়াত না। আমি সবার শেষে স্কুলে ঢুকতাম। খুব কষ্ট হত অতটা রাস্তা একা একা হেঁটে যেতে। কোনোদিন টিফিনও নিয়ে যেতাম না। মা মাসে একটাকা করে দিত। সেই সময় আমি পড়াশোনাতেও খুব ভালো ছিলাম, তাই আমার মার্কসিট দেখে L.W.S. নামক একটি সংস্থা আমাকে মাসে মাসে ৩০০ টাকা করে দিত।

আমি যখন ক্লাস VII থেকে VIII-এ উঠলাম, সেই সময় হঠাৎ একদিন পাড়ার দুজন দিদি আমাকে লিডারসিপ ট্রেনিং-এর জন্য একটা ক্যাম্পে যাওয়ার জন্য বলল। ক্যাম্পটা ছিল ওড়িশাতে, চার দিনের জন্য। কিন্ত সেখানে যাওয়াটাও আমার কাছে চ্যালেঞ্জের ছিল, কারণ আমি যদি চার দিনের জন্য চলে যাই তবে আমার ভাইদেরকে কে দেখবে? সংসারের কাজ কে করবে? অনেক কান্নার পর মা চার দিনের ছুটি নেয় আর আমাকে যেতে দেয়।আর আমি যাই ‘আমার পৃথিবীর খোঁজে’।

আমার জীবনে মোর ঘোরা বা দিক পরিবর্তন হওয়ার সময় বলতে আমি এই যে সময়টাকেই বলব। এই ট্রেনিং-টাতে গিয়ে প্রথমবার আমার ভেতরের ক্ষমতাগুলো সম্পর্কে জানতে আর নিজেকে চিনতে শুরু করি। নিজের মধ্যে অসম্ভব আত্মবিশ্বাস জন্মায়, এবং এর পর থেকে আমি এই সংস্থাটার সঙ্গে যুক্ত হয়ে যাই, আমার অনেক বন্ধু হয় ওখানে। এখানে আমি একটা ইউথ ফেলোশিপ-ও পাই, যার সুবাদে আমি ১ বছরের একটা লিডারশিপ ট্রেনিং করার সুযোগ পাই। এই ট্রেনিং-এ প্রথমে নিজেকে জানতে ও চিনতে শিখি, তারপর আমার পাড়া ও পরিবেশ ও শেষে সমাজকে নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করি।

ধীরে ধীরে অনেক কিছুর বিষয়ে জানতে পারি। যেমন, হিংসা, মানে পারিবারিক হিংসা, কাকে বলে? আমার সঙ্গে পরিবারের গণ্ডীর মধ্যেই যে হিংসাগুলো হত, সেগুলোকে হিংসা হিসেবে আমি নিজেই জানতাম না। যখন জানলাম, তারপর থেকে সমানতা নিয়ে ধীরে ধীরে নিজের পরিবারে, নিজের পাড়ার প্রত্যেকের কাছে, এবং স্কুলে ও কোচিনে কথা বলতে শুরু করি। সাথে-সাথে নিজের ওপরও কাজ করতে শুরু করি, আর দৃষ্টিকোণ (দমদম) নামে নিজের একটা গ্রুপও তৈরি করি।

এসবের সাথে-সাথে প্রতি মুহূর্তে আমার ভাই আর আমার মায়ের সাথে আমার সমস্যা চলতে থাকে, কারণ আমি ঘরের কাজে আগের মত অতটা সময় আর দিই না। ওদের বোঝানোর চেষ্টা করি, শুধু আমি কেন? পরিবারে তো আমরা সবাই থাকি, তবে আমরা সবাই কেন ঘরের কাজে হাত লাগাই না? এই বিষয় নিয়ে প্রতিদিন প্রতি মুহূর্তে যুদ্ধ করতে হয়, তবে ধীরে ধীরে তারাও মানতে শুরু করে আর আমাকে বোঝার চেষ্টা করে।

আমাদের সমাজে প্রতিটি মেয়েকেই কোনো না কোনোভাবে এই ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তাই আমি আমার পাড়ার যতজন সম্ভব তত মেয়েদের গ্রুপে আনার চেষ্টা করি, গ্রুপের সদস্যদের নিয়ে পাড়ার সমস্যাগুলোকে চিহ্নিত করি আর বিভিন্ন ছোট ছোট প্রজেক্ট নিয়ে কাজ শুরু করি। কাজ করার সময় পাড়া থেকে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ আসে, আর সেগুলোকে কাটিয়ে নিজের লক্ষের দিকে এগিয়ে যাই।

এছাড়া আমি একটা কাউন্সেলিং ট্রেনিং-ও করি, আর সেখান থেকে পাওয়া নতুন দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে জীবনের অনেক সমস্যার সমাধান করতে সক্ষম হই। কি করে অন্যের সংবেদনশীলতার সাথে শুনতে হয়, আর তাদের সামনে কি কি রাস্তা খোলা আছে সেটা তাদের দেখতে সাহায্য করতে হয়, এই সমস্ত দক্ষতা এখানে শিখলাম। এখন অনেকেই নিজেদের অনেক সমস্যা নিয়ে আমার কাছে আসে, আর আমি চেষ্টা করি তাদেরকে সময় দিতে, তাদের সাথে কথা বলে তাদের সাহায্য করতে। আমি বিশেষ করে আমার দক্ষতাগুলোকে কাজে লাগাই বয়ঃসন্ধির ছেলেমেয়েদের সাথে। তাদেরকে একটা নিরাপদ জায়গা তৈরি করে দেওয়ার চেষ্টা করি যেখানে তারা তাদের অসুবিধের জায়গাগুলো শেয়ার করতে পারে। তাদের আত্ম-মর্যাদাবোধ দৃঢ় করার জন্য তাদের সঙ্গে বিভিন্ন ওয়ার্কশপ করাই, আর যাতে তারা জীবনের বিভিন্ন সম্পর্ক, বাল্যবিবাহ, শিশু নির্যাতন, বৈষম্য এবং হিংসা নিয়ে মন খুলে কথা বলতে পারে, সেই রকম বিভিন্ন গেম খেলাই।

এইভাবে গ্রুপের মধ্যে, পাড়া কমিটিতে আর নিজের পরিবারের মধ্যে একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আমি নিজেকে একজন ইউথ লিডার হিসেবে তৈরি করছি, আর ইদানিংকালে আমি S.B.I. ব্যাঙ্ক-এ একটা কাজের সঙ্গেও যুক্ত হয়েছি। এই সবকিছুর মাঝখানে জীবনে আমি একজন সঙ্গীকেও পেয়েছি যে আমার চলার পথে প্রতিমুহূর্তে সাহায্য
করে, সাপোর্ট করে। এই সব অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে আমি যেন প্রতিনিয়ত আরও স্বাবলম্বী হয়ে উঠছি। এখন আমার জীবনের প্রতিটি সিধান্ত আমি নিজে নিই আর এগিয়ে চলি, আর মনে করি যে যতই বাধা আসুক না কেন, আমি এগিয়ে যাব। আগামী এক বছরে আমার স্বপ্ন হল আমার গ্রুপকে আরও সুন্দরভাবে তৈরি করা। এর জন্য আমরা বিভিন্ন জায়গাতে প্রজেক্টের জন্য apply করেছি।

যেহেতু আমাদের গ্রুপের প্রত্যেকেই নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে আসছে, তাই আমাদের স্বপ্ন এই গ্রুপ প্রজেক্টের মাধ্যমে অন্তত কিছুজনকে কাজের সুযোগ করে দিতে। ব্যক্তিগত লক্ষ্যের কথা বলতে গেলে একবছরের মধ্যে আমি সার্থকভাবে graduation শেষ করতে চাই। আমি সকলকে বলতে চাই, জীবনে চলার পথে যে কোন বাধা আসুক না কেন, এগিয়ে যেতে হবে। এগিয়ে গেলে তবেই বিকল্প অনেক পথ খুঁজে পাবে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছনোর।
 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here