12 Jul 2014

My Leadership Journey - Papiya

Papiya is a member of YRC Youth Voice
[2014]

I am Papiya Mondol, 20 years old. In my family, there are my parents, my younger brother and my paternal grandmother. Up until I was 6 years old, I lived in Krishnanagar, in my mother’s maiden home, because ever since my mother got married, my paternal grandmother didn’t let her daughter-in-law live in her house. My father works in the BSF, and whenever he would come home on his holidays, he came to Krishnanagar.

I think I started facing life’s first challenges from then. In school, my friends asked me where my home was, and they laughed when I told them my mothers home address. They said, “That is your uncle’s home! Don’t you have your own home?”
I couldn’t answer them because I didn’t myself understand why I lived in the Krishnanagar house and not in my father’s house.

When I was 6, it so happened that my paternal grandmother fell ill and called for us. Along with my parents I visited her at her Kolkata home, and my mother started caring for her in her illness. After being nursed back to health, my grandmother threw us out of her house again. It was then that I first started understanding why we lived where we did, and came to know that this had happened many times before. But this time my mother stubbornly said she wanted to live in the house of her in-laws; why would she repeatedly have to return, only to leave? So we started living in Kolkata in my grandmother’s house. Some time went by like this.

Suddenly one cold winter night, grandmother threw us out again. Mother covered me up warmly in her sari, and like that we spent the whole night in the yard. Later, with the help of some neighbours, we built a room in the same yard and started living there. My father would visit us here during his breaks, again go away. He continued to send us money. I continued in this way till class VIII.

Now a new problem started. Whenever I spoke to any boy from the neighbourhood or from my coaching class, people would talk. Also, since my father didn’t live with us, people started spreading rumours about my mother as well, saying that she had relations with other men. My grandmother also used to say this. With my own eyes, I have seen my mother get beatings many times from my grandmother and from some women from the neighbourhood. Since no one protested against these things in the right way, whenever I came out of home, people started their nasty comments. I used to feel very bad. Once I thought of committing suicide as well. In the meantime, my grandmother cut off our electric line. I studied without electricity for two years, till class XI.

When I was in class X, there was a boy in my coaching class who used to say nasty things to me from the back. Listening to these abuses day after day, I fell sick. One day I heard him say something new, “How much do you charge?” That day I couldn’t control my rage any longer. I dealt him a number of blows outside the coaching class. He also slapped my face.

I got connected with TF when I was in class IX through a youth group called Youth Voice in my neighbourhood. Through a series of workshops that I attended at TF, I gradually began to understand that beatings or quarrels were not the solution to anything. I started thinking of ways to solve my problems through discussions, or techniques other than violence. I became friends with some boys and tried to bring them over to my group. I started talking to them, trying to make them understand that I was not at fault. In this way, I started trying to solve the outside problems, and gradually the problems at home also started getting resolved little by little.

But my befriending those boys started to go in the wrong direction. Several boys tried to make me enter a love relationship with them, or to take advantage of me physically. At that point of time I did not realise that I was being taken for a ride, and started getting enmeshed in relationships. People at home also started to scold and beat me up because of this. This led to me getting further entangled in these wrong relationships, by increasing my yearning to meet someone who would love me a lot, understand me and support me. At the very least I longed for a space where I would not continually be scolded or beaten.

But gradually, as the group continued to make me more and more aware of myself, sexuality, gender, violence, rights and relationships, I started getting to know myself better. I was aware that some people around me were in fact harassing me, and that so long I had been blissfully unaware of their intention. Once I understood this, I withdrew myself from these risky relationships.

At that time, one of my uncles used to visit us. I started keeping my distance from him. But one day he suddenly shouted and said, “Why don’t you talk to me about these things? Don’t you know I want to marry you?” I was never so surprised in my life! Someone my father’s age wanted to marry me! That uncle stopped visiting us, but whenever I would go out of home alone, he would stalk me. By that time, I had learnt how to protest. I lodged a GD with the police and that problem got resolved.

Now my family and I are in a better position than before. This does not mean that we don’t have problems any more. There are problems, but I am no longer crushed by them. I no longer run away from them, I face them. And I always try to share my problem with someone else, as I have realised that often difficult problems are easier to resolve with the help of others.

Now we have adjusted a lot with my grandmother, and we live together. Now people talk a lot less. Some still think that I’ve had many affairs, so I am a bad girl. I want to prove all of them wrong. I want to do something good, or to stand beside people who, hearing too many bad things from society, feel really compelled to take their lives. My goal now is to ensure that no girl, facing neglect and abuse from society or from their families, gets lost or dies.

I am now in the 3rd year of college. I talk freely with many of the boys there. If there is a problem at home, I no longer shy away from talking about it or informing my father. My mother too is able to share many things with me. The people in my neighbourhood now see her in a different light too, they respect her. If there is a problem in any house in our area, they approach my mother for help. She also helps them however she can. I love these new things that are happening now in my life. I never want anyone else to suffer as helplessly as we had suffered. So I always try to help others. Nobody passes bad remarks at me now. I also talk normally with the boys who had behaved so badly with me once upon a time. They also don’t talk like that anymore.

Nowadays I don’t bother so much about what others think about me. when I stand in front of the mirror, I feel very proud. I know I don’t have to account to anybody on the subject of my so-called misdeeds. I dream of making myself all the more independent and self-sufficient. Today I have the ability to face all kinds of challenges. Perhaps it is a bit difficult to change the mindsets of people very fast, but I think of ways in which I can do that, without destroying my own freedom. However hard the problem, instead of running away, I try to find a solution and remain happy myself.

I have only one message for everybody – use different methods to bring about change in the mindsets of people, starting from your family members to the larger social mindset. Be patient; if one way does not work, do not give up - think of another way. And however many difficult situations you face in life, do not think of committing suicide, ever.


আমার নেতৃত্বের যাত্রা

আমি পাপিয়া মণ্ডল, এখন আমার বয়স ২০ বছর। আমাদের পরিবারে আমার মা, বাবা, ভাই ও ঠাকুমা আছে। আমি আমার জন্মের পর থেকে প্রায় ৬ বছর বয়স পর্যন্ত কৃষ্ণনগরে আমার মামাবাড়িতে থাকতাম, কারণ মায়ের বিয়ের পর থেকেই আমার ঠাকুমা মাকে নিজের বাড়িতে থাকতে দিত না। আমার বাবা B.S.F.-এ চাকরি করত, তাই যখনই ছুটিতে আসত তখন আমার মামাবাড়িতে আসত।
সেই সময় থেকেই বোধহয় আমার জীবনের প্রথম চ্যালেঞ্জ শুরু হয়। আমি যখন স্কুলে যেতে শুরু করি, আর প্রথমবার আমার বন্ধুরা আমায় জিজ্ঞেস করে আমার বাড়ি কোথায়, তখন আমার মামাবাড়ির ঠিকানা শুনে সবাই খুব হাসাহাসি করে আর বলে, ‘এমা, ওটা তো তোর মামাবাড়ি! তোর নিজের বাড়ি নেই?’ এই প্রশ্নের উত্তর তখন আমি দিতে পারতাম না, কারণ তখন আমি জানতাম না কেন আমি মামাবাড়ি থাকি এবং আমার বাবার বাড়িতে কেন থাকি না।
আমার ৬ বছর বয়সে একবার ঠাকুমা অসুস্থ হয় বলে আমাদের ডেকে পাঠায়। আমি, মা আর বাবা ঠাকুমাকে দেখতে যাই কলকাতায়, আর মা ঠাকুমার সেবা-যত্ন করতে শুরু করে। কিছুদিন পর ঠাকুমা ভালো হয়ে উঠলে আবার আমাদেরকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। তখন আমি বুঝতে শুরু করি যে আমরা কেন মামাবাড়িতে থাকি, আর জানতে পারি যে এর আগেও এরকম অনেকবার হয়েছে। মা কিন্তু এবার জেদ ধরে বসে যে, আমি আমার শ্বশুরবাড়িতেই থাকব; কেন আমি বার-বার আসব আর চলে যাব। আমরা কলকাতায় থাকতে শুরু করি ঠাকুমার বাড়িতে। কিছুদিন এভাবেই কেটে যায়। হঠাৎ একদিন একটা শীতের রাতে ঠাকুমা আমাদের ঘর থেকে বার করে দেয়। সেই রাতটা আমরা বাইরে উঠানেই থাকি। মা শাড়ি দিয়ে ভাল করে ঢেকে জড়িয়ে ধরে থাকে আমাকে। তারপর আমরা পাড়ার কয়েকজনের সাহায্য নিয়ে উঠানে একটা ছোট্ট ঘর করে থাকতে শুরু করি। এই সময়গুলোতে বাবা শুধু ছুটিতে আসত আবার চলে যেত, টাকা পাঠাত।
এইভাবেই আমি ক্লাস VIII-এ উঠি। আর তখন থেকে শুরু হয় এক নতুন সমস্যা। পাড়ায় বা কোচিং-এ আমি কোন ছেলে বন্ধুর সাথে কথা বললেই পাড়ায় কেমন কানাঘুষো হতে শুরু করে। আমার বাবা বাড়ি থাকত না বলে সাথে-সাথে লোকে আমার মায়ের নামেও উল্টো-পাল্টা কথা বলতে শুরু করে, যে আমার মা কোন পুরুষের সাথে অবৈধ সম্পর্ক করে। একথা আমার ঠাকুমাও বলত। আমি অনেকবার নিজের চোখে বিনা দোষে আমার মাকে মার খেতে দেখেছি ঠাকুমার কাছে, আর পাড়ার কিছু মহিলার কাছেও। যেহেতু এইসব ঘটনাগুলোর সঠিকভাবে প্রতিবাদ করা হত না, তাই আমি রাস্তাঘাটে বেরোলেই সবাই টোন করত। আমার খুব খারাপ লাগত। একবার আত্মহত্যার কথাও চিন্তা ভেবেছিলাম। ইতিমধ্যে আমার ঠাকুমা আমাদের ঘরের কারেন্ট কেটে দেয়। কারেন্ট ছাড়াই প্রায় দুবছর পড়াশোনা করি ক্লাস ১১ পর্যন্ত।
ক্লাস ১০-এ আমি যে কোচিং-এ পড়তাম, সেখানে একজন ছেলে পিছন দিক থেকে আমাকে অনেক বাজে কথা বলত। দিনের পর দিন সেগুলো শুনতে-শুনতে আমি অসুস্থ হয়ে যাই। একদিন একটা নতুন কথা শুনতে পাই – ‘তোর রেট কতো?’ আমি আর রাগ সামলাতে না পেরে কোচিং থেকে বেড়িয়ে ছেলেটিকে খুব মারি। সেও আমাকে গালে চড় মারে।
আমি ক্লাস ৯-এ TF-এর সাথে যুক্ত হই। TF-এর থেকে বিভিন্ন ট্রেনিং নিতে নিতে বুঝতে শুরু করি যে মেরে বা ঝগড়া করে কোন কিছুর সমাধান হয় না। আস্তে-আস্তে আমি আমার এই সমস্যার সমাধান আলোচনা বা অন্য কোন পদ্ধতিতে করার কথা ভাবি। আমি কিছু ছেলের সাথে বন্ধুত্ব করি আর তাদেরকে গ্রুপে নিয়ে আসার চেষ্টা করি. তাদের সাথে ভালোভাবে কথা বলে তাদেরকে বোঝানোর চেষ্টা করি যে আমার কোন দোষ নেই। এইভাবে বাইরের দিকের সমস্যা মেটানোর চেষ্টা করি আর সাথে সাথে বাড়ীর সমস্যাও কিছুটা মিটতে থাকে ।
কিন্তু আমি যে ছেলেদের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়াই, সেটা অন্যদিকে যেতে শুরু করে। অর্থাৎ প্রায় ৭-৮ জন ছেলে আমার সঙ্গে প্রেম করতে চায় অথবা শারীরিক কিছু সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা করে। আমি সত্যিই সেই মুহূর্তে বুঝতে পারি না যে এরা আমার থেকে সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা করছে, আর আমি সম্পর্কে জড়িয়ে পড়তে থাকি। এর জন্য বাড়ির লোকও আমাকে খুব শাসন আর মারধোর করতে থাকে। এর কোনো সুফল তো হয়ই না, বরং আমি আরও বেশি করে এমন একটা মানুষ খুঁজতে থাকি যে আমাকে খুব ভালোবাসবে, বুঝবে আর সাপোর্ট করবে। অন্তত এমন একটা জায়গা চাই যেখানে ক্রমাগত বকা বা মার খাব না।
কিন্তু আস্তে-আস্তে গ্রুপে হেনস্থা, sex আর gender সম্পর্কে আরও বিষদে জানতে থাকি। এর ফলে নিজেকে আরও ভালোভাবে জানতে-বুঝতে শুরু করি। এইসব করে একটা জিনিষ আমি বুঝতে পারি যে যারা আমার চারপাশে আছে তারা আমাকে কোন না কোন ভাবে হেনস্থা করে যাচ্ছে আর আমি বুঝতেই পারছি না যে এটা হেনস্থা। এটা বোঝার পর আস্তে-আস্তে আমি নিজেকে ওই ঝুঁকিপূর্ণ সম্পর্কগুলো থেকে সরিয়ে আনতে থাকি।
সেইসময় আমাদের বাড়িতে আমার একজন কাকু আসত। আমি তার সাথেও দুরত্ব বজায় রাখতে শুরু করি। কিন্তু সে হঠাৎ একদিন চিৎকার করে বলে, ‘তুই আমার সাথে এসব কথা বলিস না কেন? জানিস না আমি তোকে বিয়ে করতে চাই?’ আমার জীবনে আমি সবথেকে বেশী অবাক হয়েছিলাম কাকুর এই কথা শুনে। যে আমার বাবার বয়সী সে আমাকে বিয়ে করতে চায়! এরপর থেকে ঐ কাকু আমাদের বাড়িতে আসা বন্ধ করে দেয়, কিন্তু রাস্তায় মাঝে-মধ্যেই আমি একা বেরোলেই আমার পিছু নিত। তখন আমি প্রতিবাদ করার উপায়গুলো জেনে গেছিলাম, তাই থানায় G.D. করি এবং সেই সমস্যাটার সমাধান হয়ে যায়।
এখন আমার পরিবার ও আমি একটা ভালো জায়গায় আছি। ভালো জায়গায় আছি মানেই এটা নয় যে এখন আর কোন সমস্যা হয় না। সমস্যা হয় কিন্ত এখন আমি আর ভেঙ্গে পরি না। এখন কোনো সমস্যা হলে সেখান থেকে পালাই না, সমস্যার সম্মুখীন হই। আর সবসময় চেষ্টা করি কারোর সাথে আমার সমস্যাটা শেয়ার করতে কারণ এখন বুঝতে পেরেছি যে অন্যের সাহায্য পেলে কঠিন সমস্যাও সমাধান করা অনেকটা সহজ হয়ে যায়।
এখন আমরা ঠাকুমার সাথে অনেক মানিয়ে নিয়ে একসাথে থাকি, এখন লোকজন আগের চাইতে অনেক কম কটু কথা বলে। কিন্ত কিছু লোক এখনো এটাই ভাবে যে আমি বাজে মেয়ে, অনেক প্রেম করেছি, আমি খারাপ। আমি তাদের সবাইকে ভুল প্রমাণ করতে চাই। আমি চাই কোন ভালো কাজ করতে বা সমাজে আমার মত যারা অনেক লোকের কাছ থেকে কটু কথা শুনে সত্যিই আত্মহত্যার মতো বাজে কাজ করতে বাধ্য হয় তাদের পাশে দাঁড়াতে, তাদের জন্য কিছু করতে। এখন আমার লক্ষ্য এটাই যে কোন মেয়ে যেন সমাজ বা পরিবার থেকে লাঞ্ছিত হয়ে হারিয়ে না যায়, মরে না যায়।
সকলের কাছে আমার একটাই message দেওয়ার আছে, যে নিজের পরিবার থেকে শুরু করে সমাজের চিন্তাধারার পরিবর্তনের জন্য বিভিন্ন পদ্ধতির প্রয়োগ কর। ধৈর্য হারিও না, একটা পদ্ধতি ব্যবহারের পর যদি ফল না মেলে তাহলে ভেঙ্গে না পড়ে অন্য পদ্ধতির কথা ভাবো, আর জীবনে যত কঠিন পরিস্থিতিই আসুক না কেন কোনদিন আত্মহত্যার কথা ভেবো না।
আমি এখন কলেজে 3rd year-এ পড়ি। আজকাল কলেজে অনেক ছেলের সাথেই খোলাখুলিভাবে কথাবার্তা বলি। আবার বাড়িতেও কোন অসুবিধা হলে বাবাকে জানাতে বা সেই বিষয়ে কথা বলতে ভয় পাই না আর এখন মাও আমার কাছে অনেক কথা শেয়ার করতে পারে। এখন পাড়ার লোকজন মাকে অনেক ভালো নজরে দেখে, সম্মানও করে।
আশেপাশে কোন বাড়িতে সমস্যা হলে মার কাছে আসে সমাধানের জন্য। মাও সবাইকে সাধ্যমত সাহায্য করে। আমিও আশেপাশে যাদের মানসিক সাহায্যের প্রয়োজন তাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিই। আমার এই নতুন জিনিসগুলো খুব ভালো লাগে। এক সময় আমি আর আমার পরিবার যেরকম অসহায় ছিলাম, আমি চাই না আর কেউ সেরকম কষ্ট পাক। তাই সবসময় চেষ্টা করি মানুষকে সাহায্য করতে। এখন পাড়ায় কেউ আমায় টোন করে না। আর যে ছেলেগুলো আমাকে একসময় খুব উল্টোপাল্টা কথা বলত, তাদের সাথেও এখন মোটামুটি ভালোই কথা হয়। ওরাও এখন আমায়

কোন খারাপ কথা বলে না।
এখন আমার সম্পর্কে কে কি ভাবল সেটা মাথায় বেশি না নিয়ে চলার চেষ্টা করি। কারণ এখন আমি যখন আয়নার সামনে দাড়াই তখন আমার খুব গর্ববোধ হয়। আমি কোন দোষ করেছি কি না করেছি সেটা কাউকে প্রমাণ দেওয়ার প্রয়োজন নেই সেটা আমি জানি। এখন আমি নিজেকে আরও অনেক স্বাবলম্বী করে তোলার স্বপ্ন দেখি। আজ আমার মধ্যে সমস্ত সমস্যার সম্মুখীন হওয়ার ক্ষমতা রাখি। লোকের চিন্তাধারার পরিবর্তন হয়তো খুব তাড়াতাড়ি করা একটু কঠিন কিন্তু নিজের সব স্বাধীনতা নষ্ট না করে লোকজনের গতানুগতিক চিন্তাধারার পরিবর্তন কিভাবে করা যায় সেই কথাই এখন আমি ভাবি। যতই সমস্যা হোক না কেন, আমি পিছিয়ে না গিয়ে সেটার সমাধান খোঁজার চেষ্টা করি আর নিজে খুশী থাকি।
 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here