12 Jul 2014

My Leadership Journey - Krishna

Krishna is a founder member of YRC Ujaan,
Youth Trainer.Read her earlier post

In this photo, Krishna has just arrived in
Bangkok to share this story as a resource
person for Oxfam's Gender Leadership
Programme, June 2014

I am Krishna Goldar. My home is in Gobindopur bustee, Kolkata. I am a founder member and the secretary of Ujaan group. I feel very proud to say this - we, the boys and girls of my neighbourhood, have created this group ourselves! I am also a youth trainer at Thoughtshop Foundation.
Childhood
We used to live in our own house in New Barrackpore, a suburb of Kolkata. All three of us siblings went to school. Our mother stayed home spent time with us and helped us with our studies. Our father ran his own meat shop. After working all day, he would play cards and drink with his friends. If we ever made a mistake, he would shower blows on our backs, just like the drummers who vigorously beat their drums with their sticks during puja time. We used to be mortally scared of his anger. We never dared to speak to him. Yet it was a happy time, we used to study and play as children should.

Once when we were visiting our uncle’s house during Kali Puja, a conflict ensued - my father and his brother had a violent fight. As a consequence of this, our lives changed overnight. We never returned to our beautiful house again.
Move to Kolkata
Father started working with our maternal uncle, who used to build pandals. But this work was irregular and unsustainable. Mother would worry – what would we eat? Where would we live? By this time, we had stopped going to school. It was then that my parents and I moved to Kolkata. Our youngest uncle lived in a room in the slums, which was meant for two-three people at a crunch. We moved in with him, his wife and two sons, and started living crammed in together. I somehow made space for myself with my cousins, but my parents had to sleep outside, in the narrow alley between rooms.

My mother who had never had to work, had to now earn. The easiest way to get work in an unknown place was to start working as a domestic help. Ma had a hard time accepting this. She started working in someone’s house for a monthly wage of Rs 150/-. Soon she was working in 5-6 houses. I used to accompany her to work. My siblings were still in a village home with an uncle. But none of us were going to school. Nor did I get time to play anymore. The responsibility of the family was then on our shoulders – my mother’s and mine.
Getting Admission in School
I used to feel very sad when I saw the children in the neighbourhood going off to school in their beautiful uniforms. I would ask them where the school was, and how one could get admitted there.
One day I went to the school on my own, and after talking with the teachers there, gave a pre-admission test. They said they would admit me in class III, and asked me to return with my parents the next day. I knew that if my mother took leave, she would be fired. And I didn’t dare ask my father – he might scold or beat me up! I burst into tears and told the teachers that neither parent would be able to accompany me tomorrow. They consoled me and asked me to bring the admission money the next day. I think it was Rs.15/-. I was very worried – would mother be able to pay the amount? I went back home and told her everything. “All right,” she said. “You will go to school.” I was overjoyed! as though I found a laddu in my hands.

In the meantime we found ourselves a place to stay. The rent was Rs 150. The room was nice, and looked just like a wooden box. But it wasn’t as beautiful as the old house of our childhood. Anyhow, we had my siblings brought over to Kolkata, and got them admitted to school as well.
Life in Kolkata
At this time, there was one thing that struck me. My mother and I were out of home all day, and my father, who wasn’t working, could well afford to take care of my siblings, but he didn’t. Because society says that it is the woman’s job to look after the children, and the man’s job is to support the family. My father did neither – neither did he support the family, nor did he stay at home to look after his young children. He would instead be playing cards or drinking with others. There were railway lines just in front of our home, my siblings had to cross four tracks just to use the toilet. Despite these risks, my father refused to take the responsibility of looking after them. And it was again Ma or me who would help them with their studies.

I remember that I was then about 15-16 years old, and studying in class VII. My daily routine was: Go to school early in the morning. After school, go to work. After finishing work in one house, cook for everybody. Then take food to my mother and reach the second house where I worked latest by 2 pm. If I was later than that, I would be ticked off badly. In this house I had to look after the kids, drop them off to school and fetch them later, feed them at the proper hours, fold and iron clothes, cook, take the kids out to play... By the time I started ironing clothes after lunch, I'd feel terribly sleepy. Many a time i'd fall asleep on my feet and burn my hands with the hot iron. Sometimes I burned clothes accidentally because I couldn’t keep my eyes open. At 8:30 in the night, mother would come to fetch me, and we would go home together. We would again have to start working immediately. Ma would start to cook, and I would go to the market to buy vegetables. She would cook these when I returned. After finishing everything and feeding my siblings, I would then go out to look for my father.
My father’s role
My father would be drinking or playing cards with his gang somewhere. After I had fetched him home, Ma would finally serve food. He would not come when called. He would return at midnight, or at 1 in the morning. And the entire time mother, after labouring like a mule the whole day, would have to wait for him on an empty stomach, because a wife shouldn’t eat before her husband has eaten. She wouldn’t eat even if we asked her to. Nor did she say anything to him. How could she speak out? It would start a fight and beatings immediately! He would beat her, he would beat me, and all the shouting would wake up my young siblings as well. So Ma kept quiet.

So many nights passed when we went to bed hungry. Though we didn’t say anything to him, the neighbours did. Everyone asked him, “Why do you behave like this every single day?” In his unreasonable fits of rage, he would pour water on the cooked rice, he would kick the pot, spilling the rice on the floor. We used to cry then. My brother and sister would hide behind me. And along with this, we had to give all our earnings to him. He had a right to even that, whether he spent it on the family or whether he used it to buy his liquor. These were apparently the rules of society. Does the right to spend money rest with the men only? At this time, father would do whatever job he got, and he hardly contributed anything to the family. It was me and Ma who ran the family. And sometimes we had to fund his personal expenses as well.
I said NO
One night it was past 12, and my father still hadn’t returned. I was studying. Ma and I would eat once he came home. As soon as he entered, he asked my mother for money to buy liquor. I knew that Ma didn’t have anything; it was the end of the month. We owed money to a number of shops, and would be able to pay them only when Ma received her wages. But as soon as she told my father this, he started raining blows and abuses.

All this while I used to feel scared and get beaten. I don’t know what happened that day, but after a while I went and stood between them, and said, “No! No money will be given for buying alcohol. And don’t beat Ma.” At once he started abusing me too and slapping both my cheeks. This didn’t stop me. I continued to speak out. “We run the family. And we won’t pay for your drinks.” There was a big stick lying there. My father took it up and struck my head. The stick broke, and for a while, I lost consciousness. After a while, I regained my senses and took up my protest again.
After that, whenever he behaved like that, I would start protesting. I was no longer scared of him.
Gender Workshop – the turning point
Amidst all this I continued my education – and completed my Masters. It was around this time in 2006 that I came in touch with TF. The turning point for me was however when I participated in a Gender Workshop organised by them. I found that the subjects being discussed were the same as those that I had witnessed all my life at home and in my neighbourhood. At first I found myself unable to join the discussion. It was too painful. I began to understand that what had happened all these years at home had a name. It was called Violence.
My father beating my mother was an everyday occurrence at home. But I had never understood that this conflict at home was actually a part of the greater social phenomenon of violence. I could finally understand why my father fought with my mother on the subject of money. Society has said that only men have the right to spend money. I found myself thinking that domestic violence was a common occurrence in every home I knew – then why did people keep silent and tolerate it all. And perhaps with this question, my journey towards transforming myself and bringing change outside of myself really started.

Earlier I only protested against my own father’s behaviour from instinct. But when I realised that violence is not merely a personal matter, but is a social problem, I felt the need to talk about it and protest on a larger scale. Everyone would have to speak out. Only then a change might come. It was necessary to recognise and fight against the different kinds of violence being committed against women daily in society, and to fight for the cause of women getting equal opportunities and rights.

I was lucky to be selected for a year-long leadership programme by TF and my world opened up. I learnt to analyse and understand myself better, recognise my strengths, and my weaknesses, my dreams… I began to build dreams for my neighbourhood. I also learnt better communication skills, strategies to resolve conflicts with my parents as well as my friends, and much more.
During this time, I often felt that the young people in my neighbourhood were missing out on the opportunities that I was receiving during the trainings. And though domestic violence was happening across households, they neither had the awareness nor the means to protest against it. Many of the young ones were keen to interact with me, but were deterred by their families. Because I wasn’t womanly, I broke rules, I was a tomboy.
Building Ujaan
Still, I did succeed in gathering young people to join. Initially we used to organise blood donation camps and organise Kali pujas as part of the local Club. Then some of us began to feel that this wasn’t enough. Our neighbourhood had many problems – early marriage, domestic violence, adolescent issues – we needed to talk about these issues, work on them. We started having differences with the Club on this subject, and a bunch of us eventually parted ways with the club to create our own group. We called our group Lake Gardens Ujaan. Ujaan means going against the tide.

Here I started conducting the same trainings that had brought about so many changes in me. I used to feel that, equipped with these trainings, the boys and girls of my neighbourhood would, like me, find a new meaning in their lives. Our dream is of having a community where there are equal relationships between men and women, where girls and boys would enjoy equal opportunities and rights.
Today our group is a registered organisation, and has many trained capable members, those who will be able to take it forward even if I am not there. Our efforts now are directed towards establishing the group as a sustainable community-based organisation and reaching out to many vulnerable adolescents in our community.

We are also trying to bring in projects for the group. We applied and won our first grant of Rs.65,000/- last year [2013].
My world became bigger
Meanwhile as a youth trainer I have helped form many new youth groups just like mine and train other organisations on gender, domestic violence and reproductive health.
Over the last year my world expanded when I began sharing my experiences on the blog and people got in touch; and also when I got a chance to attend a conference in Malaysia. I am the first person in my family and perhaps my community to travel so far. At Malaysia I found it interesting to hear women from all 149 countries talk about their struggle for equality. I experienced firsthand that this struggle was just not my own or limited to my community.
My Marriage – My way
I have been able to live up to my values in my personal life. In a community where child marriage is still prevalent I married a college friend at 32. I could ensure that it was a dowry-free marriage. Instead of sitting dolled up like most brides and grooms, exchanging garlands when the time comes, my partner and I financed our own marriage and did most of the work involved in organising the event.

Today I feel good that I have been able to overcome many challenges posed to me by society, and build myself as a capable, independent and confident human being who is not only making progress in her own life, but is also blessed with the opportunity to contribute heart and soul to the betterment of society.
Message to Others
Nothing is impossible in life. Never give up and accept defeat. If you try, a path will emerge. If you lose your way on one path, try and look for another. You will definitely find it. And Education is the most effective tool for transforming your life. Do not stop, move forward.


আমার নেতৃত্বের যাত্রা

আমি কৃষ্ণা গোলদার। বাড়ি লেক গার্ডেন্সের গোবিন্দপুর বস্তিতে। আমি লেকগার্ডেন্স উজান গ্রুপের একজন প্রতিষ্ঠাতা এবং সেক্রেটারি। আমি খুব গর্ব বোধ করি যে এই গ্রুপটা আমি এবং আমার পাড়ার ছেলে মেয়েরা মিলে তৈরি করেছি। এছাড়াও আমি থটশপ ফাউন্ডেশন এর একজন youth trainer।

ছোটবেলায় আমরা নিউ ব্যারাকপুরে নিজেদের বাড়িতে থাকতাম, যেটা কলকাতা থেকে বেশ খানিকটা ভিতরে। আমরা তিন ভাই-বোন সকলেই স্কুলে যেতাম, মা বাড়িতে থাকত আর সবসময় আমাদের সঙ্গে সময় কাটাত,আমাদের পড়াত। বাবার নিজের একটা মাংসের দোকান চালাত। সারাদিন দোকান করে ফিরে বাবা বন্ধুদের সঙ্গে তাস খেলতো, মদ খেত। আমরা কিছু ভুল করলেই পিঠে লাঠি পড়ত; ঢাকিরা যেমন লাঠি দিয়ে পুজার সময় ঢাক বাজায়। আমরা ভীষণ ভয় পেতাম বাবার রাগকে। কোন কিছু কখনো বলার সাহসই পেতাম না। তা সত্ত্বে এটা সুখের সময় ছিল, তখন আমরা খেলাধুলা আর পড়াশোনা এগুলোই করতাম। যেমন অন্য বাচ্চাদের করা উচিত।

এক কালী পূজোর সময় আমরা মামার বাড়িতে বেড়াতে আসি। সেই সময় সম্পত্তি নিয়ে বাবা, কাকা, ও জ্যাঠার মধ্যে একটা দ্বন্দ্ব বাধে। আর সেটা বাবা আর কাকার মধ্যে ভীষণ হিংসাত্মক একটা মারামারি হয়, যার ফলে আমাদের জীবনটা রাতা রাতি পাল্টে যায়। সেদিনের পর আমাদের নিজেদের সেই সুন্দর বাড়িটাতে আর ফেরা হল না।

বাবা মামার সঙ্গে প্যান্ডেলের কাজ শুরু করেছিল, কিন্ত সে কাজতো রোজ হয়না এবং তাতে সংসার চলেনা। মায়ের ভীষণ চিন্তা হত যে, আমরা কি খাব? কোথায় থাকবো? এই সময় আমাদের পড়াশুনাও বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এর পর মা, বাবা আর আমি কলকাতায় চলে আসি। আমাদের ছোট মামার বস্তির মধ্যে একটা ঘর ছিল, যেখানে দু-তিনজন কোনো ভাবে থাকা যায়। তার মধ্যে মামা, মামী, তাদের দুই ছেলে, আবার আমরা তিন জন ঠেসাঠেসি করে থাকতে শুরু করলাম। আমি কোনো ভাবে মামার দুই ছেলের সঙ্গে ঘরে জায়গা করে নিতাম, কিন্ত বাবা-মাকে ঘুমোতে হত বস্তির দুটো ঘরের মাঝে একটু সরু গলির মত একটা জায়গায়।

মাকে বিয়ের আগে বাড়িতে সেভাবে কোন কাজ করতে হয়নি। কিন্ত আমাদের এই পরিস্থিতিতে মাকে ভাবতে হল কিভাবে একটু রোজগার করা যায়। আর তখন অজানা জায়গায় কাজ পাওয়ার সবচেয়ে সহজ উপায় ছিল লোকের বাড়িতে কাজ করা। এটা মানতে মায়ের খুব কষ্ট হয়েছিল। কিন্ত নিরুপায়, মা একটা বাড়িতে ১৫০ টাকার মাইনেতে একটা কাজে লেগে গেল। ক্রমশ মা ৫-৬টা বাড়িতে কাজ করতে শুরু করল। আমিও মায়ের সঙ্গে কাজে যেতাম। ভাই-বোন তখনো মামার গ্রামের বাড়িতে থাকতো। কিন্তু তখন আমরা কেউ স্কুলে যেতাম না। এমন কি আমি খেলাধুলার সময়তো পেতামই না। আমার আর মায়ের ওপর তখন সংসারের দায়িত্ব।

আমার খুব দুঃখ হত যখন দেখতাম আমাদের আশেপাশের বাচ্চারা সুন্দর ড্রেস পরে স্কুলে যায়। আমি ওদের জিজ্ঞাসা করতাম কোথায় স্কুল, সেখানে কিভাবে ভর্তি হওয়া যায়। তারপর একদিন নিজেই সেই স্কুলে চলে গিয়ে সেখানে দিদিমণিদের সঙ্গে কথা বললাম; ভর্তি হওয়ার জন্য পরীক্ষাও দিলাম। তারা আমাকে ক্লাস III-তে ভর্তি হওয়ার জন্য বললেন, আর পরের দিন বাবা-মাকে নিয়ে আসতে বললেন। আমি জানতাম যে মায়ের ছুটি হবে না, তাহলে কাজ চলে যাবে। আর বাবাকে বলার সাহস ছিলনা – যদি বকে বা মারে তাই! আমি তখন কাঁদতে কাঁদতে বলি যে আমার মা বাবা কেউ আসতে পারবে না। দিদিমণিরা সান্ত্বনা দিয়ে বুঝিয়ে বললেন কাল টাকা নিয়ে এসে ভর্তি হয়ে যেতে। মনে হয় ১৫ টাকা মাইনে ছিল। আমার তো খুব চিন্তা হতে লাগলো – মা পারবে তো এই টাকাটা দিতে? মাকে গিয়ে সব কথা বলার পর মা বললেন “ঠিক আছে তুই স্কুলে যাবি”। আমার ভীষণ আনন্দ হল, যেন হাতে লাড্ডু পেয়ে গেছি!

ইতিমধ্যে একটা ভালো জিনিস হল, আমরা থাকার জন্য একটা ঘর পেয়ে গেলাম। ভাড়া ১৫০ টাকা। ঘরটা দারুণ ছিল, ঠিক যেন একটা কাঠের বাক্সের মত। কিন্ত আমাদের পুরনো বাড়িটার মত সুন্দর ছিলনা। যাই হোক এর পরই আমি মাকে বলে ভাই আর বোনকে কলকাতায় নিয়ে আসলাম আর ওদেরকেও স্কুলে ভর্তি করে দিলাম।

এই সময় একটা কথা আমার খুব মনে হত। আমি আর মা সারা দিন বাড়িতে থাকতাম না, আর বাবা থেকেও ভাই-বোন দের দেখা শোনা করত না। কারণ সমাজ বলে যে, বাচ্চাদের দেখাশোনা করাটা মেয়েদের কাজ আর সংসার চালানো ছেলেদের কাজ। বাবা কোনটাই করত না বাবা সংসারও চালাতো না, বাচ্চাদের দেখা শোনার জন্য বাড়িতেও থাকত না। বরং তাসের আড্ডায় বা মদের আড্ডায় থাকত। আমাদের বাড়ির ঠিক সামনে রেল লাইন ছিল, ভাই-বোনকে বাথরুম যেতে হলে চারটে রেল লাইন পার করে যেতে হত। এত ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও বাবা ওদের দেখা শোনা করতে রাজী ছিল না। আমি বা মা-ই ওদের পড়া শোনা দেখিয়ে দিতাম।

মনে পড়ে তখন আমার বয়স ১৫- ১৬ হবে, ক্লাস VIIএ পড়ি। তখন আমার রুটিন ছিল ভোরবেলা স্কুলে যাওয়া। স্কুল থেকে ফিরে কাজে যাওয়া। এক বাড়ি কাজ করে বাড়ি ফেরা, তার পর সকলের জন্য রান্না করা। তার পর মায়ের খাবার পৌঁছে দিয়ে ঠিক ২ টোর মধ্যে আবার কাজে ঢোকা। দেরি হলে কাজের বাড়িতে খুব বকা খেতে হত। কাজের বাড়িতে আমার বিভিন্ন দায়িত্ব ছিল - বাচ্চাদের দেখাশোনা করা, ওদের স্কুলে দিয়ে আসা - নিয়ে আসা, ঠিক সময়ে খাবার দেওয়া, জামা-কাপড় ভাজ করা, ইস্ত্রি করা, রান্না করা, বাচ্চাদের খেলতে নিয়ে যাওয়া – এগুলো সব আমার দায়িত্ব ছিল। দুপুরে খাওয়ার পর ইস্ত্রি করতে গিয়ে কতবার ঘুমিয়ে গরম ইস্ত্রির ছেঁকা খেয়েছি, আবার লাফিয়ে উঠেছি।

কখনো-কখনো চোখ ঘুমে ঢলে এসেছে, আবার কখনো কখনো জামা-কাপড় পুড়িয়েও ফেলেছি। রাত সাড়ে আটটায় মা আমাকে নিতে আসত, আর আমরা এক সাথে বাড়ি ফিরতাম। এসেই বাড়ির কাজে লেগে যেতাম। মা রান্না শুরু করত, আমি বাজার করে আনতাম, তারপর মা তরকারি করত। সমস্ত শেষ করে ভাই-বোনকে খাইয়ে দিয়ে তার পর আমি বাবাকে খুঁজতে যেতাম, কখনো তাসের আড্ডায়, কখনো মদের আড্ডায়। প্রতি দিন বাবাকে ডেকে আনার পর মা খেতে দিত। ডাকলেই যে বাবা চলে আসত তেমনটাও নয়। বাবা ফিরত নিজের ইচ্ছে মত। কখনো রাত ১২ টায়, কখনো রাত ১টায়। মাকে বসে থাকতে হত, কারণ স্বামীকে না খায়িয়ে স্ত্রীর খেতে নেই। আর আমার মা সেই সারাদিন গাধার খাটুনি খেটেও বসে থাকত। বললেও খেত না। কিছু বলতও না বাবাকে। কি করেই বা বলবে? বললেই ঝগড়া মারামারি। সে কি মার! মাকে মারবে, আমাকে মারবে, চেঁচামেচির চোটে ঘুমিয়ে থাকা ভাই-বোনও উঠে পড়বে। মা তাই চুপ করে থাকত। না খেয়েই কত রাত ঘুমিয়ে পড়েছি আমরা। আমরা না বললেও আশে-পাশের সবাই বলত বাবাকে, “কেন রোজ রোজ এই রকম কর তুমি?” রান্না-ভাতে বাবা জল ঢেলে দিত, ভাত উল্টে ফেলে দিত, আর আমরা খুব কাঁদতাম। আমার পিছনে আমার ছোট ভাই-বোন দুটো লুকিয়ে পড়ত। এ সবের সাথে-সাথে মায়ের এবং আমার রোজগারের টাকাও বাবার হাতে তুলে দিতে হত। সেই টাকাতেও নাকি বাবার অধিকার, তা বাবা সংসারে খরচ করুক বা মদের ওপর ওড়াক। সেটাই নাকি নিয়ম আমাদের সমাজের। অর্থের অধিকার নাকি শুধু ছেলেদের হাতেই থাকে? বাবা সে সময় যখন যা কাজ পেত তাই করত সংসারে তেমন কিছু দিতনা। সংসার তো মা আর আমি চালাতাম। মাঝে-মাঝে বাবার হাত খরচের টাকাও আমাদেরই যোগাতে হত।

এই রকমই এক দিন রাত্রি ১২ টা বেজে গেছে, তখনও বাবা আসেনি। আমি পড়তে বসেছি, বাবা এলে এক সাথে মা আর আমি খাবো। সেদিন রাতে বাবা এসে মায়ের কাছে মদ খাওয়ার জন্য টাকা চাইল। মায়ের কাছে টাকা নেই জানতাম, কারণ মাসের শেষ। দোকানে দোকানে সারা মাস তখন আমাদের বাকি চলত। মা মাইনে পেলে শোধ করতাম। যেই মা বলেছে টাকা নেই, ব্যাস অমনি ঝগড়া, গালাগালি আর মার শুরু হয়ে গেল। এত দিন আমি চুপ চাপ ভয় পেতাম আর মার খেতাম। সেদিন কি হল, অনেক ক্ষণ দেখার পর আমি গিয়ে বাবা আর মায়ের মাঝখানে দাঁড়িয়ে বলে উঠলাম যে “না! টাকা দেব না। মদ খাওয়ার জন্য টাকা দেওয়া হবে না। মাকে মারবেননা” যেই বলেছি ওমনি গালাগালি আর দু-গালে থাপ্পর মারতে থাকে বাবা। আমিও থামিনা। বলেই যাই “সংসার আমরা চালাই। আমরা আপনার মদ খাওয়ার টাকা দেব না”

সামনে একটা বড় লাঠি ছিল, বাবা ওটা দিয়েই আমার মাথার মাঝা মাঝি খুব জোরে মারে। লাঠিটা দু-টুকরো হয়ে যায়। আর আমি একটু ক্ষণের জন্য জ্ঞান হারাই। একটু বাদেই জ্ঞান ফেরে, আর আমি সাথে-সাথে আবার শুরু করি আমার প্রতিবাদ। তার পর থেকে যখনই এমন হত আমিও প্রতিবাদ করতাম। বাবার সঙ্গে প্রচুর ঝগড়া করেছি। এখন আর ভয় পাইনা বাবাকে,অনেক কথা বলতে পারি।

এরই মধ্যে দিয়ে আমার লেখাপড়া শেষ করি, অনার্স পাশ করি এবং MA করি। ২০০৭ সালে থটশপ ফাউন্ডেশন -এর সঙ্গে আমার যোগাযোগ হয়। আমার জিবনের মোড় ঘুরে যায় যখন আমি একটা Gender workshop এ আংশগ্রহন করি। এসে দেখলাম যে আলোচনার বিষয় হল সেগুলোই যেগুলো আমি আমার বাড়িতে এবং আমার পাড়ায় প্রতিদিন দেখি। প্রথমে আলোচনায় অংশগ্রহণ করতে পারছিলাম না, খুব কষ্ট হচ্ছিল। বুঝতে পারছিলাম যে এত বছর বাড়িতে যা ঘটে এসেছে, সেটার নাম হিংসা।

আমার বাবা মাকে মার ধোর করা – এটাতো রোজই দেখতাম। আগে কোনোদিনও বুঝিনি যে আমাদের পারিবারিক এই সংঘর্ষ আসলে সামাজিক হিংসারই অংশবিশেষ। মায়ের সঙ্গে টাকা নিয়ে বাবার যে ঝগড়া, সেটার উৎস বুঝতে পারলাম। সমাজ বলেছে যে টাকার লেনদেনের সঙ্গে মেয়েদের কোনো সম্পর্ক নেই। টাকা খরচা করার অধিকার শুধু মাত্র ছেলেদের । তখন ভাবলাম যে পারিবারিক হিংসাতো সব বাড়িতেই হয়, তাহলে সবাই চুপ করে সহ্য করে কেন? নিজের জীবনের সঙ্গে সামাজিক ধারাটাকে মিলাতে পেরে এই প্রশ্নটা করেছিলাম – আর এখান থেকেই হয়ত আমার পরিবর্তিত হওয়ার আর পরিবর্তন আনার যাত্রা শুরুহল।

আগে শুধু বাবার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ কতাম। কিন্ত যখন বুঝলাম যে হিংসা শুধুমাত্র একটা ব্যক্তিগত বিষয় নয়, এটা একটা সামাজিক সমস্যা, তখন এটা নিয়ে কথাবলার বা প্রতিবাদ করার প্রয়োজনটা উপলব্ধি করলাম। সবাইকে প্রতিবাদ করতে হবে। তাহলে হয়ত আমাদের সমাজে একটা পরিবর্তন আসতে পারে। সমাজে রোজ ঘটে চলেছে যে বিভিন্ন ধরনের হিংসা, সেগুলো চিনতে পারা, মেয়েদের সমান সুযোগ ও অধিকার পাওয়ার জন্য লড়া প্রয়োজন।

আমি খুব লাকি যে থটশপে আমাকে একটা এক বছরের লিডারশিপ প্রোগ্রামের জন্ন্যে সিলেক্ট করা হয়, এবং আমার পৃথিবীটা যেন মুক্ত হয়ে যায়। এর পর আরো অনেক ট্রেনিং নিতে থাকি। আর এই ট্রেনিং নেওয়ার সাথে-সাথে বিভিন্ন জিনিস শিখতে শিখতে চলি। নিজেকে বোঝা ও বিশ্লেষণ করা, নিজের ক্ষমতার জায়গা গুলো কি আর দুর্বলতাই বা কোনখানে, নিজের স্বপ্ন, নিজের পাড়াকে ও পারিপার্শ্বিক কি করে উন্নত করা যায়, অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপণ করা ও বাবা-মায়ের সঙ্গে এবং বন্ধুদের সঙ্গে দ্বন্দের সমাধান কিভাবে করা যায় সেই জীবনশৈলী - আরো অনেক কিছু শিখেছি।

এই সময় প্রায়ই আমার মনে হতো যে আমার পাড়ার যুবরা সেই সমস্ত সুযোগগুলো থেকে বঞ্চিত থকছে যেগুলো আমি এই ট্রেনিং থেকে পেয়েছি। আর যেখানে পারিবারিক হিংসা প্রতিটি বাড়িতে ঘটছে, তাদের মধ্যে এই বিষয়ে কোন সচেতনতা নেই এবং তারা এটা নিয়ে কোন প্রতিবাদও করার প্রয়োজন মনে করে না। অনেক ইয়াং ছেলে-মেয়েরাই আমার সঙ্গে কথা বলত, কিন্তু অনেক সময় তাদের বাবা মায়েরা তাদের আসা বন্ধ করে দিতো। কারণ আমি মেয়েরা যেমন ব্যবহার করে তেমন ছিলাম না। আমি নিয়ম ভাংতাম, ডানপিটে ছিলাম।

তবুও এরই মধ্যে দিয়ে আমি যুবদের একসাথে করতে পারতাম। আমরা পড়ার ক্লাবের সাথে হয়ে রক্তদান শিবিরের এবং কালী পূজা আয়োজন করতাম। তারপর আমরা কয়েকজন ভাবলাম যে এটাই যথেষ্ট নয়। আমাদের পাড়াতে আর অনেক সামস্যা আছে - অল্প বয়েসে বিয়ে, পারিবারিক হিংশা, বয়ঃসন্ধি কালের সমস্যা। আমাদের এই বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলা এবং কাজ করার দরকার আছে। এই নিয়ে আমাদের ক্লাবের সাথে মতবিরোধ শুরু হয় এবং আমরা কয়েকজন সেই সময় থেকেই আলাদা হয়ে যাই, আর আমরা আমদের গ্রুপটা তরী করি। আমাদের গ্রুপের নাম লেক গার্ডেন্স উজান। উজান মানে স্রোতের বিপরীতে যাওয়া।

এখানে আমি সেই সমস্ত ট্রেনিংগুলো করাতে শুরু করি যেগুলো আমার মধ্যে আনেক পরিবর্তন এনেছিল। আমার মনে হতো এই ট্রেনিংগুলোর মাধ্যমে পাড়ার ছেলে মেয়েরা আমারি মতো তাদের জীবনের নতুন মানে খুঁজে পাবে। আমাদের স্বপ্ন হল এমন একটা পাড়া যেখানে মহিলা এবং পুরুষের সমান সম্পর্ক, যেখানে মেয়েরা এবং ছেলেরা সমান সুযোগ এবং সমান অধিকার পাবে।

আজ আমাদের গ্রুপ রেজিস্টার্ড, আর অনেকজন দক্ষ, প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত সদস্য আছে, যারা এই দলটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে যদি আমি নাও থাকি। এখন আমাদের লক্ষ্য হল যে আমরা আমাদের দলকে community based organisation হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা এবং আমদের পাড়ার বয়ঃসান্ধিকালের ছেলে-মেয়েদের কাছে পৌঁছানো।

আমরা এখন চেষ্টা করছি বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রোজেক্ট আনার। গত বছর [২০১৩] অ্যাপ্লাই করে আমরা প্রথম ৬৫০০০/- টাকার প্রোজেক্ট পেলাম।

এরই মধ্যে আমি একজন ইয়ুথ ট্রেনার আর আমি অনেক নতুন গ্রুপ তরী করতে সাহায্য করি, আমার গ্রুপের মত, এবং অন্য সংস্থায় গিয়ে তাদরে সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ট্রেনিং করাই – জেন্ডার, পারিবারিক হিংসা, প্রজনন স্বাস্থ্য।

গত বছর আমার থেকে আমার পৃথিবীটা আর বড় হয়ে গেল। যখন আমার অভিজ্ঞতার কথা ব্লগে শেয়ার করতে শুরু করি, এবং অন্য মানুষেরাও তাদের মতামত দিতে থাকে। আরো যখন আমি একটা সুযোগ পেলাম মালএশিয়াতে একটা কনফারেন্সে আংশগ্রহণ করার। আমি আমার পরিবারের প্রথম, হয়তো আমার পাড়ারও প্রথম, যে এত দূরে গেলাম। মালএশিয়াতে আমি একটা আদ্ভুত ব্যাপার শুনতে পেলাম - ১৪৯ টা দেশের মহিলারা তাদের সমান আধিকারের জন্যে এখনো লড়াই করে যাচ্ছে। যেটা আমি নিজে প্রথমে অভিজ্ঞতা লাভ করেছি, এটা শুধু মাত্র আমার এবং পাড়ার মধ্যে সিমাব্ধ নয়।

নিজের ব্যক্তিগত জীবনেও এই মূল্যবোধগুলোকে নিয়ে চলতে পারি। আমার পাড়াতে যেখানে আজও আল্প বয়েসে বিয়ে হয়, আমি বিয়ে করি ৩২ বছর বয়সে। আমি খুব জোরের সাথে বলতে পারি যে, এই বিয়েতে কোনো পণের লেনদেন হয়নি, আর শুধুমাত্র পুতুলের মত সেজে-গুজে বর-বৌ বসে যাইনি। আমি এবং আমার পার্টনার আমরা দুজনে মিলে বিয়ের সমস্ত খরচ এবং কাজগুলো করেছি। আজ আমি খুব গর্ব বোধ করি কারণ আমি অনেক চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করে এসে আজ আমি সক্ষম, স্বাধীন ও আত্মবিশ্বাসী একজন মানুষ হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে পেরেছি, এবং নিজের সঙ্গে-সঙ্গে নিজের সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য মন-প্রাণ দিয়ে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছি।

Message – জীবনে কোন কিছুই অসম্ভব নয়। কখনো হার মেনে যেওনা, চেষ্টা করলে পথ পাওয়া যায়। যদি একটা পথে হেরে যাও, তাহলে অন্য কোনো পথ খোঁজার চেষ্টা কর, তুমি নিশ্চয়ই খুঁজে পাবে। আর লেখাপড়া শেখার গুরুত্ব অপরিসীম; শিক্ষা তোমার জীবনটাকে পাল্টানোর সবচাইতে বড় মাধ্যম। থেমে থেকোনা, এগিয়ে চল।
 

2 comments:

  1. Anonymous7/15/2014

    Your powerful personal story and journey will inspire many youth as well as adults to emulate you and to help towards making Ujaan and other similar organizations stronger and bigger. My heart is full of pride and admiration for you - and I am feeling extremely inspired to help you and others like you. Thank you, dearest Krishna for sharing your very personal and private journey with so much courage and honesty. A big hug. Mira Kakkar

    ReplyDelete
    Replies
    1. Anonymous8/26/2014

      Thank you Mira di, you always support me.
      Krishna

      Delete

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here