12 Jul 2014

My Leadership Journey - Bandana

Bandana is a member of YRC Ujaan
Youth Facilitator

I am Bandana Makhal. I stay in a small slum in Gobindopur in Kolkata’s Lake Gardens area. We are three siblings. My elder brother and younger sister are both married. My brother stays separately with his wife and kids in our house in Garia. My sister got married last year, and she stays with her in-laws. So now, at home, there is me and there are my parents. My father is a mason and my mother works as a domestic help.
Childhood
Our financial situation was not good. As a child, my brother was only interested playing and my sister remained busy with housework. None of them took that much of an interest in studies. But I was always keen on studies. Most of the day, I would sit immersed in my books. I would rarely go out or interact with our neighbours. My dream ever since childhood was to teach in a school. So whenever we friends would play at being teacher and student, I used to hang a towel from my head and pretend it was my long hair hanging down my back. I would be the teacher and the rest of my friends be my students.
"stupid" child
As a child, I was known to my family and neighbours as a quiet, obedient girl. I would listen to whatever my parents told me; I never flouted their authority. I was also quite a stupid child. I remember an incident which proves how stupid I was back then. I was an 8 year old studying in class III. One winter evening I had gone for tuitions to my teacher "aunty's" house. Aunty had lit a coil of mosquito repellent. After a while, when the mosquitoes reduced, she asked me to go and extinguish the coil. I went to the verandah and tried my best to extinguish the coil by knocking it against the floor, but failed. I got scared that if I wasn’t able to properly follow aunty’s instructions, I would get a scolding. I felt I had to extinguish it by any means, so I broke off the lit part of the coil and hid it in the folds of my sweater, scared that if aunty discovered the broken bit, I would get scolded for breaking it. Then I went in again and started on my lessons. But I was no longer able to concentrate because the broken bit of the coil continued to burn into my clothes and scorch me. After a while, it even began to smoke. Seeing the smoke, aunty asked my friends to leave the room, then undressed me to find the bit of the coil still alight under my clothes. Even at that point of time, I was unable to tell her the truth about how it got there. Aunty made me take off my clothes, and dressed me in a frock and sweater belonging to her sister. I still laugh when I remember this incident, and realize how stupid I was.

For this reason, my parents always used to be very worried about me – what would this stupid daughter of theirs do in life? She would achieve nothing. I used to feel very bad when I heard this, but was unable to protest. It was true, wasn’t it, that I was indeed stupid and would really be incapable of doing anything in life. But just as I used to get scolded for these stupid things that I did, and for speaking very less, I also used to get affection from my parents for getting good results in school.

Gradually I stepped into adolescence, and it seemed to me that my mother grew all the more careful about my upbringing. She restricted my going-out, and told me to keep my distance from boys. I had no idea why my mother was saying all this. Though I heard about adolescent changes from my friends, and noticed the same changes starting to happen in my own self, I did not discuss these things with anybody. I felt shy about doing so, and besides I believed that only bad girls talk about these things – that these things should not be discussed.
A camp
It was soon after I had completed my Madhyamik exams, that Krishna who lived our neighbourhood visited us and convinced my parents about allowing me to accompany her and some others to a residential camp. My parents agreed, but they were still worried about me. Before this, I had never gone anywhere like that without my parents. I myself was very happy at this opportunity. It was the first time I got to visit a different state. I made a lot of new friends at this camp. Also, it was at this camp that I got the chance to think about myself in a way that I had never experienced or imagined before. For the first time, I thought about the qualities that I uniquely possessed and the things that I was capable of doing, realizing in the process that I had many good qualities and I was capable of doing a lot of things.
A Gender Workshop
After returning from the camp, Krishnadi, who had taken us there created a group with some boys and girls from our neighbourhood. And it was through this group that one day I got the opportunity to come to TF to participate in a Gender workshop. This workshop helped me think for the first time how girls were being neglected by our society, and how much society was responsible for the backwardness of its women. I felt that these stereotypical behaviours and thoughts held by society needed to change and to bring about this change, girls needed to protest, girls needed to come forward.
I had to speak out
In the meantime, a situation arose where I felt the need to protest in my own life. After I qualified my Higher Secondary, my father told me, “It is enough for girls from a family such as ours to pass the Madhyamik examination. You have qualified the Higher Secondary also. We won’t be able to support your education any further. Besides, if you study further, it will become more difficult to find a suitable groom for you, and we don’t have the monetary capacity to get you married into highly educated families. So you should put a stop to your education here.”

I felt very sad on hearing these words from my father. It was as if my dreams were getting crushed in front of my eyes. I stopped eating for two-three days, cried a lot to my mother. Then I thought, this kind of behavior is going to change nothing. I should talk to my father about this. So I told my father, “If a boy can go for higher education, if a boy can support his family, then I can too! I want to study further and go on to support my family. However much is possible, I will bear the expenses for my education myself.” My parents were then compelled to give me money to get admitted to the 1st year of college. I used to attend morning college and later give tuitions to children.
Learning and Earning
I also got a chance to work on projects and earn some money. I was trained in research skills at TF and was involved in a survey for the We Can Campaign Impact Assessment on Gender attitudes. My ability to listen to people and record verbatim what they said was appreciated here and I discovered another strength I had. This research training later helped me work on a Government Census Project for two consecutive years. Later TF gave me a project to interview children and write out their stories of change. In this way, I managed to earn and bear the expenses for the next two years of college myself. In 2012, I successfully completed my graduation. Now my parents proudly tell others that their daughter is the first graduate in the family!
Active member of my group Ujaan
Along with my education, I became a regular and active member of our Ujaan group. I signed up to be trained as a Peer Counsellor too. This training helped me understand better how to connect with and support people emotionally. It greatly improved my ability to relate with people - parents and adolescents - and I want to continue this support through my group.

At first my parents objected to this as well, saying, “How are you benefitting by being part of the group? Is it a job?” At first, I did not know how to answer my parents. But gradually I came to realise that I had never got opportunities such as the TF trainings before, but now I had access them to through this group. If I had been exposed to these trainings before, perhaps the wrong assumptions I had held on to during my adolescence would never have grown in me.
Developing my Identity
To put an end to my parents’ objections about the group, one day I took them to a group event. They came back praising our work a lot. Now in our group we discuss about the different problems plaguing our neighbourhood, and think actively about possible solutions. If we see anything wrong happening anywhere, we try to protest against it. And when my neighbourhood people say, “The quiet Bandana we knew has now learnt to spout a lot of words!”, I tell them, “I am not speaking of useless things – what I am saying now needs to be said.” In this way, I have started growing an identity for myself in our area.

Last year, my sister’s marriage was being fixed with the boy she was in a relationship with, and the boy’s side asked for dowry. When I protested against it, my parents said that it was futile to make trouble for a certain amount of money. I told them as well as my sister that if I had been in her place, I would never have gotten married if I had to pay dowry. If my in-laws didn’t agree to that, I would have cancelled the marriage. It is my vow that I will never get into a marriage where I’m expected to pay dowry.

After my graduation, I got a chance to become a computer trainer in the training centre where I had been enrolled as a student in my 1st year of college. I was enjoying this work, and this job allowed me to financially contribute to my family as well. But I had to put in a lot of hours here, from 11am to 7.30 pm, and after a while I started to feel that I needed to develop myself more in certain areas, for which I didn’t have time in a full-time job. Such a job was also not allowing me to invest time in my group.

My dreams for Ujaan and my community
Our community is still riddled with lots of problems; to find a solution for these, we needed to give more time to the group and to the community. My dream is to make our group into a formal community based organisation.
My wish is that all the children in our community have a chance to discover their strengths and fulfil their dreams. I wish that their world opens up like mine did. I wish that the women too have a safe space in our community and we are able to create a violence free community. At a personal level I want to improve my communication skills – for this, I will join Spoken English classes

So, after considering my priorities, last month I resigned from my job in that training centre after working there for a year and a half. I now divide my time with my group and TF where I have joined as a youth facilitator. The more I work in TF, the more I seem to learn every day.
My Message
From time to time I remember what my parents used to say when I was a child – our dumb daughter will be incapable of doing anything! – and I also feel that because they said this, I have been able to challenge their assumption and reach till this point in my life. My mother now tells people “Even my son has till date has not been able to do what my daughter has done - earn and support the family financially"

My message to young people is that challenges in the path of progress are only to be expected. Challenges to a greater or lesser degree are a part of everyone’s life. We should take challenges in a positive spirit and move forward, and begin to enjoy overcoming them.


আমার নেতৃত্বের যাত্রা

আমি বন্দনা মাখাল। আমি কলকাতার লেকগার্ডেন্সে গোবিন্দপুর নামে একটি ছোট বস্তি এলাকায় থাকি। আমরা তিন ভাই বোন। আমার দাদা এবং বোন দুজনেই বিবাহিত। দাদা তার ছেলে-মেয়ে এবং স্ত্রীকে নিয়ে গড়িয়ায় আমাদের অন্য একটা বাড়িতে থাকে। আমার বোনের গত বছরেই বিয়ে হয়, তাই এখন সে শ্বশুরবাড়িতে থাকে। বাড়িতে এখন আমি মা-বাবার সাথে থাকি। আমার বাবা পেশায় রাজমিস্ত্রী এবং মা পরিচারিকা।

আমার ছোটবেলা
ছোটবেলা থেকেই আমাদের আর্থিক অবস্থা খুব ভালো ছিল না। ছোটবেলায় দাদার ভীষণ খেলার সখ, বোনের ঘরের কাজের সখ এবং ওদের দুজনেরই পড়াশোনার প্রতি খুব একটা আগ্রহ ছিল না। কিন্ত আমার ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনার প্রতি খুব আগ্রহ। দিনের বেশিরভাগ সময়টাই আমি পড়াশোনা করেই কাটাতাম। তখন আমি সব সময় বাড়িতেই থাকতাম। বাইরে বেশি যেতাম না বা পাড়ার লোকেদের সাথেও খুব একটা কথা বলতাম না। ছোটবেলা থেকেই আমার স্বপ্ন ছিল স্কুল টিচার হওয়ার। তাই যখন আমরা বন্ধুরা টিচার–টিচার খেলা খেলতাম, আমি গামছা মাথায় বেঁধে লম্বা চুল তৈরি করে টিচার সাজতাম। বাকি বন্ধুরা আমার পড়ুয়া হত এবং আমি তাদের পড়াতাম।

আমি ছোটবেলায় ‘বোকা’ ছিলাম
ছোটবেলায় আমি আমার পরিবার এবং প্রতিবেশীদের কাছে একটি শান্ত এবং মা-বাবার বাধ্য মেয়ে হিসেবে পরিচিত ছিলাম। মা-বাবা যা বলতেন সেটাই শুনতাম, কখনও মা-বাবার কথার অবাধ্য হতাম না। এছাড়া আমি ছোটবেলায় ভীষণ বোকাও ছিলাম। ছোটবেলার একটা ঘটনা আমার এখনও মনে পড়ে যেটাতে আমি আমার বোকামোর পরিচয় পাই। তখন আমি ক্লাস III তে পড়ি এবং আমার আট বছর বয়স। একটা শীতের সন্ধেবেলা আমি টিউশন পড়তে গিয়েছিলাম। মশার উৎপাতের জন্য আন্টি বাড়িতে মর্টিন জ্বালিয়ে আমাদের পড়াতে বসিয়েছিলেন। কিছুক্ষণ পর যখন মশার উপদ্রব কমে গেল, তখন আন্টি আমাকে মর্টিনটা নিভিয়ে দিয়ে আসতে বলেছিলেন। আমি আন্টির কথামত বারান্দায় গিয়ে মর্টিনটা অনেকবার ঠুকে নেভাবার চেষ্টা করলাম, কিন্তু কিছুতেই সেটাকে নেভাতে পারলাম না। তখন আমার মধ্যে একটা ভয় কাজ করতে শুরু করল যে, আমি যদি এটা না নেভাতে পারি তাহলে আন্টি আমাকে বকবেন; তাই যেভাবেই হোক না কেন আমি এটা নেভাবই। ঠুকে নেভাতে না পেরে মর্টিনটার জ্বালানো অংশটা ভেঙ্গে দিলাম, এবং ভাঙ্গা টুকরোটা আমার সোয়েটারের ভাজে গুজে নিলাম এই ভয়ে যে যদি ভাঙ্গা টুকরোটা বাইরে পড়ে থাকে, সেটা দেখতে পেলে আন্টি বুঝতে পারবে আমি ওটা ভেঙ্গেছি এবং আমায় বকা দেবে। তারপর আমি আবার গিয়ে পড়তে বসলাম। কিন্তু তখন আর পড়ায় মনোযোগ দিতে পারছিলাম না, কারণ আমার সোয়েটারের ভিতরে মর্টিনের টুকরোটা আস্তে আস্তে জ্বলে ভিতরে জামা পুড়িয়ে আমার গায়ে ছ্যাঁকা দিচ্ছিল। পরে সেখান থেকে ধোঁয়া ও বেরোছিল। আন্টি ধোঁয়া দেখতে পেয়ে বাকি বন্ধুদের বের করে দিয়ে আমার জামা খুলে দেখল মর্টিনের টুকরোটা জামার ভেতরে তখনও জ্বলছে। আমি তখনও আন্টিকে সত্যি কথাটা বলতে পারিনি। আন্টি তারপর আমার জামাটা ছাড়িয়ে নিজের বোনের একটা জামা এবং একটা সোয়েটার পড়িয়ে দিয়েছিল। সেই কথাটা আমার এখনও মনে পড়লেই হাসি পায় এবং তখন যে আমি কতটা বোকা ছিলাম তার পরিচয়ও পাই। এর জন্য আমার মা-বাবা ও ভীষণ চিন্তিত থাকত আমাকে নিয়ে – যে আমাদের এই বোকা মেয়ের দ্বারা কি হবে? এর দ্বারা কিছুই সম্ভব না। আমার এই কথাগুলো শুনলে খুব খারাপ লাগত, কিন্তু কিছু বলতেও পারতাম না, ভাবতাম আমি তো সত্যিই ভীষণ বোকা, আমার দ্বারা সত্যিই হয়তো কিছুই করা সম্ভব না। কিন্ত যেমন বকা খেতাম আমার বোকামো এবং কম কথা বলার জন্য, তেমনি পড়াশোনায় রেজাল্ট ভালো করতাম বলে মা-বাবার কাছে ভালোবাসাও পেতাম।

ধীরে ধীরে যখন আমি ছোট থেকে বয়ঃসন্ধিতে পা দিলাম, তখন মায়ের আমার প্রতি খেয়াল যেন আরও একটু বেড়ে গেল। মা যেখানে সেখানে যেতে বারণ করত, ছেলেদের থেকে দূরে থাকতে বলত। তখন বুঝতাম না মা কেন এই কথাগুলো বলছে। বয়ঃসন্ধিকালের শারীরিক পরিবর্তনের কথা বন্ধুদের মুখে শুনতাম এবং সেই পরিবর্তনগুলো যে আমার মধ্যেও আসছে সেটাও লক্ষ্য করতাম। কিন্ত এইসব নিয়ে আমি আলোচনা করতাম না কারোর সাথে, কারণ আমি আমি লজ্জাও পেতাম, আর এটাও মনে করতাম যে শুধু বাজে মেয়েরাই এইসব আলোচনা করে – এগুলো নিয়ে কথা বলা উচিত নয়। ২০০৭ সালে মাধ্যমিক এবং ২০০৯ সালে আমি উচ্চমাধ্যমিক পাশ করি।

একটি ক্যাম্প
আমি মাধ্যমিক পাশ করার কিছুদিন পর-পরই কৃষ্ণা নামক আমাদের পাড়ারই একটি দিদি পাড়ার কয়েকটি ছেলে-মেয়েকে নিয়ে একটি ক্যাম্পে যাওয়ার জন্য আমার মা-বাবার সাথে এসে কথা বলে। দিদির কথায় মা-বাবা রাজি হয়েছিল ঠিকই কিন্ত তবুও ওরা আমাকে নিয়ে একটু চিন্তিত ছিল। এর আগে কখনও আমি এইভাবে বাইরে কোথাও মা-বাবাকে ছাড়া যাইনি। কিন্তু আমি মনে মনে খুব আনন্দ পেয়েছিলাম প্রথম বাইরে যাওয়ার এই সুযোগ পেয়ে। এই প্রথম আমি অন্য জেলা ঘোরার সুযোগ পেয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে নতুন অনেক বন্ধুও পেয়েছিলাম। এছাড়াও সেখানে নিজের ব্যপারে চিন্তা করার বা নিজেকে নিয়ে ভাবার যেরকম সুযোগ পেলাম, আগে কখনও সেটা পাইনি বা সেভাবে ভাবিনি। সেই প্রথম সুযোগ পেলাম ভাবার যে নিজের মধ্যে কি কি গুণ আছে, নিজে কি কি করতে পারি -- আমার মধ্যেই অনেক গুণ রয়েছে এবং আমার দ্বারাই অনেক কাজ করা সম্ভব।

একটি জেন্ডার ওয়ার্কশপ
ক্যাম্প থেকে ফেরার পর ঐ দিদি আমাদের পাড়ারই কিছু ছেলে-মেয়েকে নিয়ে একটা গ্রুপ তৈরি করে। সেই গ্রুপের মাধ্যমেই একদিন আমি থটশপ-এ আসার সুযোগ পেলাম একটা ওয়ার্কশপ-এ অংশগ্রহণ করার জন্য। সেই ওয়ার্কশপ-টা আমাকে প্রথমবার ভাবতে সাহায্য করল যে, আমাদের সমাজে মেয়েরা কতভাবে অবহেলিত হচ্ছে এবং মেয়েদের পিছিয়ে পড়ার পিছনে সমাজ কতটা দায়ী। মনে হল যে, সমাজের চিরাচরিত ধ্যান-ধারণা বদলানো দরকার এবং বদলানোর জন্য মেয়েদেরকেই প্রতিবাদ করতে হবে, তাদেরকেই এগিয়ে আসতে হবে।

যেদিন আমাকে প্রতিবাদ করতেই হল
ইতিমধ্যে আমার নিজের জীবনেও প্রতিবাদ করার মত একটা পরিস্থিতি এসে পড়ল। ২০০৯ সালে যখন আমি উচ্চমাধ্যমিক পাশ করলাম তখন আমার বাবা আমাকে বললেন, “আমাদের মত পরিবারে মেয়েদের মাধ্যমিক পাশ করাটাই যথেষ্ট। তুই তো উচ্চমাধ্যমিকও দিয়েছিস। আমরা আর তোর পড়াশোনার খরচ চালাতে পারব না। তাছাড়া এর থেকে বেশি পড়াশোনা করলে বিয়ে দেওয়ার সময় সেই অনুযায়ী ছেলে পাওয়াও মুশকিল হয়ে যাবে এবং বেশি বড় ঘরে তোকে বিয়ে দেওয়ার মত আমাদের অত সামর্থ্যও নেই। তাই তোর এখানেই পড়াশোনা স্টপ করা উচিত।”
বাবার মুখে এই কথাগুলো শুনে আমার খুব কষ্ট হয়েছিল এবং তার সাথে সাথে আমি যেন আমার স্বপ্নগুলোকেও ভেঙ্গে যেতে দেখছিলাম। মন খারাপ করে দু-তিন দিন ঘরের খাবার খাওয়াও বন্ধ করে দিয়েছিলাম এবং মায়ের কাছে খুব কাঁদতাম। তারপর ভাবলাম যে না, এইভাবে কিছুই হবে না; এটা নিয়ে বাবার সাথে কথা বলা উচিত। তখন আমি বাবাকে বলেছিলাম যে, “একজন ছেলে যদি উচ্চশিক্ষিত হতে পারে, সে তার ফ্যামিলিকে সাপোর্ট করতে পারে, তাহলে একজন মেয়ে হয়ে আমিও সেটা করতে পারব এবং আমি পড়াশোনা করে আমার ফ্যামিলিকে সাপোর্ট কারতে চাই। তাছাড়া যতটা সম্ভব আমার পড়াশোনার খরচ আমি নিজেই চালাব।” তখন মা-বাবা বাধ্য হয়ে আমার কলেজে 1st year-এ ভর্তি হওয়ার জন্য টাকা দিয়েছিল। আমি মর্নিং কলেজে যেতাম এবং তার সাথে কিছু বাচ্চাকে টিউশন পড়াতাম।

কিছু শেখা আর কিছু রোজগার করা
এছাড়া কিছু প্রজেক্ট–এ কাজ করার আর সাথে-সাথে কিছু রোজগার করার সুযোগও পেলাম। আমি TF-এর থেকে
রিসার্চ করার দক্ষতা সংক্রান্ত ট্রেনিং নিয়েছিলাম এবং সেই সূত্রে ‘আমরাই পারি’ ক্যাম্পেন-এর একটা সার্ভের সঙ্গে যুক্ত হলাম। এই সার্ভের বিষয়ে ছিল এই ক্যাম্পেন মানুষের লিঙ্গ-সংক্রান্ত ধ্যানধারণার ওপর কি প্রভাব ফেলেছে। মানুষের কথা মন দিয়ে শোনা ও তারা কি বলছে সেটা হুবহু নোট করার আমার যে ক্ষমতা ছিল, সেটাকে এখানে মূল্য দেওয়া হল আর আমার আরও একটা ক্ষমতা সম্বন্ধে আমি জানলাম। এই রিসার্চ ট্রেনিং-এর সুবাদে আমি পর-পর ২ বছর একটা সরকারী সেন্সাস প্রজেক্ত-এ কাজ করার সুযোগ পেলাম। এর পরে TF আমায় বাচ্চাদের ইন্টারভিউ নেওয়ার, ও তাদের পরিবর্তনের কাহিনীগুলো লেখার একটা কাজ দিল। এইভাবে আমি কিছু-কিছু রোজগার করতে থাকলাম আর পরের দুবছরের কলেজ-এর খরচ নিজেই চালালাম। ২০১২ সালে আমি সার্থকভাবে গ্র্যাজুয়েশন সম্পূর্ণ করি। এখন মা-বাবা গর্ব করে সবাইকে বলে যে আমাদের বংশে আমার মেয়ে প্রথম গ্যাজুয়েট।

আমাদের উজান গ্রুপের সক্রিয় সদস্য
পড়াশোনার সাথে সাথে আমি আমাদের উজান গ্রুপের একজন নিয়মিত এবং সক্রিয় সদস্য হয়ে উঠি। আমি পিয়ার-কাউন্সেলার ট্রেনিং নেওয়ার জন্যও আমার নাম লেখাই। এই ট্রেনিং থেকে আমি শিখি কি করে মানুষের সাথে আরও ভালোভাবে যোগাযোগ স্থাপণ করা যায় আর মানসিক দিক থেকে কি করে তাদের পাশে দাঁড়ানো যায়। এই ট্রেনিং- এর ফলে আমার মানুষের সাথে সম্পর্ক তৈরি করার ক্ষমতা অনেক বেড়ে গেল – তা সে অল্পবয়সী ছেলে-মেয়েই হোক, বা তাদের বাবা-মা। আমি আমার গ্রুপের মাধ্যমে এই সাপোর্ট চালু রাখতে চাই।
এই ক্ষেত্রেও মা-বাবা প্রথমে আপত্তি করে বলে “ওখানে গিয়ে তোর কি লাভ হচ্ছে, ওটা কি কোনো চাকরি?” প্রথম প্রথম মা-বাবার এইসব প্রশ্নের উত্তর দিতে পারতাম না। কিন্ত আস্তে আস্তে বুঝতে পারি যে এই গ্রুপের মাধ্যমে থটশপের থেকে আমি যে বিভিন্ন বিষয়ে শেখার সুযোগ পাচ্ছি সেটা আগে কোথাও পাইনি। এই সুযোগটা যদি আমি আরও আগে পেতাম তাহলে হয়তো বয়ঃসন্ধিকালের ওইসব ভুল ধারণাগুলো আমার মধ্যে জন্মাতোই না।

আমার নিজস্ব আইডেন্টিটি তৈরি করা
মা-বাবার আপত্তি দূর করার জন্য আমি ওদের দুজনকেই একবার আমাদের গ্রুপের একটি অনুষ্ঠানে নিয়ে গিয়েছিলাম। মা-বাবা আমাদের কাজ দেখে খুব প্রশংসা করেছিল। এখন আমাদের পাড়ার বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আমরা গ্রুপে আলোচনা করি এবং সেগুলোকে কিভাবে সমাধান করা যায় সেটা নিয়েও সক্রিয়ভাবে ভাবি। কোথাও কোনো অন্যায় দেখলে তার প্রতিবাদ করারও চেষ্টা করি। আর পাড়ার লোকেরা যখন বলে যে “আগের সেই শান্ত বন্দনা এখন অনেক কথা বলতে শিখেছে”, আমিও তাদের উল্টে বলি যে, “ফালতু নয় -- কাজের কথা বলতে শিখেছি।” এইভাবে পাড়ার মধ্যেও আমার একটা পরিচিতি হতে শুরু করেছে।
গত বছর, অর্থাৎ ২০১৩ সালে, আমার বোন যে ছেলেটির সাথে প্রেম করত, তার সাথে ওর বিয়ে ঠিক হয় এবং ছেলেটির ঘর থেকে বরপণ হিসেবে কিছু টাকা দাবী করে। এতে আমি আপত্তি করায় মা-বাবা বলেছিল যে কিছু টাকার জন্য বেকার ঝামেলা বাড়িয়ে লাভ নেই। তখন আমি মা-বাবা এবং বোনকে বলেছিলাম যে, আমি যদি বোনের জায়গায় থাকতাম তাহলে আমি পণ দিয়ে কখনোই বিয়ে করতাম না। যদি তাতে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা রাজি না হত তাহলে আমি হয়ত বিয়েটা ক্যান্সেল করে দিতাম। আমি কখনোই বরপণ দিয়ে বিয়ে করব না -- এটা আমার শপথ।
যে কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারে আমি কম্পিউটার শিখেছিলাম 1st year-এ, গ্র্যাজুয়েশন করার পর আমি এসেই সেন্টারেই কম্পিউটার শেখানোর সুযোগ পাই। এই কাজটা করতে আমার বেশ ভালোই লাগছিল, এবং এখান থেকে আমি আমার পরিবারকে আর্থিকভাবে সাহায্যও করছিলাম। কিন্তু এখানে আমাকে সকাল ১১টা থেকে সন্ধ্যে ৭.৩০ পর্যন্ত সময় দিতে হত, এবং আমার মনে হতে শুরু করেছিল যে আমার কিছু জায়গায় আরও ডেভেলপমেন্টের দরকার আছে যেটা ফুলটাইম জব করলে আমি করতে পারব না। এছাড়া আমি আমাদের গ্রুপকেও খুব একটা বেশি সময় দিতে পারতাম না ফুলটাইম জব-এর জন্য।

উজানকে নিয়ে আর আমার কমিউনিটিকে নিয়ে আমার স্বপ্ন
আমাদের পাড়া বা কমিউনিটিতে এখনও অনেক সমস্যা আছে; সেই সমস্যাগুলোকে দূর করার জন্য আমাদের গ্রুপকে আর কমিউনিটিকে আমাদের অনেক সময় দিতে হবে। আমার স্বপ্ন আমাদের এই গ্রুপকে একদিন CBO-তে পরিণত করার। আমি চাই আমাদের এলাকার সব বাচ্চারা নিজেদের ক্ষমতাগুলো আবিষ্কার করুক ও নিজেদের সব স্বপ্ন পূর্ণ করুক। আমি চাই আমার পৃথিবীর দরজাগুলো যেভাবে খুলে গেছে, তাদের দরজাগুলোও সেইভাবে খুলে যাক। আমি এটাও চাই যে আমাদের কমিউনিটিতে মহিলারা নিজস্ব একটা নিরাপদ জায়গা পাক, এবং আমরা হিংসামুক্ত সমাজ তৈরি করার কাজে সার্থক হই। ব্যক্তিগত স্তরে আমার স্বপ্ন হল আমার যোগাযোগের ক্ষমতা উন্নত করা – তার জন্য আমি Spoken English ক্লাস করব।
এইসব কিছু বিবেচনা করে প্রায় দেড় বছর ঐ কম্পিউটার সেন্টারে কাজ করার পর গত মাসে ঐ চাকরি ছেড়ে দিয়েছি, এবং TF-এ যুব ফ্যাসিলিটেটর হিসেবে কাজ করতে শুরু করেছি। এখন আমার সময় আমার গ্রুপ আর TF-এর মধ্যে ভাগ করে নিই। থটশপে যত কাজ করি, রোজই যেন শিখি।

আমার মেসেজ
কখনো-কখনো মা-বাবার ছোটবেলায় আমাকে বলা সেই কথাটা মনে পড়ে যায়, যে আমাদের এই বোকা মেয়ের দ্বারা কিচ্ছু হবে না। এবং মাঝে মাঝে এটাও মনে হয় যে, মা-বাবা তখন আমাকে এই কথাটা বলেছিল বলেই হয়ত সেটাকে আমি চ্যালেঞ্জ করে আজ এখানে পৌঁছাতে পেরেছি। মা এখন সবার কাছে বলে যে, “আমার ছেলে আজ পর্যন্ত আমাদেরকে আর্থিকভাবে কোনদিন সাহায্য করেনি, যেটা আমার মেয়ে করেছে।”
যুবদের জন্য আমার মেসেজ হল যে, জীবনে এগিয়ে চলার পথে অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে। সবার জীবনেই কম বেশি চ্যালেঞ্জ থাকে। সেগুলোকে পজিটিভলি নিয়ে এগিয়ে চলা উচিত, এবং এই চ্যালেঞ্জগুলোকে কাটিয়ে ওঠার মজাটাও উপভোগ করার চেষ্টা করা উচিত প্রত্যেকের।
 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here