1 Feb 2014

The Day My Life Changed

Mousumi Majumdar
member - Drishtikon YRC

We had a very happy life till the time my father was alive. He passed away on 11th December, 2001, and that was the time all our troubles started.

I was in class 9 then. My grandmother used to stay with us and look after my brother, and I used to go out to my tuitions. Sometimes I was late returning from class and if any boy ever escorted me back home, grandma did not like it. She told my mother to arrange my marriage quickly.

I was only 13 years old when I was married. I was not at all in favour of it, and had a number of fights with my mother on this issue, but the marriage did take place after all. Once, when I told my mother that I didn’t want to get married, she said "everyone had already been invited and there was nothing I can do to change it". I was confused, so I resigned myself to going along with what my family thought was best for me.

The day of my marriage didn’t feel any different. I was having a lot of fun, roaming around with my cousins and friends. Everyone was giving me presents and so I was very happy. But with the ceremony where they smear turmeric on the bride-to-be, I started feeling tearful, a nervous trembling set in my hands and body. I came to realise later that the person with whom I was married was not normal at all. He had an odd way of behaving. When he was putting the vermillion in the parting of my hair, my forehead got cut and started bleeding.


The boy entered my room slowly very late at night. He was drunk. I woke up along with the other people of the household. They decorated the bed with flowers, as the custom was, put us to bed, switched off the light and left, closing the door behind them. I started feeling very scared indeed. I got up and hid under the bed.
When the boy groped around and couldn’t find me, he put on the light and searched for me and eventually dragged me out from under the bed. He told me to lie down, and I obeyed apprehensively. He pinched my cheek and started tugging at my arms and my blouse. I was feeling extremely angry. I don’t even know him and he was behaving like this! Unable to take it anymore, I slapped him and said, “Aren’t you ashamed to behave like this!”
I opened the door and rushed to the bathroom. On the way, I thought I saw my mother-in-law in bed with a strange man. I was dumbfounded - what was happening? I had no idea what to do. First I thought that I would have to stay. Then I thought I wouldn’t, ever. I spent the whole night on the sofa, getting bitten by mosquitoes.

The next morning when a neighbour asked the boy, “How did the first night go?”, he promptly burst into tears. I wasn’t able to explain anything to anybody, I just said that I couldn’t stay on there. Everyone tried to explain things, but I was absolutely incapable of accepting the situation – the boy, his mother and the strange man. My mother and uncle arrived the next day. They beat me up, then told my mother-in-law, “She is young and has made a mistake, forgive her.” My mother-in-law said, “Then she has to sleep with my son, right now.” I said, “That can’t be, I cannot sleep with that man.” Then, around midnight, my mother and uncles took me home. They talked about how they would face people after being shamed like this. I felt I'd rather die than put them in such a spot.

There was a pond out front, and I seriously considered jumping into it - since I didn’t know swimming, I would drown. I was about to do it too, when my uncle held me back. “Come along quietly" he said "Don’t act precocious.”
One of my aunts said, “We cannot keep this trouble. She couldn’t live with her husband, now wolves will tear her apart.” My mother looked at me and said, “You must leave this house before sunrise tomorrow”. “But where should I go?” I asked.

Before sunrise, my mother and uncle took me near the airport. Mother gave me 20 rupees and told me to go away. I asked, “Where?” She said, “Wherever!” with that, she struck her fist on my nose and they left! I angrily crossed the road and, boarding a homeward-bound auto, landed up near home again. With the 20 rupees, I paid the auto-driver and bought a sweet bun for myself. Scared that they would send me back to my in-laws’ place, I didn’t go home. Instead I sat underneath a date-palm tree in the field near the airport. Sitting there, with all kinds thoughts buzzing in my head, I ended up eating the whole bun. Immediately afterwards I began to worry, what I would eat later in the day, and night!

The day wore on, and around 3 pm I came out past the wall and peeped in the direction of my home. A lot of trouble seemed to brewing there. I hid again among the kochu plants behind the wall. Then I saw a neighbour, Buli. She had come to dry a blanket on the wall. We used to study together at one point of time. She saw me but at first couldn’t recognise me. Maybe she thought I was some crazy girl. But I came out and said, “I am very hungry. Will you give me something to eat?”
She gave me food. I had just started to eat when people of the neighbourhood started gathering around me. I somehow finished my meal and started running from there. They chased me but I ran so fast that day, no one was able to catch me. I reached a house I knew and saw my grandfather there. He gave me some money and said, “Go to your aunt’s home. Will you be able to go alone?” “Yes,” I said. Then I again ran and took refuge at my aunt’s.

I returned home after a month. My mother asked me, “What will you do? I cannot feed you. You should go to work, like me.” I agreed. My mother got me working as a domestic help at a house. Five days passed and she didn’t come back for me. My employers made me work very hard. I couldn’t sleep at all, I kept crying. One day I ran away from there and came back home. Day after day, my mother and the neighbours used to fling accusations and abuse on me. Unable to bear it, I once tried to consume poison. That attempt to end to my life was unsuccessful, but at least people stopped their accusations. My studies had stopped long ago, but I stared working as a receptionist somewhere. Here I used to encounter people from different places. I was unable to talk to them properly, nor was I well-versed in English. I started realising the value of education day by day. But education costs money. I went home and told my mother, “Ma, I want to start my studies again.” She responded, “only if you can support yourself.” Then on I started trying in earnest. Only if someone helped me a bit, I could start studying again.

One day my mother got a job in the airport and through this we met a helpful gentleman. When I told him of my desire to get an education, he started helping me, and after a long time I was able to resume studies. My mother also gradually started to change.

One day I met Piyali and Pronoy on my way back from school. They told me of a group in the neighbourhood, called Drishtikon. I liked the group the very first time I visited because I was treated with respect. I felt accepted and I became a regular member. I learnt many new things – about my body, about my rights. My learnings helped me in many ways. Earlier I used to be scared and embarrassed about talking to people – who knows what I would end up saying? Now I am able to interact much more openly.

Nowadays I conduct different workshops with the children of my neighbourhood. I act out and read aloud stories to them to expand their imagination and curiosity. I especially try to increase their confidence through games, so that they become self-reliant, so that no obstacle is able to touch them. When I conduct such sessions, I feel that if I had received these trainings at that age, I wouldn’t have had to go through such a lot. From my own experience, I feel that the foremost need of children is a person who they can freely talk to. And if parents, instead of beating or scolding, try to understand what the child wants and then lovingly explain to them, they will be able to raise beautifully capable and confident children.

Now I am in my 1st year of College. I owe my inspiration to walk on and to dream of my future to my uncle who supported my education, to my group and to TF. I want to study Law. Knowledge of Law would allow me to logically convince people of what is right. My efforts as a lawyer will be to prevent anybody else facing the kind of neglect and violation of rights I had suffered as a child.




আমার জীবন বদলে গেল যেদিন


বাবা বেঁচে থাকতে আমাদের দিন খুব সুখে কেটেছিল। ২০০১ সালে ১১ই ডিসেম্ভর বাবা মারা যান, আর তখন থেকেই আমাদের কষ্ট শুরু।

তখন আমি নাইনে পড়ি। সেসময় দিদা আমাদের বাড়িতে থেকে ভাইকে দেখাশুনা করতেন এবং আমি কোচিং-এ পড়তে যেতাম। পড়া থেকে ফিরতে অনেক রাত হতো এবং কোন কোন দিন যদি কোচিং-এর কোন ছেলে বাড়িতে দিয়ে যেতো তাহলে দিদা সেটাকে খারাপ মনে করতেন এবং আমার মাকে বলতেন তাড়াতাড়ি বিয়ের ব্যবস্থা করতে। মা-ও কোন কিছু না ভেবে দিদার কথায় আমায় বিয়ে দেওয়ার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়ল এবং বিয়ের দেখাশোনাও শুরু করে দিল। আমার বয়স তখন ছিল মাত্র ১৩ বছর যখন দেখেশুনে আমার বিয়ে দিয়ে দেওয়া হয়। একবার মাকে বলেছিলাম যে আমি বিয়ে করবো না, কিন্তু মা বলল সবাইকে নিমন্ত্রন করা হয়ে গেছে, এখন আর কিছু করার নেই। আমি কি করব কিছুই বুঝতে পারছিলাম না, তাই ভাবলাম মা-রা যা দেখে দিচ্ছে তাই ভালো।

যাইহোক, বিয়ের দিন আমার মনেই হচ্ছিল না যে আমার বিয়ে। খুব মজা করছিলাম, ঘুরে বেড়াচ্ছিলাম দিদি, দাদা, বোন ও বন্ধু সবার সাথে। সবাই কতো কিছু উপহার দিচ্ছিল আমাকে – আর তাই আমিও খুব আনন্দেই ছিলাম। কিন্তু গায়ে হলুদ যখন হল, তখন আমার কান্না পেতে আর ভয়ে গা-হাত-পা কাঁপতে শুরু করেছিল।

যার সঙ্গে আমার বিয়ে হয় পরে বুঝতে পারি সে মোটেও স্বাভাবিক ছিল না। কেমন যেন একটা ব্যবহার ছিল তার। বিয়ের সময় এমন করে সিঁদূর পরালো যে আমার কপালটাই কেটে গেলো। আমি কখনই এই বিয়েতে রাজি ছিলাম না, আর এই বিয়ে নিয়ে মার সাথে অনেক ঝামেলা করেছি কিন্তু শেষ পর্যন্ত আমার বিয়েটা হয়েই গেল।
বিয়ের পরের দিন শ্বশুরবাড়ি যেতে হয়। অনেক কিছু নিয়ম পালন করে শ্বশুরবাড়িতে ঢুকতে হয়। সেই দিন যা হোক করে কেটেছে, তারপর দিন হল “কালরাত”। বাঙালি নিয়ম অনুসারে সেই দিন ছেলে-মেয়ে-কে আলাদা থাকতে হয়, একে অপরের মুখ দেখাও বারন।

এরপরের দিনটা বউভাত। সেইদিন সকাল থেকে আমি বেশ ভালোই ছিলাম। আমাদের বাড়ি থেকে অনেক কিছু জিনিস এসেছিল। সবাই আমাকে সাজাতেই ব্যস্ত ছিল। এছাড়া আমার বাড়ি থেকে সবাই আসবে আমার তাই খুব মজা হচ্ছিল। যখন সবাই এলো আমি খুব মজা করলাম কিন্তু রাত হওয়ার সাথে সাথে আমার বাড়ির সবাই আস্তে আস্তে চলে গেলো। তখন আমার খুব কান্না পেতে লাগল। আমার অবস্থা দেখে আমার দিদা, বৌদি ও দিদি থেকে গেলো আমার কাছে।

ওই ছেলেটা অনেক রাতে মদ খেয়ে যখন আস্তে আস্তে ঘরে ঢুকল, তখন বাড়ির সবার সাথে-সাথে আমারও ঘুম ভেঙে গেল। দিদা, বৌদি, দিদি ও শাশুড়ি এসে ফুল দিয়ে খাটটা সাজালো। এরপর আমাদের বিছানায় শুইয়ে দিয়ে লাইট নিবিয়ে দরজা বন্ধ করে ওরা চলে গেলো। আমার সেসময় ভীষণ ভয় করতে লাগল। আর থাকতে না পেরে আমি তাড়াতাড়ি করে বিছানা থেকে নেমে খাটের নিচে লুকিয়ে পড়ি।
উনি যখন হাতড়ে দেখলেন যে আমি নেই, তখন লাইট জ্বালিয়ে খোঁজাখুঁজি করে আমায় খাটের নিচ থেকে টেনে বার করে নিয়ে আসলেন ও আমাকে শুতে বললেন। আমিও ভয়ে ভয়ে শুয়ে পড়লাম। তখন আমার গাল টিপল আর হাত ধরে আর ব্লাউস ধরে টানতে শুরু করল। আমার ভীষণ রাগ হচ্ছিল। যাকে আমি চিনিও না সে আমার সাথে এই রকম ব্যাবহার করছে! আর সহ্য না করতে পেরে আমি ওকে একটা চড় মেরে দিই আর বলি, “লজ্জা করে না এইরকম ব্যবহার করতে!”

তারপর আমি টয়লেট করতে বাইরে যেতে গিয়ে দেখি আমার যিনি শাশুড়ি তিনি দরজা খুলে কে একটা লোকের সাথে শুয়ে আছেন। আমি দেখে হতবাক! কি হচ্ছে এটা? আমি ভেবে পাচ্ছিলাম না কি করবো। একবার ভাবছি মা বিয়ে দিয়েছে তো এখানেই থাকতে হবে, আবার ভাবছি না, কিছুতেই থাকব না। যাইহোক, সোফাতে বসে মশার কামড় খেয়েই রাত কাটিয়ে দিলাম।
পরদিন সকালে যেই না পাশের বাড়ির বৌদি এসে ওনাকে বলেছে, “কি, কেমন কাটলো বউভাত-এর রাত?” বলতে না বলতেই ছেলেটা কাঁদতে শুরু করে দিলো। সে কি কান্না! আমি কাউকে কিছু বলতে পারলাম না, শুধু এইটা বললাম যে আমি ওখানে থাকবো না। সবাই আমাকে অনেক বোঝাতে শুরু করল কিন্তু আমি কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলাম না। না আমার বরকে, না শাশুড়িকে ও তার সঙ্গে শুয়ে থাকা ঐ লোকটাকে।

তারপর দিন মা আর মামা এল। দুজনে মিলে আমাকে খুব মারলো, তারপর শাশুড়িকে বলল, “ছোটো মেয়ে, ভুল করেছে, ক্ষমা করে দিন।” শাশুড়ি বললেন, “তাহলে আমার ছেলের সাথে এখুনি শুতে হবে।” আমি বললাম, “না, এটা কখনো হয় না, আমি ওই লোকটার সাথে শুতে পারবো না।” তারপর মা, মামা আর কাকু মিলে আমায় মামাবাড়িতে নিয়ে চলে এল, রাত তখন ১২টা। মামাবাড়িতে যাওয়ার পথে ওরা সবাই আলোচনা করছিল এরপর লোককে কিভাবে মুখ দেখাবে। ওদের কথা শুনে মনে হচ্ছিল আমার জন্য সবাইকে মান-সন্মান হারাতে হবে, তার থেকে আমি যদি মরে যাই তাহলে আর কোন সমস্যাই থাকবে না। সামনে একটা পুকুর ছিল, আমি ভাবলাম আমি তো সাঁতার জানি না, ঝাঁপ দিই, ডুবে মরে যাব। ঝাঁপ দিতে যাবো, হঠাৎ কাকা এসে আমাকে ধরে ফেলল ও বলল, “চুপ করে চল, পাকামো করিস না।” মামারবাড়ি পৌঁছনোর পর মামী বলল, “আমাদের বাড়িতে এইসব ঝামেলা রাখতে পারবো না। শ্বশুরবাড়ির ঘর করতে পারল না, এবার শিয়াল-কুকুরে ছিঁড়ে খাবে।” আমার মা বলল, “কালকে সকাল হওয়ার আগেই এখান থেকে চলে যাবি।” আমি বললাম, “কোথায় যাবো?” মা বলল, “আমি কি জানি?”

রাতটা কোনোমতে কাটলো। সূর্য ওঠার আগেই মা আর মামা আমাকে বাড়ি থেকে বের করে দমদম এয়ারপোর্টের সামনে নিয়ে চলে এল। মা আমার হাতে ২০ টাকা দিয়ে বলল, “এখান থেকে যেখানে খুশি চলে যা।” আমি বললাম, “কোথায় যাব।” মা বলল, “যেখানে খুশি।” বলেই আমার নাকের উপর একটা ঘুসি মেরে দিলো। আমি রাগ করে রাস্তা পাড় হয়ে বাড়ির দিকের অটোতে উঠে আবার বাড়ির দিকেই চলে এলাম। মা যে ২০ টাকাটা দিয়েছিল, সেটা দিয়ে অটো ভাড়া দেলাম ও একটা মিষ্টি পাউরুটী কিনলাম। ওদের বাড়িতেই আবার পাঠিয়ে দেবে সেই ভয়ে আমি বাড়িতে গেলাম না, এয়ারপোর্ট-এর মাঠে একটা খেজুর গাছের নীচে গিয়ে বসলাম। বসে শুধু নানা কথা ভাবতে ভাবতে পুরো রুটিটা খেয়ে নিলাম। তারপরই ভাবতে শুরু করলাম দুপুরে কি খাবো আর রাতেই বা কি!

অনেক বেলা হয়ে গেল, দুপুর তখন ৩টে। আমি পাঁচিলের ভেতর দিয়ে বাড়ির দিকে গিয়ে লুকিয়ে লুকিয়ে দেখলাম ওদিকে প্রচুর ঝামেলা হচ্ছে। আমি তখন লুকিয়ে পড়লাম পাঁচিলের ভেতর কচুবনের মধ্যে। তখন দেখি আমাদের একজন প্রতিবেশী, নাম তার বুলি, পাঁচিলে কাঁথা শুকোতে দিতে এসেছে। আমরা আগে একসাথে পড়তাম। ও আমাকে দেখতে পায় কিন্তু প্রথমে চিনতে পারেনি, ভেবেছিল আমি হয়তো কোনো পাগল। ওকে দেখে আমি বাইরে বেরিয়ে এসে বললাম, “আমাকে কিছু খেতে দিবি? আমার খুব খিদে পেয়েছে।”

ও আমাকে খেতে দিল। আমি খেতে শুরু করার কিছুক্ষণের মধ্যে ওখানে সারা পাড়ার লোক জড়ো হয়ে গেল। আমি কোনোরকমে খেয়ে ওখান থেকে দৌড় লাগালাম ও সবাই আমাকে ধরার জন্য পেছনে ছুটতে শুরু করলো। আমি এতো জোরে ছুটেছিলাম যে কেউ আমাকে সেদিন ধরতে পারেনি। দৌড়তে দৌড়তে আমি মামাবাড়ির কাছে একটা চেনা বাড়িতে পৌঁছলাম। সেখানে আমার দাদুকে দেখতে পেলাম। দাদু আমাকে টাকা দিয়ে বলল, “তুই তোর মাসির বাড়িতে চলে যা। একা যেতে পারবি তো?” আমি বললাম “হ্যাঁ।” তারপর আমি গিয়ে মাসির কাছে আশ্রয় নিলাম।

১ মাস পরে যখন আমি বাড়ি ফিরলাম, তখন মা আমায় বলল, “তুই এখন কি করবি? আমি তোকে বসিয়ে খাওয়াতে পারবো না। তুইও আমার সাথে কাজে চল।” আমি রাজি হয়ে গেলাম। মা একটা বাড়িতে আমাকে কাজে দিয়ে আসলো; পাঁচ দিনের মধ্যে মা আর আসলো না। ওরাও আমাকে খুব খাটাতো। আমি রাতদিন ঘুমাতাম না, শুধু কাঁদতাম। একদিন আমি ঐ বাড়ি ছেড়ে আবার নিজের বাড়ি চলে আসলাম।
এরপর দিনের পর দিন মা এবং আশেপাশের লোকজনও আমাকে নানা কথা শোনাত। আমি আর সহ্য করতে না পেরে বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করি। মরার চেষ্টা অসফল হয়, কিন্তু তারপর থেকে কেউ আর আমাকে কিছু বলত না। আমার পড়াশোনা তো আগেই বন্ধ হয়ে গেছিল, তাই এসবের পর আমি একটা জায়গায় রিসেপ্সানিস্ট-এর কাজে ঢুকি। নানা জায়গা থেকে লোক আসত ওখানে, আর আমি ভালোভাবে কথা বলতে পারতাম না, ইংলিশ-ও ভালো জানতাম না। দিনে দিনে আমার উপলব্ধি হতে থাকে যে লেখাপড়া করাটা কতটা জরুরী। কিন্তু লেখাপড়া করতে গেলে টাকা লাগে। আমি বাড়ি গিয়ে মাকে বললাম, “মা আমি আবার পড়াশোনা করতে চাই।” মা বলল, “নিজে যদি খরচা চালাতে পারো তো কর।” তখন থেকেই আমি চেষ্টা করতে শুরু করলাম, একটু সাহায্য পাওয়ার জন্য, যাতে আমি আবার পড়াশোনা করতে পারি।

তারপর একদিন মা এয়ারপোর্টে কাজ পায় এবং সেই সূত্রে জেঠুর সঙ্গে আমাদের পরিচয় হয়। আমি পড়াশোনা করতে চাই শুনে তিনি আমাকে সাহায্য করলেন এবং অনেকদিন পর আমি আবার পড়াশোনায় মন দিলাম। আমার মাও যেন আস্তে-আস্তে পরিবর্তিত হতে শুরু করল।
একদিন যখন স্কুল থেকে বাড়ি ফিরছি, তখন আমাদের পাড়ার পিয়ালি ও প্রণয়ের সাথে দেখা হয়। ওরা আমায় পাড়ায় একটা দলের কথা বলে। দলের নাম “দৃষ্টিকোণ”। প্রথম যখন দলে আসি আমার ভালো লেগে যায়, কারণ মর্যাদা পেয়েছিলাম। আমাকে গ্রহণ করে নিল, তারপর থেকে নিয়মিত আসতে থাকি। দলে যোগ দেওয়ার পর থেকে অনেক নতুন বিষয়ে জানতে পারি, যেমন নিজের শরীর সম্পর্কে, নিজের অধিকার কি কি সেই সম্পর্কে। এইগুলো আমাকে অনেক দিক থেকে সাহায্য করে। আগে রাস্তাঘাটে চলাফেরা করতে ভয় পেতাম, এখন আর পাই না। আগে মানুষের সাথে কথা বলতে গেলে খুব ভয় আর লজ্জা করত, কি বলতে কি বলব বুঝতে পারতাম না। এখন আগের থেকে অনেকটাই খোলাখুলি ভাবে কথা বলতে পারি।
এখন আমি পাড়ার বাচ্চাদের সাথে নানারকমের ট্রেনিং করাই। পরিবেশকে কিভাবে পরিষ্কার রাখতে হয়, নিজেদের শরীর সম্বন্ধে কিছু সাধারণ কথা ছাড়াও ওদের কল্পনাশক্তি ও আগ্রহ বাড়িয়ে তোলার জন্য অভিনয় করে ওদের গল্প পড়ে শোনাই, এবং বিশেষভাবে চেষ্টা করি খেলাচ্ছলে ওদের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে, যাতে ওরা স্বনির্ভর হতে পারে ও কোনো বাধাই ওদের ছুঁতে না পারে। এইধরনের সেশন করানোর সময় মনে হয় ওদের বয়সে আমিও যদি এধরণের ট্রেনিং পেতাম, আমার জীবনেও মনে হয় এতো কিছু ঘটতো না। আমার নিজের জীবনের অভিজ্ঞতার দিক থেকে ভেবে দেখলে মনে হয় বাচ্চাদের সর্বপ্রথম দরকার একজন মানুষ যার কাছে তারা মনের কথা খুলে বলতে পারে। আর মা-বাবারাও যদি না বকে বা মেরে বাচ্চা কি চাইছে সেটা বুঝে ভালোবেসে তাকে বোঝান, তাহলে তারাও অনেক সুন্দর, সবল ও আত্মবিশ্বাসী বাচ্চা তৈরি করতে পারবেন।

এখন আমি B.A. 1st Year-এ পড়ছি। আজ যে আমি এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা পেয়েছি ও নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে নতুন স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছি, তার জন্য সবচেয়ে বড় ভূমিকা রয়েছে আমার জেঠুর, আমার দলের, এবং থট্‌শপ ফাউন্ডেশন-এর।
আমি আইন নিয়ে পড়তে চাই। আমি আইন জানলে সব্বাইকে যুক্তির দ্বারা কিছু বোঝাতে পারবো। বাচ্চা বয়সে যে রকম অবহেলা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের মুখোমুখি আমি হয়েছি, সে রকম যেন আর কারোর সাথে না হয়, আইনজীবী হিসেবে আমি সেই চেষ্টাই করব।

 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here