11 Feb 2014

A Boy's Point of View

Deep is a member of YRC Drishtikon

I am part of the community of males spread over the whole world. From childhood I have learnt from my environment and from society that as a Man, I have to be strong and clever; I must study well, earn well, and support my family. I also have to participate in society and work towards its prosperity.

But from the time that my mind started to expand, from the time when I learnt to open its doors and windows and analyse society — and the things that it causes to happen — with a combination of knowledge, logic and emotion, from that time on I have been very concerned about this male perspective.

From the time I learnt to read the paper or watch news on TV, I have been hearing some words repeatedly — Eve-teasing, Rape etc. What bothers me is that in almost all cases, it is men who are doing it, and women are the fearful victims. Barasat, Park Street, Delhi, Kamduni, Sutiya, are all cases that have stirred me, to name only a few. These things have happened before, are happening now, irrespective of whether the location is urban or rural. Many don’t ever reach the headlines.

One such incident happens, it sparks off a nationwide protest. Committees are set up, meetings held, some block the roads or take out rallies. “We want justice, We want punishment for the guilty” echo out from the corners of the country. The police is put under pressure, and sometimes the guilty is caught. The process of justice commences, slowly. But the disease is not cured. After a few days, things repeat themselves. Again voices are heard “Put an end to rape”, “We want justice” and “Punishment for the guilty”. Actually the disease cannot be cured thus; its seeds are very deeply embedded.

In our patriarchal system, many small crimes keep happening against women, in the course of their daily lives, and most are not even counted as ‘violence’. For example, girls should not dream of riding a bike, they should ride a scooty instead. Both husband and wife may be working, but after returning from work it is always the wife who should cook and serve the man. Though girls nowadays are getting many more opportunities for education than earlier, education for women is often not so much for social productivity, as it is for getting a good match in marriage. We remain blind to these crimes, too accustomed to them, to think that these too are forms of violence, and that eve-teasing and rape are more serious forms of the same violence.

Most young men are very used to the concept of eve-teasing — it is something that just happens, its like a joke. This is because we men are often incapable of, or not willing to, respect women. Let alone respect. It hurts me to think that even in this age of the internet, female foeticides still happen, away from the eyes of many. The cause of concern is that these incidents of violence are known to happen everywhere, irrespective of rich or poor, educated or illiterate, urban or rural settings.

This is affecting the world’s male vs female ratio. Society is on the verge of losing its equilibrium and toppling over. On the one hand, certain illustrious men fill me with pride; on the other hand, the actions of some barbaric men makes me feel ashamed to showing my face to women. So today my vision is not bounded by the idea of a strong, clever man who is head of his family. My vision today is clearer, and much changed. But only changing my perspective will not be enough. It should reflect in my behaviour and actions. I believe when our perspectives really change, it does reflect in actions. This has happened in my case.

In my own home, I think my sister to be no less than me. I do several household chores, like making tea and tiffin. Earlier my mother and grandmother used to serve us food. Now, after a lot of effort, it has been possible to change that mindset, and now we divide the food amongst everyone and eat together. Earlier I used to take pride in doing chores that needed me to go out — paying the electricity bill and fetching the ration — and thought it was only I who should be doing these things. Nowadays I give my sister an equal chance to do them. Earlier if something heavy needed to be carried, I used to do it myself or get the boys to help. But now I think girls to be capable and therefore do not belittle them by showing unnecessary concern. In case of participation, I try to ensure that the girl-boy ratio remains equal. When our club committee was being created, I proposed the names of two women for committee membership. They are happily engaged in responsible committee posts at present.

I have never eve-teased, but I never used to protest either. Earlier, if I saw anyone disturbing a woman in a bus or train, or a group of boys calling out to a girl at a bend in the road, I would walk by without getting involved. But now I protest. Let me share one such incident.

One day in the bus, a drunkard was insinuating something about a certain lady’s dress, and making all kinds of faces and gestures. Everyone saw, but no one said anything. I came forward and told the drunk that he could either stand quietly and decently or he could get off the bus. Then many passengers joined their voice to mine and had that man removed.

Recently, our group got to know that a certain 13 year old girl’s marriage was being arranged by her family, residents of our neighbourhood, and we rushed to the scene. We tried to convince the girl’s parents of the wrongness of their decision. There was another girl, 13-14 years old, whose mother came to us one day, crying. Her daughter was missing. Immediately some friends and I went and made a diary at the local police station. The girl was found the next day, and was persuaded to leave her twice-married lover and return home. We are counselling this girl regularly. There was a man in the neighbourhood who, though destitute and unable to support his family properly, had the habit of coming home drunk and beating his wife and daughter. We have been able to bring him on track to some extent, through scolding and persuasion. Though I have very little free time, I have taken on the responsibility of conducting the Gender and Male Responsibility workshops for boys because I want boys to actively rid the world of violence and to empower women to protest.

I am not alone. There are many friends with me who hold this perspective and want to build a new society based on that. We are trying to make examples out of our lives. So our aim today is not only to be strong or clever, to study and earn well, to participate in society and make it prosper. Along with all this, it is also our duty to respect women as equals; to ensure that in the circle of our families, friends and neighbours, women get opportunities to participate in everything according to their wishes. Men and women are the two parts of the same society, so only if both progress equally, society as a whole progresses.

I can articulate what I want to say so clearly because I am a part of the group Drishtikon [Point of View]. We fight against violence sometimes singly, sometimes as a group. We give each other courage and inspiration. Hand-in-hand, we conduct different programmes to build awareness, so that people in the neighbourhood get to know these issues and start thinking about them. We are rewarded with success, sometimes immediately, and sometimes it follows somewhat slowly. Some incidents have proved to us that we are making a difference in our locality. It is the adolescent girls who come forward actively to stop the early marriages of their peers. The elders call upon us when they face a problem.

Those who share our way of thinking and are yet to come forward, I request them — please gather together. Talk to others about these. Make them think. Everyone does not get a ready made platform, some of us have to create our own. Let us be those architects.


একটা ছেলের দৃষ্টিকোণ

আমি দীপ, দমদম দৃষ্টিকোণ দলের একজন সদস্য। আমি যুবক। সমগ্র বিশ্বের সমস্ত পুরুষের মধ্যে আমি এক অংশবিশেষ। পুরুষ হিসেবে ছেলেবেলা থেকেই চারপাশের পরিবেশ তথা সমাজ থেকে শিখেছি যে আমাকে মানে ছেলেদেরকে শক্তিশালী হতে হবে, বুদ্ধিমান হতে হবে, ভাল পড়াশুনা করে ভাল রোজগার করে নিজের পরিবারকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অংশগ্রহণ করে সমাজকেও সমৃদ্ধশালী করতে হবে। এই দৃষ্টিকোণ নিয়েই অনেকটা বড় হয়েছি, কিন্তু যবে থেকে আমার মন বিকশিত হতে শুরু করেছে, যবে থেকে মনের দরজা-জানালা খুলে সমাজকে ও সমাজের দ্বারা ঘটিত ঘটনাবলীকে জ্ঞান-যুক্তি-বুদ্ধি ও হৃদয় দিয়ে বিচার করতে শিখেছি, তখন থেকেই আমি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি অর্থাৎ ছেলেদের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে যথেষ্ট চিন্তায় আছি।

যখন থেকে খবরের কাগজ পড়া ও টিভিতে খবর দেখা শুরু করেছি, তখন থেকেই কিছু শব্দ অনবরত শুনে আসছি — শ্লীলতাহানি, ধর্ষণ ইত্যাদি। আমার পুরুষদের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে চিন্তার বিশেষ কারণ হল প্রায় ১০০ শতাংশ ক্ষেত্রেই এই ঘ্টনা ঘটছে পুরুষদের দ্বারা আর যারা এই ভয়াবহ হিংসার শিকার হচ্ছে তারা হল মহিলা। আমাকে বিশেষভাবে নাড়া দিয়েছে বারাসাত, পার্কস্ট্রিট, দিল্লি, কামদুনি, সুটিয়ার মতো ঘটনা। এই ধরণের ঘটনা এর আগেও এবং এখনও গ্রাম-শহর নির্বিশেষে আকছার ঘটে যাচ্ছে। অনেক ঘটনাই হেডলাইন পর্যন্ত পৌঁছচ্ছে না। এক একটা ঘটনা ঘটে আর তারপরই সারা দেশ জুড়ে শুরু হয়ে যায় প্রতিকারের জন্য সংগ্রাম। কেউ কেউ সভা সমিতি স্থাপন করে, কেউ কেউ পথ অবরোধ করে, মৌন মিছিল করে। বিভিন্ন জায়গা থেকে বিভিন্ন আওয়াজ ওঠে-‘বিচার চাই’, ‘অপরাধীর শাস্তি চাই’ প্রভৃতি। পুলিশ প্রশাসন চাপে পড়ে তৎপর হয়ে কখনো কখনো অপরাধীকে ধরে। ধীরগতিতে বিচারও চলতে থাকে। কিন্তু ব্যাধি সারে না। আবার কদিন বাদে একই রকমের অন্য ঘটনা। তার জন্য আবার আওয়াজ — ‘ধর্ষণ বন্ধ হোক’, ‘বিচার চাই’, ‘অপরাধীর শাস্তি চাই’। আসলে এই ব্যাধি এভাবে সারার নয়, কারণ এর বীজ লুকিয়ে রয়েছে অনেক গভীরে, অনেক।

আমাদের পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় প্রতিদিনকার জীবনে ছোট-ছোট নানারকমের হিংসা মেয়েদের প্রতি করা হয়ে থাকে আর সমাজের বেশিরভাগ মানুষ সেগুলিকে হিংসার মধ্যে ধরে না। যেমন-মেয়েদের বাইক চালানোর ইচ্ছা হতে নেই, তাদের স্কুটি চালানো উচিত। একই বাড়িতে স্বামী-স্ত্রী দুজন কাজ করলেও বাড়ি ফেরার পর স্ত্রীরই রান্না করা উচিত ও পরিবেশন করে খাওয়ানো উচিত। মেয়েরা এখন আগের তুলনায় বেশি শিক্ষার সুযোগ পেলেও সেই শিক্ষা ছেলেদের মত উপার্জনশীল হওয়ার জন্যে নয়। সে শিক্ষা হল ভাল পাত্রের সঙ্গে বিয়ে হওয়ার জন্য। এধরনের হিংসা আমরা অজান্তেই করতে থাকি। আমরা কখনো ভাবি না যে এগুলোও হিংসারই রূপ। এর কারণ আমরা এভাবেই অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি। আমাদের কাছে এগুলোই স্বাভাবিক। আর আমরা ভাবিও না যে শ্লীলতাহানি, ধর্ষণ ইত্যাদি এই হিংসারই পরিণত রূপ। শ্লীলতাহানিও অনেক যুবকের কাছেই খুব সাধারণ ব্যাপার, যেটা হয়েই থাকে। এটা যেন একটা মজা করা বা ইয়ার্কির ব্যাপারও হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর কারণ মেয়েদেরকে আমরা অনেক ছেলেরাই সম্মান করতে পারছিনা বা চাইছিনা। সম্মান করা তো দুরের কথা, ভাবলে কষ্ট হয় এখন এই ইন্টারনেটের যুগেও কন্যা ভ্রূণহত্যা হয়ে যাচ্ছে লোকচক্ষুর অন্তরালে। চিন্তার ব্যাপারটা এই যে, এই সমস্ত রকমের হিংসা ধনী-দরিদ্র, শিক্ষিত-অশিক্ষিত, গ্রাম-শহর সমস্ত পরিস্থিতি নির্বিশেষে ঘটে চলেছে।

এর ফলে ছেলে ও মেয়েদের রেশিওতে প্রভাব পড়ছে। সমাজের ভারসাম্যও নষ্ট হয়ে যেতে বসেছে। আমি যেমন বহু মহাপুরুষ-মনিষী(যারা ছেলে) দের জন্য গর্ববোধ করি তেমনি কিছু অসভ্য বর্বরদের ঘটানো কিছু ঘটনার জন্য ছেলে হিসাবে মুখ দেখাতে ও মেয়েদের সামনে দাঁড়াতেও খুব লজ্জাবোধ করি। তাই আজ আমার দৃষ্টিভঙ্গি আর শক্তিশালী, বুদ্ধিমান ও পরিবারের কর্তাব্যক্তির মধ্যে আবদ্ধ্ নয়। আজ আমার দৃষ্টিভঙ্গি অনেক পরিবর্তিত, অনেক স্বচ্ছ।

তবে শুধু দৃষ্টিভঙ্গি বদলালেই চলে না। নিজের আচার-ব্যবহার ও কাজে তার প্রতিফলন চাই। অবশ্য সত্যিই যদি দৃষ্টিভঙ্গি বদলায় তবে নিজের থেকেই তার প্রকাশ ঘটে। যেমনটা ঘটেছে আমার ক্ষেত্রে। আমার বাড়িতে আমার দিদিকে কোন অংশে কম মনে করিনা। বর্তমানে আমি বাড়ির বিভিন্ন কাজ যেমন-চা, টিফিন বানানো এগুলো করে থাকি। আগে মা ও ঠাকুরমা আমাদেরকে খাইয়ে খেত। এখন অনেকদিন ধরে চেষ্টার পর সম্ভব হয়েছে তাদের ধারণা বদলে সবাই মিলেমিশে খাওয়ার ভাগ করে খাওয়া। আগে বিভিন্ন বাইরের কাজ যেমন দোকানে যাওয়া, ইলেকট্রিক বিল জমা দেওয়া, রেশন তোলা -- এগুলো নিজেই দম্ভের সাথে করতাম। কিন্তু এখন এসব কাজে দিদিকেও সুযোগ দিই। আগে বিভিন্ন ভারী কাজ যেমন কিছু বয়ে নিয়ে যাওয়া নিজে করতাম বা ছেলেদের দায়িত্ব দিতাম কিন্তু এখন ভাবি যে মেয়েরাও সক্ষম তাই তাদের অযথা সহানুভূতি দেখিয়ে তুচ্ছ করিনা। কোথাও অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে ছেলে ও মেয়ের রেশিও সবসময় সমান রাখার চেষ্টা করি। আমাদের ক্লাবের কমিটি গঠন হওয়ার সময় কমিটি মেম্বার হওয়ার জন্য আমি দুজন মহিলা সদস্যার নাম প্রস্তাব করেছিলাম। খুশির খবর, তারা আজ আমাদের ক্লাবের দায়িত্বশীল পদে নিযুক্ত ও সম্মানিত।

আমি কোনদিনও শ্লীলতাহানি করিনি ঠিকই কিন্তু শ্লীলতাহানির প্রতিবাদও করতাম না। বাসে-ট্রেনে কোনো মহিলাকে কেউ বিরক্ত করলে, বা রাস্তার মোড়ে একদল ছেলে কোন মেয়েকে আওয়াজ দিচ্ছে দেখলে আগে আমি ঝামেলায় না জড়িয়ে এড়িয়ে যেতাম। কিন্তু এখন প্রতিবাদ করি। এরকমই একটা ঘটনা বলি। একদিন বাসে এক মাতাল এক মহিলাকে তার পোষাক নিয়ে কটূক্তি করছিল ও বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি করছিল। সেটা সবাই দেখছিল কিন্তু কিছু বলছিল না। আমি তখন ওই মাতাল লোকটাকে বললাম হয় চুপচাপ, ভদ্রভাবে দাঁড়াতে নাহলে বাস থেকে নেমে যেতে। তখন অনেকেই একই আওয়াজ তুললো ও লোকটাকে বাস থেকে নামিয়ে দিল। কিছু দিন আগের একটা ঘটনার কথাও মনে পড়ছে। আমাদের পাড়ায় একটি তেরো বছরের মেয়ের বিয়ের বন্দোবস্ত করা হচ্ছিল জানতে পেরে আমরা দলসহ ছুটে যাই এই বিয়ে বন্ধ করার জন্য। গিয়ে মেয়েটির বাবা-মাকে বোঝাই। আর একটি মেয়ে তারও বয়স তেরো কি চোদ্দ। তার মা একদিন সন্ধ্যায় এসে কাঁদতে কাঁদতে বলল তার মেয়েকে পাওয়া যাচ্ছে না। তখনই আমি আমার কিছু বন্ধুদের নিয়ে স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়িতে ডাইরি করাই। পরদিন দ্বিতীয় বার বিয়ে করা লোকের সঙ্গে পালিয়ে যাওয়া মেয়েকে বুঝিয়ে বাড়ি আনা হয়। এখনও আমরা কজন তাকে অনবরত কাউন্সেলিং করে যাচ্ছি। পাড়ার আর একজন নিঃস্ব লোক ঠিকমত সংসার চালাতে পারতো না, অথচ প্রতিদিন মদ খেয়ে বাড়ি ফিরে বউ-মেয়েকে পেটানো তার স্বভাব হয়ে দাঁড়িয়েছিল। তাকে বুঝিয়ে, ধমকিয়ে এখন অনেকটা পথে আনতে পেরেছি। আমার সময় খুব কম থাকলেও আমি ‘জেন্ডার অ্যান্ড মেল রেস্পন্সিবিলিটী’-র দায়িত্ব সামলাচ্ছি কারণ আমি ছেলেদেরকে সক্রিয় করে হিংসা দূর করতে চাই ও মেয়েদেরকেও প্রতিবাদী করে তুলতে চাই। আমি একা নই। আমার অনেক বন্ধু ও আমি এই দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে নতুন সমাজ গড়ার চেষ্টা করছি। নিজেদেরকে উদাহরণ করে তোলার চেষ্টা করছি। তাই আজ আমাদের লক্ষ্য শুধু নিজেদের শক্তিশালী করা, বুদ্ধিমান করা, ভালো পড়াশুনা করে ভাল রোজগার করা, সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অংশগ্রহণ করে সমাজকে সমৃদ্ধশালী করা নয়। এর সাথে-সাথে আমাদের কর্তব্য মেয়েদেরকে নিজেদের সমকক্ষের সম্মান দেওয়া। আর পরিবার, আত্মীয়, বন্ধু-বান্ধব, প্রতিবেশিদের মধ্যে যেন সব জায়গায় মেয়েরা সুযোগ পায় ও নিজেদের খুশিমত অংশগ্রহণ করতে পারে সেদিকে নজর রাখা। সমাজের দুটো ভাগ নারী-পুরুষ উভয়েই যদি সমান ভাবে এগোয় তাহলেই গোটা সমাজটা এগোবে।

আমার বক্তব্য এত স্পষ্ট কারণ আমি দৃষ্টিকোণ দলের সঙ্গে যুক্ত। এই দল আমাদের মতো ভাবনাচিন্তার ছেলেমেয়েদের দল। আমরা কখনো একা ও কখনও দলবদ্ধভাবে হিংসার মোকাবিলা করি। একে-অন্যকে সাহস যোগাই ও অনুপ্রাণিত করি। হাতে-হাত ধরে বিভিন্ন সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান করি পাড়াকে বিষয়গুলি নিয়ে জানানোর বা ভাবানোর জন্য। কখনো সফলতা পাই খুব দ্রুত, কখনো একটু মন্থর গতিতে। আমাদের পাড়াতে প্রভাব পড়তে শুরু করেছে সেটা কিছু ঘটনা থেকে বুঝতে পারি। বয়ঃস্বন্ধিক্ষণের মেয়েরাই এখন সমবয়সী মেয়েদের বিয়ে আটকানোর ক্ষেত্রে সক্রিয়ভাবে এগিয়ে আসে। পাড়ার বড়রা কোন সমস্যা হলে ডেকে পাঠায়। যারা আমার সঙ্গে এ সব বিষয়ে একমত অথচ এগিয়ে আসছেন না, তাদের কাছে অণুরোধ — একত্রিত হন। অন্যদের সঙ্গে এ বিষয়টা নিয়ে কথা বলুন। বাকিদেরকেও ভাবান। সবাই প্ল্যাটফর্ম পায়না, কাউকে কাউকে প্লাটফর্ম তৈরি করতে হয়। আমরা না হয় সেই কারিগরই হলাম।
 

No comments:

Post a Comment

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here