31 Dec 2013

With Change Comes Trouble

YRC KYP Boys (2013)

Narrated by Group members of YRC KYP Boys and YRC Disha, Kuldia. Recorded by Krishna Goldar and Binita Chakraborty, 2nd October, 2013. Please see the brief note on MSC for a background on the process.

Unlike the other MSC stories in this blog, this one is compiled from testimonies of several group members and members of the community, all relating to the same set of incidents.


Village Kuldia is about 80 km from Kolkata, in Magarahata block of South-24-Parganas district. Our neighbourhood is called Sheikh Para, comprising entirely of about 100 Muslim families. Farming is the main occupation. Many Men and Women are also engaged in floriculture and zari work. Some men also do masonry or painting work, for which they travel to the city, and sometimes out of the country. This kind of work attracts lots of young boys too, but on the whole most children go to school./span>



Azharuddin Sheikh
25 years old. M.A. in History and taking tuitions at home. Youth Facilitator with TF. Main source of income is farming on family land. Family of four - Azhar, his wife, 2 year old daughter, mother. Two brothers, their wives and children live in the same house as separate families.

“A couple of years back, I created two groups in our neighbourhood – one for boys, called KYP Boys, of which I am a member, and the other for girls, called Disha. At first I had tried to create a single group with both boys and girls, but people objected; plus, some boys and girls were also not comfortable about sitting and talking together.
While the groups are separate, when we conduct any programme, members from both groups attend. A couple of members from each group were elected as Youth Fellows by TF, and got the opportunity of being trained on different subjects. Later they trained the other members of the group and conducted programmes in the para.

When we conducted a programme on our feelings and thoughts surrounding our para [Neighbourhood Diaries], most people supported us. But later when we started talking about the equal relationships between men and women, then conflicting opinions were aired. Some felt that it was very important to talk about this, while others felt that such topics went against our religion and had no place in our society.
From then on, both the groups have been going through a very hard time. But this has only increased the self-confidence of some members of the groups, including me. We are seeing the light of hope in the problem itself. The way we are questioning our own stereotypical patterns of thinking, in the same way we are feeling the need for society to change.

The biggest thing is, we are talking about things considered as extremely sensitive subjects in our society, and that itself feels like a big change. We are seeing this change in ourselves and it seems that the thought processes of others in our community have been stirred up as well. We want to talk about these things today. Group members Tajrul, Rakibul, and I want to talk about these changes from our different perspectives.

When we started discussions on adolescent health in the boys’ group, we thought of dividing ourselves up into age-wise groups and having these discussions separately. Since the subject of the discussion was about bodily changes and reproductive organs, we were worried about how the boys would take it. But the day the discussions started, we had the feeling that it was very important to talk about these things. Everyone seemed to be participating eagerly. The younger ones were asking a lot of questions, and the older ones, in spite of laughing and joking a lot in the beginning, were also getting answers to their questions.

However, after our programme on gender equality, we’ve had to face a lot of adverse reactions. Many boys in the neighbourhood [not part of the group] were unable to accept the fact that girls were forming a group of their own, or that they were travelling out of the village. This resulted in a lot of girls being stopped from coming to the group. But quite a number of boys are continuing in their efforts to create a space for themselves in the para and if we remain united like this, we know that we will get the support of many people and those who are opposing us will also gradually start to understand us.”




Tajrul Sheikh
22 years old. Completed graduation, taking tuitions from home. Appearing for different vocational exams. See the film referred to here: Based on True Stories

“Some time back we had been shown a video in our group. When we showed the same video in a programme we held in our para, some people started opposing us a lot. This made us a little scared and made us feel that maybe we shouldn’t have organised this programme.

The movie was about the equality of man-woman relationships. Some things came up, which seemed to some to go against our religion. Many were saying that men and women could never be equal, women should always preserve their dignity in their dress-code, they shouldn’t go out to work.

A scene in the video had touched upon the issue of female infanticide. In this context, many protested that that kind of thing did not happen in this locality, so why was it being shown? As we were trying to answer these questions, many were opposing us. They were of the opinion that as a group, we weren’t doing the right thing and it was not right to show such things here. We showed them the film again and tried to make them understand. We gave religious examples; that our religion speaks about equal woman and man relationships as well. We gave them lots of facts surrounding women’s education and their role in housework. We told them how our prophet Hazrat Muhammad too used to do household chores, and so it was not right to burden only the women with housework. We also told them a familiar account of how a female infant had been killed at birth. Then we asked them whether they thought this was right? Then many of them understood that many things were happening till date that were not right.

Still there are some people who are against us and since girls are being prevented from going out of home, the number in the girls’ group has gone down. The good thing is, our group has become quite influential in our neighbourhood. Many people now know that we think about and work with these issues. Many parents are supporting us. And I believe that gradually we will be able to overcome the barriers that still exist.”




Rakibul Sheikh
24 years old. M.A. in Library Science. Taking tuitions from home, farming the family land, Youth Fellow (TF). Lives in a joint family wife, daughter, parents, elder brother and sister-in-law, younger brother, nephew and niece. See the film referred to here: Shuru

“In the discussions over these three months, we explored male responsibility and the idea of an "ideal man". We talked of sharing housework and not forcing our wives, or any woman for that matter, to do something, and giving them equal opportunities.

Some time back, after seeing a film called “Shuru”, I felt that a beginning can be made in a number of different ways. Some people in the movie wanted to kill off an AIDS patient while some others wanted to save her life and were trying to make the others understand. In working for the group, we also have often encountered obstacles but we have persisted in our efforts to hold the group together and have been able to get a foothold in our para.

Even if we continue to face obstacles in the future, as they showed in the film, we have to go forward both with those who support us and with those who don’t. Those in the latter category may also be thinking of the good of the neighbourhood, but they are opposing us since they don’t really know the issues we are working with. Their ignorance is keeping them separate from us.”




Voices of people from the neighbourhood regarding the role of the group and its influence…

Mohammad Rabiul Huda Sheikh
32 years old, school teacher, elder brother to a member of the KYP Boys group

“The percentage of educated people in our area is quite high nowadays. Earlier people here did not know many things, there was lack of awareness. But now most people are sending their children to school. More awareness is also thanks to the efforts of some boys and girls of the neighbourhood. Azhar, my brother Rakibul, Tajrul, Sariba, Selina – all of them are trying to bring about positive change through their groups. I am also associated with this. I have seen their work from the beginning, and I fully support them.

When they conducted that programme in the para, I was there. I also know the kind of opposition they faced after showing the movie about equality of relationships. Actually, in spite of the increasing rate of educated people here, some people, especially some boys who are not educated nor think good thoughts – are influencing people negatively, leading them to oppose the group. Many among them are my students. They have been visiting the homes of the younger boys of the group and brainwashing their parents.

If the group wants their good influence in the para to return, then I think they should call a meeting. In this meeting, all the people of the para should be present, especially the boys’ parents and some supportive people like us. There the group members should speak out. I think such a discussion will be able to resolve most misconceptions.

I want groups like this to continue with their work all the more. When they had started discussions on the changes of adolescence, I was with them but I had also told them that it was not so easy to talk about such things in our village. There would be obstacles. I had also suggested that there being many young boys in the group, the discussion should not happen with everyone sitting together; the boys should be split into groups according to age and the training should happen separately. They did this, but still somehow, word got around and people got the wrong idea. I think a meeting will dispel all this. And the people of the para need to be convinced! After some time, when such discussions start in the school as well, they cannot stop going there as well, can they! So what the group is doing is totally right – I support them fully.”


The KYP boys meet to discuss how to handle an upcoming event (May, 2013)
 


Habiba Bibi
35 years old, housewife, mother of a member of the Disha group

“The girls’ group sits in our house. My daughter as well as other girls of the para were getting to learn many good things from the group. But after the movie was shown, some boys of the para began objecting to the girls going to the TF office or sitting in the group.

The day the boys learnt that the girls had been learning about their bodies in the past few months, they landed up in individual homes and threatened them. They told my daughter that if she went out of home, they would break her leg. Their parents also do not approve. But when they have these discussions in my house, I am often present, my mother-in-law also often watches them. I never felt they were learning anything bad. But what does my saying so matter? My daughter is not that old. If the older girls came to the group regularly and tried to make the parents of the younger ones understand, then something would have been achieved.

There are some people in the para who appear to support but actually oppose them behind their backs. I have told my daughter as well as the others, “You were learning something good in Kolkata, it is not right that it should stop. If need be, I will accompany you.” In my opinion, the members of both groups should call a meeting with the parents of group members. This way, many things will be cleared.”




Anwara Bibi
49 years old. Housewife, mother of a member of the Disha group

“My daughter used to attend group meetings, but her father and brothers do not want her to. What can I say? Everything does not happen because I wish it to, all my time goes by in housework. When they had their programme, I had attended and liked it. But nothing will happen unless everybody wants it to.”



Sanjhwara Khatun
30 years old. Stay at home after graduation, help out with zari work and farming. Irregular member of the Disha group

“It was after the programme on equal relationships that my younger brother forbade me to go to the group. Whenever I tried to reason with him, he would throw a tantrum. After getting to know the current topic of discussion in the group, he is saying he will put an end to the group’s existence. In any case, everyone objects to our getting educated or going out of home however necessary. I can't stand so much turmoil, so I have stopped going to the group.”




পরিবর্তনের সঙ্গে আসে সমস্যাও



আমাদের গ্রামের নাম কুলদিয়া। কলকাতা থেকে প্রায় ৮০ কিমি দূরে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার মগরাহাট ব্লকে আমাদের এই গ্রাম। আমাদের পাড়ার নাম শেখ পাড়া। আমাদের পাড়ায় সবই মুসলিম পরিবার। আমাদের পাড়ায় একশরও উপরে পরিবার আছে। চাষাবাদই মূল জীবিকা, এছাড়া ফুলের চাষ এবং শাড়িতে জরির কাজ অন্যতম প্রধান জীবিকা। নারী-পুরুষ উভয়ই এইধরনের পেশার সাথে যুক্ত। তবে গ্রামের অনেক ছেলেই রাজমিস্ত্রির কাজ, রঙের কাজ ইত্যাদির জন্য কলকাতায়, কলকাতার বাইরে,এমনকি দেশের বাইরেও যায়। অনেক ছোট ছোট ছেলেও এইসব কাজের সাথে যুক্ত। তবে এখন বেশিরভাগ ছেলে-মেয়েই স্কুলে পড়ে।

আজাহারউদ্দিন শেখ
বয়স ২৫ বছর। ইতিহাসে M.A করে বাড়িতে টিউশন করি। বর্তমানে আমি থট্‌শপের ইয়ূথ ফেসিলিটেটর। এছাড়া নিজের জমিতে চাষবাস করে জীবিকা নির্বাহ করছি। আমি, আমার বউ, আমার দুবছরের মেয়ে এবং মা ৪জন এক পরিবারে থাকি। এছাড়া আমার দাদারা, বউদিরা তাদের ছেলে-মেয়েরাও আলাদা আলাদা পরিবারে একই বাড়িতে বসবাস করে।

"এর আগে আমি থট্‌শপ থেকে ইয়ূথ লিডারশিপ ট্রেনিং নিয়েছিলাম। তারপর প্রায় দু-আরাই বছর আগে নিজের পাড়ায় দুটি দল গঠন করি – একটি ছেলেদের অর্থাৎ KYP Boys যার সদস্য আমি, এবং একটি মেয়েদের, এই দলটির নাম দিশা। প্রথমে একটিই দল গঠনের প্রচেষ্টা করেছিলাম পাড়ার কয়েকজন ছেলেমেয়েদের সাথে মিলে কিন্তু আমাদের পাড়ার মানুষের আপত্তি, এমনকি দলের কিছু ছেলেমেয়েরাও এক সাথে দলে বসা বা কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছিল না। তাই আমরা আলাদা দুটি দল গঠন করি, তবে এলাকায় কোন অনুষ্ঠান করার সময় আমরা একসাথে দুটো দলের সদস্যরাই অংশগ্রহন করে থাকি। এভাবেই দুটো দল থেকে ইয়ূথ ফেলো হিসেবে এক-দুজন সদস্য থট্‌শপে বিভিন্ন বিষয়ের উপরে ট্রেনিং নিতে যায় এবং ফিরে এসে দলের অন্যান্য সদস্যের সাথে সেই বিষয়ে আলোচনা করে, এলাকাতে অনুষ্ঠানও করে। এইরকমভাবেই আমরা আমাদের পাড়াকে নিয়ে আমাদের কি ভাবনা-চিন্তা, অনুভুতি তার উপর একটি অনুষ্ঠান করি তখন এলাকার প্রায় সবাই আমাদের সমর্থন করে কিন্তু এরপর যখন আমরা এলাকায় সম্পর্কের সমানতা নিয়ে কথা বলতে শুরু করি তখন বিভিন্ন ধরনের মতামত উঠে আসে। কারো মনে হয় আমরা যে বিষয় নিয়ে কথা বলছি তা আলোচনা করা বিশেষভাবে প্রয়োজনীয় আবার কিছুজনের মনে হয় এইসব বিষয় নিয়ে কথা বলা আমাদের ধর্ম বিরুদ্ধ, আমাদের সমাজে এর প্রয়োজনীয়তা নেই। সেইসময় থেকেই আমাদের দল এবং মেয়েদের দলটিকেও অনেক বাঁধা-বিপত্তির মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে। এসব কিছুই আমাকে এবং আমার দলের বেশকিছু সদস্যের মধ্যে আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে, সমস্যার মধ্যেই আমরা আশার আলো দেখতে পাচ্ছি। নিজের গতানুগতিক চিন্তা-ভাবনাকে যেমন প্রশ্ন করছি সেভাবে সামাঝিক পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তাটাও অনুভব করছি। সবথেকে বড় ব্যাপার হল আমাদের মত সামাঝিক পরিস্থিতিতে যে সমস্ত স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে আমরা কথা বলছি সেটা অনেক বড় পরিবর্তন বলে মনে হচ্ছে। এই পরিবর্তনটা আমরা নিজেদের মধ্যে যে দেখতে পাচ্ছি, আমাদের মনে হয় পাড়ার অনেক মানুষের মানসিকতাতেও তা বিশেষভাবে নাড়া দিয়েছে। আমাদের এই চেষ্টা এবং উপলব্ধির কথায় আমরা বলতে চাই। আমি আজাহার, আমার দলের আরও দুজন সদস্য তাজরুল এবং রাকিবুল, আমাদের আলাদা আলাদা দৃষ্টিভঙ্গি থেকে এই পরিবর্তনের কথা তুলে ধরছি।
আমরা যখন আমাদের শরীর স্বাস্থ্য নিয়ে ছেলেদের দলে আলোচনা শুরু করলাম তখন বয়সের পার্থক্য একটা বড় সমস্যা হয়েছিল। আমাদের দলে সবে বয়ঃসন্ধিতে পরেছে এমন অনেক ছেলে আছে আবার অনেক বড় ছেলেরাও আছে। তাই মনে হল একসঙ্গে আলোচনা না করে আমরা দুটো দলে ভাগ হয়ে আলাদা আলাদা ভাবে এই বিষয়ে কথা বলি। তবে যেহেতু নিজেদের শারীরিক পরিবর্তন এবং প্রজনন অঙ্গ এই ব্যাপারে আলোচনা হবে তাই দলের ছেলেরা কেমনভাবে নেবে সেটা একটা চিন্তার ব্যাপার মনে হচ্ছিল। তবে যেদিন থেকে এই আলোচনা শুরু হল মনে হল আমাদের দলে এইধরনের বিষয়ে কথা বলা খুব জরুরী এবং সবাইকে দেখে মনেও হল সবাই খুব আগ্রহ সহকারে অংশগ্রহন করছে। ছোটরা তো অনেক প্রশ্নও করছে। বড় যারা আছে তারা প্রথম প্রথম অনেক হাসাহাসি করলেও এখন অনেকেই তাদের অনেক অজানা প্রশ্নের উত্তরও পাচ্ছে। আরেকটা ব্যাপার হল কিছুদিন আগে পাড়ায় gender-এর উপর আমরা যে একটা অনুষ্ঠান করলাম তারপর থেকে আমাদেরকে অনেক কথা শুনতে হয়েছে বিশেষ করে পাড়ার বেশ কিছু ছেলে মেনে নিতে পারছে না মেয়েদের দল করার ব্যাপারটা বা তারা যে গ্রামের বাইরে যাচ্ছে। ফলে অনেক মেয়েও দলে আসা কমিয়ে দিয়েছে। কিন্তু আমাদের দলে বেশ কিছু ছেলে আছে যারা এখন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পাড়ায় নিজেদের একটা জায়গা তৈরি করতে এবং আমাদের মধ্যে এই একতাটা থাকলে আমরা নিশ্চয়ই অনেক মানুষকেই পাশে পাবো এবং যারা বিরোধিতা করছে তারাও আসতে আসতে আমাদের বুঝতে পারবে।"



তাজরুল শেখ
বয়স ২২ বছর। গ্র্যাজুয়েশন করে বর্তমানে টিউশন করছি বাড়িতে এছারাও বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষা দিচ্ছি। আমি একটি যৌথ পরিবারে মা বাবা দুই দাদা এবং দুই বউদি, ভাইপো-ভাইজি সবাই একসাথে থাকি।

"কিছু দিন আগে আমরা দলে একটা ভিডিও দেখেছিলাম, সেটা যখন পাড়ায় অনুষ্ঠান করে দেখালাম তখন পাড়ার বেশ কিছু লোক আমাদের খুব বাঁধা দিচ্ছিল, এই বিরোধিতার ফলে বেশ ভয়ও লাগছিল, মনে হল এই অনুষ্ঠান না করলেই হত। আমরা এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নারীপুরুষের সমানাধিকার নিয়ে ছবি দেখাচ্ছিলাম। এই ছবিতে বেশ কিছু প্রসঙ্গ ওঠে যেটা অনেকেরই আমাদের ধর্ম বিরোধী বলে মনে হয়। যেমন – অনেকেই বলছিল ছেলে-মেয়ে কখনই সমান হতে পারে না, পোশাকের দিক থেকে মেয়েদের সবসময় নিজেদের মর্যাদা মেনে চলতে হবে, বাইরে গিয়ে কাজ করা চলবে না। আরও বলছিল ছবিতে একটা দৃশ্য ছিল যেখানে কন্যা ভ্রূণ হত্যা দেখানো হয়েছিল, সে প্রসঙ্গে অনেকেই বলে আমাদের এখানে এরকম কিছু হয় না, তবে কেন এখানে এই ধরনের ছবি দেখানো হবে? এইসব প্রশ্নের উত্তর যখন আমরা দেওয়ার চেষ্টা করছি সেই সময়ও অনেক বিরোধিতা হচ্ছে, অনেকেরই মনে হচ্ছে “আমরা দল হিসেবে ঠিক কাজ করছি না এবং এইধরনের সিনেমা আমাদের এখানে দেখানো ঠিক নয়”। তাই আমরা ওদের আবার সিনেমাটা দেখালাম এবং কিছু ধর্মীয় উদাহরন দিয়ে বোঝাবার চেষ্টা করলাম আমাদের ধর্মেও নারীপুরুষের সমান অধিকারের কথা বলা হয়েছে, যেমন মেয়েদের পড়াশোনা করার বিষয়ে, বাড়ির কাজ করা নিয়েও অনেক তথ্য দিলাম। এও বললাম আমাদের ধর্মগুরু হজরত মহম্মদ কিভাবে ঘরের কাজ করত এবং এখন যে আমরা বলি সংসারের দ্বায়িত্ব শুধু মেয়েদের সেটাও তো ঠিক নয়। আরও একটা অনেক পুরনো গল্পের মাধ্যমে বোঝালাম কিভাবে কন্যা জন্মালে হত্যা করা হয়েছিল যেটা সেইসময় অনেকেই প্রতিবাদ করে। তখন আমি ওদের জিজ্ঞ্যাসা করি এটা কি তাহলে ঠিক হল? অনেকেই বুঝল এমন অনেক কিছুই আজও হয় যেটা ঠিক নয়। তবে এখনো অনেকে আমাদের দলের বিরোধিতা করছে এর ফলে মেয়েদের দলেও সংখ্যা অনেক কমে গেছে কারন তাদের বাইরে আসতে বাঁধা দিচ্ছে। তবে ভালো দিকও একটা দেখা গেছে সেটা হল পাড়ায় আমাদের দলের একটা প্রভাব তৈরি হয়েছে এবং এইরকম বিষয় নিয়ে যে আমরা ভাবছি সেটা এখন অনেকেই জানে, অনেকের মা-বাবাই আমাদের সমর্থন করছে। আর যে বাঁধাগুলো আসছে সেটা আমরা আসতে আসতে কাটিয়ে উঠবো এটা আমার বিশ্বাস।"


মহম্মদ রাকিবুল শেখ
বয়স ২৪ বছর। লাইব্রেরী সাইন্সে M.A করার পর বর্তমানে টিউশন, নিজেদের জমিতে চাষবাস এবং KYP Boys দলের একজন ইয়ূথ ফেলো। আমি একটি যৌথ পরিবারে আমার স্ত্রী, মেয়ে, মা-বাবা, দাদা-বউদি, ভাই, ভাইপ-ভাইজি সবাই একসাথে থাকি।

"আমাদের এই তিন মাসে যে আলোচনা হল তাতে ছেলেদের দায়িত্ব বা সে কিভাবে আদর্শ পুরুষ হয়ে উঠবে সেটা আমরা জেনেছি। ঘরের কাজ ভাগ করে নেওয়ার মাধ্যমে। তার স্ত্রী বা কোন মেয়ের উপর কোন রকম জোর না করে তাকে সমান সুযোগ দেওয়ার মাধ্যমে আমরা আদর্শ পুরুষ হতে পারি। কিছু দিন আগে “শুরু” নামের একটি ফিল্ম দেখলাম, সেখানে দেখেছি বেশ কিছু দিক দিয়ে শুরু হতে পারে। ঐ ছবিতে কিছুজন আছে যারা একজন এইড্‌স রুগীকে মেরে ফেলতে চাইছে আবার কয়েকজন তাকেই বাঁচিয়ে তোলার চেষ্টা করছে এবং অন্যদের বোঝাতে চাইছে। আমাদেরও দলের কাজ করতে গিয়ে অনেক সময়ই অনেক ধরনের বাঁধার মুখোমুখি হতে হয়েছে কিন্তু আমরা নিজেদের চেষ্টায় দলটাকে ধরে রেখেছি এবং পাড়ায় নিজেদের একটা জায়গাও তৈরি করতে পেরেছি। ভবিষ্যতে হয়তো আরও এরকম বাঁধা আসবে কিন্তু ওই ফিল্মে যেমন দেখালো আমাদের যারা সমর্থন করছে তাদের সাথে সাথে যারা সমর্থন করছে না তাদেরকেও সঙ্গে নিতে হবে। তারাও হয়তো পাড়ার ভালই চায় কিন্তু তারা আমাদের বিরোধিতা করছে কারন তারা জানে না বিষয়টি সম্বন্ধে, তাদের সচেতনতার অভাবই আমাদের থেকে তাদের দূরে করে রেখেছে।"


পাড়ায় দলের ভূমিকা এবং প্রভাব সম্পর্কে পাড়ার কিছু মানুষের বক্তব্য

মহম্মদ রবিউল হুদা শেখ
৩২ বছর বয়স, স্কুলের শিক্ষক, KYP Boys দলের সদস্যের দাদা।

"আমাদের এলাকায় শিক্ষিতের হার এখন অনেকটাই বেশি। আগে আমাদের এলাকায় মানুষ অনেক কিছুই জানতো না, সচেতনতার অভাব ছিল, তবে আমি আরও কিছু ছেলেদের প্রচেষ্টায় আগের থেকে মানুষ অনেক সচেতন হয়েছে। সবাই তাদের ছেলেমেয়েদের স্কুলে পাঠাচ্ছে। যেমন পাড়ার কিছু ছেলেমেয়ে আজাহার, আমার ভাই রাকিবুল, তাজরুল, সারিবা, সেলিনা এরা অনেকেই নিজেদের দলের মাধ্যমে এলাকার উন্নতির চেষ্টা করছে। ওদের কাজকে আমি প্রথম থেকেই দেখছি, আমি ওদের পুরপুরিভাবেই সমর্থন করি। ওরা যখন পাড়ায় অনুষ্ঠান করল তখনও আমি ছিলাম। সমানতার বিষয় নিয়ে ছবি দেখালো এবং যে ধরনের বিরোধিতার সম্মুখীন হল সেটাও আমি জানি। আসলে এলাকায় যেমন শিক্ষিতের হার বাড়ছে সেরকম কিছু মানুষ বিশেষ করে কিছু ছেলে যারা পড়াশোনাও করেনি এবং ভালো চিন্তা-ভাবনাও রাখে না তাদের কুপ্রভাবের জন্য এইধরনের বাঁধা আসছে। ওদের মধ্যে অনেকেই আমার ছাত্র, এরাই কিছুদিন ধরে দলের অল্প বয়সী ছেলেদের বাড়িতে গিয়ে তাদের মা-বাবাদের ভুল বোঝাচ্ছে।
আমার মনে হয় এলাকায় এই দলকে আবার যদি নিজেদের প্রভাব ফিরিয়ে আনতে হয় তবে ওদের একটা মিটিং ডাকা উচিৎ। সেখানে পাড়ার সব মানুষকে বিশেষ করে দলের ছেলে মেয়েদের মা-বাবাদের, যে ছেলেরা ওদের ভুল বুঝছে তাদের এবং আমরাও কয়েকজন যারা ওদের কাজ সমর্থন করি তারাও থাকবো। সেখানে দলের সদস্যরা তাদের বক্তব্য রাখুক। আমার মনে হয় এইধরনের আলোচনা হলে যে সমস্ত ভুল ধারনা আছে সেগুলো অনেকটাই কেটে যাবে।
আমি চাই এইধরনের দল আরও অনেক কাজ করুক। ওরা যেভাবে বয়ঃসন্ধির পরিবর্তন নিয়ে আলোচনা শুরু করেছিল, সেইসময় আমি ওদের পাশে ছিলাম তবে ওদের এটাও বলেছিলাম আমাদের গ্রামে এই বিষয় নিয়ে কথা বলা অতো সহজ নয়, অনেক বাঁধা আসবে। আর বিশেষ করে যেহেতু দলে অনেক ছোট ছেলেরা আছে তাই সবাই একসাথে এই বিষয় নিয়ে আলোচনা না করে বয়স অনুযায়ী আলাদা আলাদা দলে ভাগ হয়ে এই বিষয় নিয়ে ট্রেনিং হোক। ওরা হয়তো সেটা করেছে কিন্তু কোনভাবে হয়তো এটা ভুল ধারনা রটে গেছে। আমার মনে হয় একটা মিটিং হলে এসব কেটে যাবে। আর পাড়ার মানুষকে তো বোঝাতে হবে স্কুলে আর কিছুদিন পরে যখন এই বিষয় নিয়ে আলোচনা শুরু হবে তখন তো আর স্কুল যাওয়া বন্ধ করতে পারবে না। তাই দল যা করছে সেটা ঠিক, আমার পূর্ণ সমর্থন আছে।"



হাবিবা বিবি
৩৫ বছর বয়স, গৃহবধূ, দিশা দলের সদস্যের মা

"আমাদের বাড়িতেই মেয়েদের দলটা বসে। আমার মেয়ে আরও পাড়ার অন্য মেয়েরা অনেক ভালো জিনিস শিখতে পারছিল। কিন্তু ওই ছবি দেখানোর পর থেকেই পাড়ার কিছু ছেলে মেয়েদেরকে আপনাদের অফিসে যাওয়া, দলে বসা এইসব ব্যাপারে আপত্তি করতে শুরু করল। এই কমাসে ওরা নিজেদের শরীর নিয়ে যা শিখছিল সেটা ওই ছেলেগুলো যেদিন জানতে পারলো তারপর তো প্রত্যেকের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে শাসিয়ে এসেছে। আমার মেয়েকেও বলেছে যদি ঘর থেকে বের হয় পা ভেঙ্গে দেবে। আর ওদের মা-বাবারাও এইসব আলোচনা ভালো চোখে দেখছে না। তবে আমার বাড়িতে ওরা এইসব নিয়ে আলোচনা করে আমি তো মাঝে মাঝেই থাকি, আমার শাশুরিও দেখে আমার তো মনে হয় না ওরা ভুল কিছু শিখছে। কিন্তু আমি বললেই তো আর হল না। আমার মেয়ে তো আর অতো বড় হয়নি। দলের যেসব বড় মেয়েরা আছে তারা যদি অন্তত দলে নিয়মিত আসতো আর ছোট মেয়েদের মা-বাবাদের বোঝাতে পারতো তাহলে কিছু হত। আর পাড়ায় কিছু লোক আছে যারা সামনে ওদের সমর্থন করে কিন্তু পেছনে এর বিরধিতা করছে। আমি তো আমার মেয়েকে অন্যদেরও বলেছি কলকাতায় গিয়ে ভালো কিছু শিখছিলিস সেটা বন্ধ হওয়া ঠিক নয়, দরকার হলে আমি যাবো। আমার মতে দলের মা-বাবাদের নিয়ে দুটো দলের ছেলেমেয়েরা একটা আলোচনা সভা ডাকুক। তাতে অনেক কিছু পরিষ্কার হবে।"


আনোয়ারা বিবি
৪৯ বছর বয়স, গৃহবধূ, দিশা দলের সদস্যের মা

"আমার মেয়ে তো যেত কিন্তু ওর বাবা দাদারাই তো চায় না। আমি আর কি বলব? আমরা চাইলেই তো সব হয় না ঘরের কাজ করতে করতেই তো সময় চলে যায়। ওরা যখন অনুষ্ঠান করেছিল আমি গেছিলাম, ভালো করত কিন্তু সবাই না চাইলে তো আর হবে না।"


সাঞ্জুয়ারা খাতুন
৩০ বছর বয়স, গ্র্যাজুয়েশন করে ঘরে থাকি, জরির কাজে, চাষের কাজে সাহায্য করি। দিশা দলের সদস্য (অনিয়মিত)

"সমানতা নিয়ে অনুষ্ঠানের পরই তো আমাকে ভাই দলে যেতে বারণ করে দিল। কিছু বোঝাতে গেলেই অশান্তি করতে থাকে। আর এখন দলে কি নিয়ে আলোচনা হচ্ছে সেটা জানার পর তো দলটাই আর থাকতে দেবে না বলেছে। এমনিতেই আমাদের পড়াশোনা বা কোন দরকারে বাইরে যাওয়া নিয়ে তো সবার আপত্তি। এত অশান্তি আমার আর ভালো লাগে না। আমি তাই দলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি।"
 

1 comment:

  1. azahar3/11/2014

    than you thoughtshop foundation.amader lakha post korar jonno.amra chai amader poribarton gulo aro lekhte chai

    ReplyDelete

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here