17 Sep 2013

My Dream Becomes Reality [msc]



Narrated by Ashok Majhi, 16 years, YRC, Swapno, Namkhana
Recorded by Binita Chakraborty, 5th May, 2013. Please see the brief note on MSC for a background on the process.

I live in a village in the Namkhana Block of the Sundarban area. It is few kilometers walk along a dirt track that leads from the highway. A lovely little river called Chinai flows by here. Our village is very beautiful.

At home, we are four people – my parents, me, and my younger sister. My father has a business of growing betel leaves and my mother is a homemaker. I am in class XI, my sister is in class VI. I go to the Union High School located in another village called Shibnagar Abaad. It was through my school that I got associated with a group called Swapno [Bengali: "Dream"]. We meet in Shibnagar Abad every Saturday after school hours.

The most significant change for me has been seeing my dream for a health centre in my village come true with the help of my group and family.

In the past three months, we have been doing an interesting activity in our group, called Neighbourhood Diaries. While noting down what dreams I had for my neighbourhood, I had written that among the many things I wanted to build in my village, the most important was a hospital.

People from our village have to travel a long way to another village called Dwariknagar for the nearest hospital. It is hard to transport people who are very ill, and it is also very difficult to negotiate the dirt track which becomes muddy in the monsoons. Some years ago when my cousin sister was ill and being rushed to the hospital, she died on the way. I can never forget this.

So my dream is to build our own hospital. Earlier there had been an initiative to build a health centre here. But it was planned on low land, and half way through the construction the embankment had broken and the construction site was flooded. A lot of resources were needed to raise the land and neither the community nor the Panchayat could raise enough funds. So much to our disappointment the project was abandoned.

When some months back I heard of the YRC group from my friends and joined, I started liking it a lot. I began to attend group meetings regularly. During this time, I had to face a lot of questions from friends and elders in my neighbourhood; "What group is this? What is the use? Do they pay you?" and many other such questions. I told them everything – what we do in the group, why I like going there. I talked about my group to my family too, to my grandparents and parents.

Around this time, we organized a public event on the theme of our neighbourhood. Here I talked of my dreams and my feelings about my para, some in the form of poetry, publicly. My mother made an effort and attended this programme. Seeing our group members and learning about our group first hand made her very happy and she talked about us at home in glowing terms.

After a while when I saw that people at home as well as those of our para had grown to believe in me, I told them about my dream: the dream to build a hospital. One important and influential Dadu [Village elder, "Grandfather"] of our village was also there. He has a soft corner for me and he was excited and inspired by the idea. He made an amazing suggestion. He offered to donate his land that was in a raised part of the village towards the cause of the health centre. The proposal was resubmitted to the village Panchayat along with this generous offer.

A few months ago, the proposal was accepted and the process of building a health centre in our village has started!

Construction in progress, June 2013


আমার স্বপ্ন সত্যি হলো

আমার বাড়ি সুন্দরবন এলাকার নামখানা ব্লকের নামখানা গ্রামে। বাস রাস্তা থেকে ২ – ৩ কিমি. ভেতরে মাটির রাস্তা ধরে চলে এলেই আমাদের গ্রাম। আমাদের গ্রামের পাশ দিয়ে একটা খুব সুন্দর নদী বয়ে গেছে, তার নাম ‘চিনাই’। গ্রামটা আমাদের খুব সুন্দর।

আমরা বাড়িতে চার জন সদস্য – মা, বাবা, আমি আর বোন। বাবার পানের বরজের ব্যবসা আছে আর মা গৃহবধূ। আমি পড়ি ক্লাস XI–এ আর বোন পড়ে ক্লাস VI–এ। আমার স্কুল ‘ইউনিয়ন হাই স্কুল’, ‘শিবনগর আবাদ’ নামক একটি গ্রামে অবস্তিত। এই স্কুলে পড়ার সূত্রেই আমি ‘স্বপ্ন’ নামক একটি দলের সঙ্গে যুক্ত হই। প্রতি শনিবার স্কুল ছুটির পর এই গ্রামেই আমাদের দল বসে।

গত তিন মাসে দলে বসে আমরা আমাদের পাড়াকে নিয়ে একটা নতুন ধরনের activity করছি, সেটা হল “আমার পাড়ার ডাইরি”। পাড়াকে নিয়ে আমাদের কি কি স্বপ্ন সেগুলো নোট করতে করতে আমি লিখেছিলাম যে আমি আমার পাড়ায় অনেক কিছু গড়তে চাই, যার মধ্যে সবথেকে জরুরী বলে মনে হয় গ্রামের একটি হাসপাতাল। গ্রামের সব মানুষকেই ডাক্তার দেখাতে অনেকটা পথ চলে দ্বারিনগর নামে একটি গ্রামের হাসপাতালে যেতে হয়। বিশেষ করে কারো অবস্থা খুব খারাপ থাকলে তাকে অতদূর নিয়ে যাওয়াও খুব সমস্যার হয়ে যায়, আবার বর্ষাকালেও ওই কাঁচা রাস্তা পেরিয়ে অতটা যাওয়া খুবই সমস্যা। কিছু বছর আগে আমার এক বোন খুব অসুস্থ ছিল – ওই হাসপাতালে নিয়ে যেতে-যেতেই ও মারা যায়। এটা আমি কোনোদিনও ভুলতে পারি না।

তাই আমার স্বপ্ন আমাদের গ্রামে একটা হাসপাতাল হোক। আগেও একবার গ্রাম থেকে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল একটা স্বাস্থ্যকেন্দ্র তৈরির জন্য। কিন্তু সেবার যেহেতু নীচু জমির ওপর কাজ শুরু হয়েছিল, কাজ খানিকটা এগোনোর পর বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় জমিটা ডুবে গিয়েছিল। সেই জমি উঁচু করে গড়ার জন্য যা খরচা-পাতি লাগত, গ্রামের মানুষদের বা পঞ্চায়েতের -- কারুরই সেই সামর্থ্য ছিল না। তাই আমরা নিরাশ হওয়া সত্বেও এই পরিকল্পনা আর এগোয়নি।

কয়েকমাস আগে যখন আমি বন্ধুদের কাছে এই দলের কথা শুনে এখানে যোগ দিই, আমার খুব ভালো লেগে যায় এবং আমি তারপর থেকে নিয়মিত এই দলে আসতে থাকি। এই সময়েই দলে আসা নিয়ে আমার গ্রামের বন্ধুরা আর পাড়ার বড়রা আমায় অনেক প্রশ্ন করতে থাকে, যেমন, কোন দলে যাচ্ছিস? কি লাভ সেখানে গিয়ে? ওরা কি তোকে কোনো টাকা-পয়সা দেয় নাকি? আরো অনেক কিছু।

আমি ওদের সব কথাই বলি। আমরা দলে কি করি, সেখানে গেলে আমার কি ভালো লাগে ইত্যাদি। এই কথাগুলো আমি আমার বাড়ির লোকেদেরও বলি, আমার দাদু-দিদা, মা-বাবা সবাইকে। সেই সময় আমরা পাড়ায় “আমার পাড়ার ডাইরি” নিয়ে একটা অনুষ্ঠান করি। এই অনুষ্ঠানে আমরা আমাদের পাড়াকে নিয়ে স্বপ্ন, অনুভূতি – এসব নিয়ে কথা বলেছিলাম – কিছু কথা কবিতার মাধ্যমে সবার সামনে বলেছিলাম। এই অনুষ্ঠানে আমার মাও এসেছিল। মা আমাদের দলের সবাইকে দেখে, দল সম্পর্কে জেনে খুবই খুশি হয়। বাড়িতে গিয়েও সবাইকে আমাদের দলের খুব প্রশংসা করে।

একটা সময়ের পর যখন দেখলাম যে বাড়ির লোকেদের ও গ্রামের সবারও আমার প্রতি একটা বিশ্বাস তৈরি হয়েছে, তখন ওদেরকে আমার স্বপ্নের কথা বলি। একটা হাসপাতাল গড়ে তোলার স্বপ্ন। আমাদের পাড়ার একজন গুরুত্বপূর্ণ ও প্রভাবশীল সদস্যও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। ওনাকে আমরা দাদু বলি। উনি আমাকে খুব পছন্দ করেন ও আমার এই আইডিয়াটা শুনে খুবই অনুপ্রাণিত হয়ে একটা দারুণ কথা বলেন। উঁচু জায়গায় ওনার কিছুটা জমি আছে, সেটা উনি স্বাস্থ্যকেন্দ্রের জন্য দান করার প্রস্তাব দেন। তখন ওনার এই উদার প্রস্তাবের কথা বলে নতুন করে একটা দরখাস্ত লিখে গ্রাম পঞ্চায়েতের কাছে আবার আবেদন জানানো হয়।

কিছু মাস আগে আমাদের এই দরখাস্ত মঞ্জুর হয় এবং গ্রামে একটা স্বাস্থ্যকেন্দ্র তৈরীর কাজ শুরু হয়ে গেছে!
 

7 comments:

  1. Great work..you show that dreams can become reality-if you believe in them, articulate them and engage others around you.
    Congratulations and keep dreaming!!

    ReplyDelete
  2. This is a brilliant story. So good to hear that you are an inspirer for your people.

    ReplyDelete
  3. Anonymous10/22/2013

    tomar swapno ta khub sundar.ata puron hobe. tumi calia jao. Shampa Halder

    ReplyDelete
  4. shampa halder10/22/2013

    tomar swapno khub sundar ata calie jao.

    ReplyDelete
  5. Azahar sk10/29/2013

    tumar china vhabna khub bhalo chaliea jeo

    ReplyDelete
  6. Pranay Dolai. Swapno Youth Group.11/18/2013

    অশোক আমি তোমাদের সঙ্গে "আমার পাড়ার ডাইরি" ওয়ার্কশপ করিয়েছিলাম কিন্তু কখন ভাবিনি পাড়াকে নিয়ে তোমার স্বপ্ন পুরন হবে। কিন্তু সেতা তুমি করে দেখিয়েছ। আর সেটা তোমারি উদ্যোগ আর একাগ্রতারি ফল। এভাবে চালিয়ে যাও জিবনে অনেক স্বপ্নই তোমার সত্যি হবে।

    ReplyDelete

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here