5 Mar 2013

It's No Secret

Krishna is a youth trainer
with thoughtshop foundation
this is her second post
read her earlier post


I have been conducting Adolescent Reproductive Health (ARH) training in different villages and towns since the last five years. It is a five-day training during which we talk about the physical and emotional changes that adolescent boys and girls undergo. There is a lot of hesitation in talking about these things, as society doesn't give us the space to talk about adolescence.

Usually, whenever we want to talk about the changes that happen to us as we grow up, we have to talk in hushed tones so that no one can hear us. I use a toolkit [the Champa Kit] that not only helps us talk about facts, but also approaches the subject through conversations and play, helping us to get rid of our hesitation and making it easier and more acceptable for us.

The first day starts with a poem named 'self-realization', in which a 12 year old girl talks about her life and dreams. This becomes a starting point to discuss the hopes and dreams of the girls participating in the training. Through the training sessions, serious subjects are presented in a fun way by using a variety of tools like posters, flipcharts, models, card games and board games. For instance, in the card game, we see pictures from the real lives of girls – underage marriages, pregnancies, infants left to grow up on their own, girls leaving studies, working instead of enjoying their childhood etc. We also see many positive pictures – like girls getting higher education, getting into jobs, becoming nurses and doctors. Through the game we get the opportunity to debate about some very real social situations. Later we explain things by showing pictures from flipcharts and telling the accompanying stories – things like the changes that happen in a girl's body and mind during adolescence, and how girl babies and boy babies are born.

Girls play the 'Happy Family' board game
Murshidabad, December 2012
There are quite a few fun activities like the Blindfold Game and the Jigsaw Game through which we share new ideas like location of the reproductive system and structure of the male body and the female body. How menstruation happens is made very clear by the Cutout Book, and at this point girls share the experience of having their first periods. We also talk about why contraception is necessary, how it is done and how we can become responsible parents. A Board Game is used to develop an understanding about family planning. In this way, the 5 day training girls an overall idea about reproductive health.

I have conducted this training in different villages and slum areas of Kolkata through different NGOs, and each time I have learnt something new. Talking to different kinds of people and hearing their experiences has on the one hand clarified my thoughts on the subject, and on the other hand it has also sometimes made me feel scared, uncomfortable, claustrophobic and confused as to what to do next.

I had conducted the training several times in a locality in Howrah [a district adjoining Kolkata city]. There were mostly Muslim girls there, and some Hindu girls as well. While sharing about their first periods, nearly everyone said that they had been very scared, they had cried a lot and did not want to tell anybody. I got to know that most of them change the cloths they use once every 24 hours, which is not even nearly often enough. Muslim girls shared that once their periods start, the restrictions on them increase a lot. People immediately start talking about marriage. In many cases, people at home stop them from going to school after this. They can't go to Mazhars or Masjids either. One girl shared that they are not allowed to read Arabic at this time, since the Holy Koran is written in that same language. They are forbidden to touch the Koran, perform their Namaz, touch pickles or appear in front of men. Many other things are forbidden. They especially feel the pressure in this that they are forbidden to go out of home. If they must, they have to be accompanied by their mothers, or they can't go out at all.

Hindu girls also start facing similar restrictions on going out of home. The first time a Hindu girl has her periods, she isn't allowed to sleep on her own bed; she has to sleep on a bed of straw. She is forbidden from seeing the sun for seven days. She can't appear in front of their brothers at this time. She can't eat sour stuff like pickles, can't go to temples, nor can she play with her friends. She will be purified after seven days through panchogobyo, meaning that a Brahmin will administer to her a mixture of cow-dung and urine, with milk, water from the Ganges, and coconut water. After drinking this, she will be pure again, and only then can she come out in everybody's presence.

A Nepali girl shared that during her first periods, she was sent to live at an uncle's house which was far away from her own home. When girls from these communities start their menstrual cycle, not only are they forbidden to look at their father's or brothers' faces, they aren't allowed to see the roof of their own homes! She was very scared. In any case she was confused about what to do or not do, and on top of that she was forced in live in a strange house. She could return home only after 15 days, after she put on the new clothes her father brought her.

Will it be a boy or a girl?
the Conception Model makes the girls crack up!
I went to conduct a training recently at a village in Murshidabad. It was in a very remote location, a place where electricity hasn't yet reached. I was working with 13 girls. Talking with them, I realized that even though the traditions and customs of different cultures might be a bit different, the basic situation everywhere was the same. I saw the same hesitation and the feeling of shame in these girls that I had seen before – a reflection of the pressure society has created on girls everywhere. Maybe this training has helped to reduce the hesitation in them somewhat, maybe they will be able to apply certain things they have learnt in their own lives. These girls would now take on the responsibility of becoming peer trainers, like me. Each of them would go to 4-5 villages and give 13-20 more girls this same training. In this way, the work would be carried forward.

I was feeling good thinking of the many girls who would get to learn and discuss these things. But I was feeling scared too. They said that they would conduct the training in open spaces. Mothers and women of the household would be present there, and in many cases fathers and male family members would also be a part of that space. In such a situation, they might have to face any kind of question. Being new to this themselves, what if they got confused, scared? I was worrying a lot about it, but I tried to make myself strong, and to the best of my ability, discuss with them the kinds of challenges they might face and how to respond to these.

During discussions, something came up which they fear a lot. Even though we had known most of the facts, this fear had persisted with us too for a long time. This is a fear of the unknown. We have been taught to fear this since ages. This is the fear of religious consequences.

I have mentioned earlier that during their periods, Muslim girls aren't allowed to do their Namaz or touch the Koran. At the Murshidabad training, I also found out that at such times it is considered a sin to even touch the clothes of people who read the Koran, like fathers or brothers. Some of the girls were saying that they don't believe one can't go to temples or masjids during their periods, but still they don't actually do it, since elders at home object to it.

At this juncture, I shared a personal experience with them. Once I had gone to Tarapeeth with my friends. Everyone went in, I was also keen to, but was scared as it was my second day running. I stood outside for a long time debating what to do. Then suddenly I thought – let me take a chance and go in! We believe that the Goddess there is very alive and full of power. I returned after seeing her, but then an unknown fear gripped me. What would happen to me? Something would happen! This fear worked inside me for a long time, coupled with guilt. But nothing happened! Because of this, that unknown fear has also lessened gradually. Now I don't feel scared of visiting places of worship. But that doesn't mean that I ever force anyone else to accompany me inside. I don't enter temples in people's houses during these times, as it is that person's faith which I don't want to harm. One cannot force another to do something. Transformation can happen only when a person questions things from the inside and challenges things that don't stand to reason.

Hearing my story, the girls also started opening up – "we also sometimes go to places where a puja is happening – and nothing happens!" they said, "and what mothers used to say earlier, that don't touch the paddy, it will go bad or it won't bring forth the grain; don't touch the tree or it won't flower – these aren't right either! We do all these things, and we still harvest the grain; trees continue to produce flowers and fruit!"

I felt I had been able to stir something in them. Maybe after listening to my experience, they had started to question the small 'no!'s in their lives as well! Such things have been going on since ages. The Murshidabad girls made big plans about where and how they would train other girls like them.

Some things have changed, some have remained the same. I continue to conduct these workshops and trainings; we have started to do something for change. We have to go forward, whatever the challenges!





গোপন নয়

Krishna explains the Card Game
Murshidabad, December 2012
আমি গত পাঁচ বছর ধরে বিভিন্ন জায়গায় ARH ট্রেনিং করাচ্ছি – বিভিন্ন গ্রামে ও শহরে। এই ট্রেনিং-টা ৫ দিনের হয়। বয়ঃসন্ধিকালে ছেলেদের এবং মেয়েদের শারীরিক ও মানসিক যে পরিবর্তনগুলো হয়, ARH সেইগুলো নিয়েই কথা বলে। জড়তা অনেকটাই থাকে কারণ সমাজ বয়ঃসন্ধিকাল নিয়ে কথা বলার সেই সুযোগ আমাদের দেয়না। এই সময়কার পরিবর্তনগুলো নিয়ে যখনই আমরা কথা বলতে চেয়েছি, আমাদের লুকিয়ে চুরিয়ে বলতে হয়েছে, কেউ যেন জানতে না পারে, সেইভাবে। এই মডিউল তথ্যাদি তো জানায়ই, গল্পচ্ছলে জড়তা কাটিয়ে এই বিষয়টা খুব সহজ এবং গ্রহণযোগ্য করে তোলে।

Jigsaw Game
প্রথম দিন শুরু হয় আত্মউপলব্ধির একটি কবিতা দিয়ে, যাতে একটি ১২ বছরের মেয়ে তার ভবিষ্যৎ জীবন ও স্বপ্ন নিয়ে কখা বলে। যে মেয়েরা ট্রেনিং-এ অংশগ্রহণ করছে, এই সময় তাদের স্বপ্ন ও ইচ্ছা নিয়েও আমরা জানতে পারি। পোস্টার, কার্ড গেম, ফ্লিপ্চার্ট, লুডো খেলা ইত্যাদি বিভিন্ন মজার উপায়ে গুরুগম্ভীর বিষয় খেলাচ্ছলে শেখানো হয়। যেমন কার্ড গেম-এ মেয়েদের বাস্তব জীবনের কিছু ছবি পাই, যেমন অল্প বয়সে বিয়ে, অল্প বয়সে পেটে বাচ্চা আসা, ছোট্ট বাচ্চা একলা পড়ে থাকা, পড়াশোনা ছেড়ে দিয়ে কাজ করা – আবার উল্টো ধরনের কিছু ছবিও পাই, যেমন মেয়েরা চাকরি করছে, নার্স হচ্ছে, ডাক্তার হচ্ছে, উচ্চশিক্ষা পাচ্ছে ইত্যাদি। এখানে আমরা সমাজের কিছু বাস্তব পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলার সুযোগ পাই। ফ্লিপ্চার্ট-এর ছবি দেখিয়ে আর সাথে সাথে গল্প পড়ে শুনিয়ে নানা জিনিস বোঝাই, যেমন বয়ঃসন্ধিকালে মেয়েদের শরীরের ও মনের কি কি পরিবর্তন হয়, ছেলে বা মেয়ে কিভাবে হয় ইত্যাদি। মাসিক কিভাবে হয় সেটা খুব পরিস্কার হয়ে ওঠে cutout book-এর মাধ্যমে। Blindfold গেম দিয়ে বোঝানো হয় প্রজনন ব্যবস্থার অবস্থান আর একটা jigsaw-র মাধ্যমে মেয়েদের ও ছেলেদের শরীরের গঠন বোঝানো হয়। । মেয়েরা প্রথম মাসিকের অভিজ্ঞতা share করে। গর্ভনিয়ন্ত্রণ কেন জরুরি ও কিভাবে করা যায়, দায়িত্বশীল বাবা-মা কিভাবে হওয়া যায় এইসব নিয়েও আলোচনা হয়। একটা লুডো খেলার মাধ্যমে family spacing-এর ধারণা দেওয়া হয়। এই ভাবে পাঁচ দিনের ট্রেনিং-এর পর একটা ধারণা তৈরী হয়ে যায়।

এই ট্রেনিং-টা আমি অনেক জায়গায় করিয়েছি বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে – বিভিন্ন গ্রামে এবং কলকাতা শহরের বিভিন্ন বস্তি এলাকায়। যতবার ট্রেনিং করিয়েছি, ততবার নতুন কিছু শিখেছি, জেনেছি। এত আলাদা আলাদা ধরনের মানুষের সাথে কথা বলে ও তাদের অভিজ্ঞতার কথা জেনে যেমন একদিকে আমার চিন্তা-ভাবনাগুলো আরো পরিষ্কার হয়েছে, তেমনি অন্যদিক দিয়ে দেখতে গেলে তাদের কথা শুনে কখনো কখনো ভয় লেগেছে, অস্বস্তি হয়েছে, দম বন্ধ হয়ে এসেছে – বুঝতে পারিনি কি করা উচিত।

একটা ঘটনার কথা বলি। আমি হাওড়ার একটা জায়গায় ট্রেনিং করিয়েছিলাম বেশ কয়েকবার। ওখানে বেশিরভাগ মুসলিম মেয়েরা ছিল, ও কিছু হিন্দু মেয়েও ছিল। প্রথম মাসিকের কথা বলতে গিয়ে প্রায় সবাই বলেছিল যে তারা ভীষণ ভয় পেয়ে গিয়েছিল, কান্নাকাটি করেছিল, বলতে চায়নি কাউকে। জানলাম যে বেশীরভাগ মেয়েরা দিনে একবার কাপড় পাল্টায়, কেউ কেউ দুবার। দু-একজনই বলেছিল যে তারা দিনে তিনবার বদলায়। আমরা এই ট্রেনিং-এ শেখানোর চেষ্টা করি যে দিনে প্রতি তিন ঘন্টা অন্তর একবার পাল্টানো উচিত। বিশেষভাবে মুসলিম মেয়েরা share করেছিল যে মাসিক শুরু হওয়ার পর ওদের ওপর বাধা-নিষেধ বিভিন্ন দিক দিয়ে আরো অনেক বেড়ে যায়। যেমন মাসিক হতেই ওদের বিয়ে দিয়ে দেওয়ার কথা শুরু হয়ে যায়। অনেক সময় ওদের স্কুল যাওয়া বন্ধ করে দেয় বাড়ি থেকে। মাজহার-এ বা মসজিদে যাওয়াও চলবে না। একটি মেয়ে বলেছিল যে যেহেতু কোরান আরবি ভাষায় লেখা, বাড়ির থেকে এই সময় ওদের আরবি পড়তে দেয় না। ওদের কোরান স্পর্শ করা বারণ, নমাজ পড়া বারণ, আঁচার ধরা বারণ, ছেলেদের সামনে আসা বারণ। আরো অনেক কিছু বারণ। বিশেষ করে যেখানে ওরা চাপ অনুভব করে সেটা হলো, ওদের বাড়ি থেকে বেরোনো প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। বেরোলে মায়ের সাথে বেরোতে হবে, নইলে বেরোতে পারবেনা।

হিন্দু মেয়েদের ক্ষেত্রেও একইরকম বাইরে বেরোনোর ওপর বাধা-নিষেধ চলে আসে। প্রথমবার মাসিক হওয়ার পর কিছু জায়গায় বিছানায় শুতে দেয় না, ওই সময়টা খড়ের ওপর ঘুমোতে দেয়। সাতদিন সুর্যের আলো দেখতে দেয় না। ভাইদের মুখ দেখতে দেয় না। সে টক খেতে পারবেনা, মন্দির যেতে পারবেনা, খেলাধুলো তার বন্ধ থাকবে। সাতদিন পরে তাকে শুদ্ধ করা হবে – পঞ্চগব্যের মাধ্যমে। তার মানে গোবর, গোচোনা, দুধ, গঙ্গাজল আর ডাবের জল সব একসাথে মিশিয়ে বামুনের হাতে তাকে সেটা খাওয়াতে হবে। তারপর সে শুদ্ধ হবে, এবং সকলের সামনে আসতে পারবে।

একজন নেপালি মেয়ে share করেছিল যে তার যখন প্রথম মাসিক হয় তখন ওকে ওদের বাড়ির থেকে অনেক দূরে একটা কাকার বাড়ি রেখে আসা হয়েছিল। ওদের মাসিক হলে বাবা-ভাইদের মুখ তো নয়ই, নিজের বাড়ির ছাদ পর্যন্ত দেখা নিষেধ! ও খুব ভয় পেয়েছিল। একেই কি করবে বুঝতে পারছিল না, তার ওপর আবার অন্য লোকের বাড়িতে থাকতে হচ্ছিল। ১৫ দিন পর বাবা নতুন জামা এনে দিলে দিলে সেটা পরে তবে সে নিজের বাড়ি ফিরে আসতে পারবে।

এত কিছু শোনা এবং জানার পর ইদানিং কালে ট্রেনিং করাতে গেছিলাম মুর্শিদাবাদের একটা গ্রামে। গ্রামটা খুব ভিতরের দিকে। সেখানে এখনো কারেন্ট পৌঁছয়নি। ট্রেনিং-টা করাচ্ছিলাম ১৩ জন মেয়ের সাথে। তাদের সাথে কথা বলে মনে হলো, বিভিন্ন সংস্কৃতির রীতি-রেওয়াজ একটু-আধটু আলাদা হলেও সব জায়গার পরিস্থিতি মোটামুটি একই রকম। এখানকার মেয়েদেরও কথা বলতে গিয়ে সেই একই জড়তা, লজ্জা – সমাজের তৈরী করা সেই একই চাপের প্রতিফলন। এই ট্রেনিং-এর ফলে হয়তো তাদের নিজেদের ভিতরকার জড়তা একটু কেটেছে, হয়ত যা শিখেছে তা নিজেদের ব্যক্তিগত জীবনে কিছুটা কাজে লাগাতে পারবে, কিন্তু এরাই আবার হবে ট্রেনার। এরা প্রত্যেকে ৪-৫টা গ্রামে যাবে এবং ১৩ থেকে ২০ জন মেয়েকে এই একই ট্রেনিং করাবে। এইভাবে কাজটা এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

এটা ভেবে ভালো লাগছিল যে কত মেয়ে এই বিষয়টা নিয়ে জানতে পারবে এবং আলোচনা করতে পারবে। কিন্তু খুব ভয়ও হচ্ছিল। ওরা বলছিল ওরা খোলা জায়গায় বসে ট্রেনিং-টা দেবে। সেখানে ঘরের মায়েরা-বৌরা তো বটেই, বাবারাও অনেক সময় উপস্থিত থাকেন। এই পরিস্থিতিতে ওরা যে কোনো প্রশ্নের সম্মুখীন হতে পারে। নিজেরাই আনকোরা নতুন, এসব শুনে যদি ঘাবড়ে যায়, ভয় পেয়ে যায়? এসব ভেবে নিজের খুব চিন্তা হচ্ছিল। তারপর নিজেকে একটু শক্ত করলাম ও ওদের সাথে সাধ্যমত আলোচনা করলাম কি কি ধরনের challenge-এর মুখোমুখি ওরা হতে পারে ও কিভাবে সেটার উত্তর দেওয়া যেতে পারে।

এই আলোচনা করতে করতে একটা জায়গা উঠে এলো, যে বিষয়ে ওরা খুব ভয় পায়। সব কিছু জানা সত্ত্বেও এই ভয়টা আমাদের মধ্যেও অনেকদিন ছিল, কারণ এটা একটা অজানা ভয়। এই ভয়টা আমাদের সবাইকে দেখানো হয়, হয়ে আসছে কত যুগ ধরে। একে বলে ধর্মের দোহাই দেওয়া।

আগেও বলেছি, মাসিকের সময় মুসলিম মেয়েদের নমাজ পড়তে দেয় না আর কোরান ছুঁতে দেয় না। এমনকি যারা কোরান পড়ে, বাবারা-দাদারা, তাদের জামাকাপড় ছুঁলেও নাকি পাপ হয়। কেউ কেউ বলছিল যে তারা মানে না মন্দির-মসজিদ যাওযার নিষেধ। কিন্তু তাও তারা যায় না, বাড়ির বড়রা আপত্তি করে তাই।

এই সময় আমি ওদের সঙ্গে আমার একটা অভিজ্ঞতা share করি। একবার আমরা সব বন্ধুরা মিলে তারাপীঠ গিয়েছিলাম। সবাই মন্দিরের ভতর ঢুকে গেল, আমারও খুব ইচ্ছে করছিল ঢুকতে কিন্তু আমার দ্বিতীয় দিন চলছিল বলে ভয় পাচ্ছিলাম। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ভাবলাম কি করব। তারপর হঠাৎ ভাবলাম – ঢুকেই দেখি না কি হয়। ওখানকার দেবী খুবই জাগ্রতা বলে আমরা মানি। দর্শন তো করে এলাম, কিন্তু তার পর থেকেই মনে অজানা একটা ভয় চেপে বসলো। ভাবতে লাগলাম, আমার কি হবে? কি হবে? কিছু তো একটা হবেই! অনেকদিন এই ভয়টা কাজ করেছে, সাথে সাথে অপরাধবোধ। কিন্তু আমার কিছু হয়নি। কিছু না হওয়ার ফলে অজানা ভয়টাও আমার ভিতর থেকে অল্প-অল্প করে কমেছে। এখন মন্দির বা মসজিদে যেতে ভয় পাই না। কিন্তু নিজে ভয় পাই না বলেই অন্য কাউকেও জোর করে নিয়ে যাই না কোথাও। কারুর বাড়ীর মন্দিরে জোর করে ঢুকি না। কারণ ওটা তার বিশ্বাসের জায়গা, সেটাকে আঘাত দিতে চাইনা। জোর করে তো কাউকে কিছু করানো যাবে না। সে যখন নিজের থেকে ভাববে এটা নিয়ে, অযৌক্তিক জিনিস নিজে challenge করবে, তখনি পরিবর্তন সম্ভব হবে।

আমার জীবনের ঘটনা শুনে ওরাও বলতে থাকে – আমরাও কখনো কখনো পুজোর জায়গায় চলে যাই, কিছু তো হয়না! আর আগে মায়েরা যেটা বলত, যে ধানের গোলা ছোঁয়া যাবে না, ধান খারাপ হয়ে যাবে; বীজধান ছুঁলে ধান চাষ হবে না; গাছ ছুঁলে ওই গাছে ফল হবে না – সেগুলোও ঠিক নয়! আমরা তো এগুলো সব করি, কিন্তু তাও আমাদের চাষ হয়, গাছে ফল হয়। মনে হলো কোথাও একটা কিছু নাড়া দিতে পেরেছি ওদের মধ্যে। হয়ত আমার অভিজ্ঞতার কথা শোনার পর ওরা নিজেদের জীবনের ছোট ছোট নিষেধগুলো নিয়ে ভাবতে শুরু করেছে।

এসব অনেকদিন যাবত চলে আসছে। তবুও ট্রেনিং-টা বিভিন্ন জায়গায় আমি করাই। মুর্শিদাবাদের মেয়েরাও অনেক প্ল্যানিং করল কোথায় কিভাবে ওদের মত আরো মেয়েদের ট্রেনিং করাবে। কিছু জিনিস পাল্টেছে, কিছু পাল্টায়নি। কিন্তু কিছু শুরু তো হলো। এগিয়ে তো যেতে হবে, যতই বাধা থাক!
--

2 comments:

  1. Hi Krishna,
    Transformation can happen only when a person questions things from the inside and challenges things that don't stand to reason.
    - a true change maker!!- very well said and your example also so relevant...
    hope you can keep questioning and helping others to do so too!
    mona

    ReplyDelete
  2. Krishna11/25/2013

    Thank you Mona.

    ReplyDelete

You can comment without logging-in, just choose any option from the [Comment as:] list box. Comment in any language - start here